সিরিয়ায় মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৩৬ হাজার ছাড়িয়েছে, ভবিষ্যত্‍ আলোচনা অনিশ্চিত

syria-conflictঢাকা, ২ফেব্রুয়ারি, নিউজ ডেস্ক: সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধে জানুয়ারি পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৩৬ হাজার ছাড়িয়েছে৷ জানুয়ারিকে সবেচেয় রক্তক্ষয়ী মাসের একটি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ সহিংসতায় এখনও অনেক বেসামরিক নাগরিক মারা পড়ছেন৷একটি এনজিও এতথ্য জানিয়েছে৷জেনেভায় ১০ দিন ধরে চলা সিরিয়া শান্তি আলোচনায় কোন বাস্তব ফল না আসায় দেশটিতে শান্তির প্রত্যাশা ক্রমেই ক্ষীণ হয়ে আসছে৷ সিরিয়া সরকার ইতোমধ্যে বলেছে, তারা ফের আলোচনার টেবিলমুখী হবে কিনা তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে৷

মানবাধিকার সংগঠন সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানায়, জানুয়ারির শেষ নাগাদ সিরিয়ায় মৃতের সংখ্যা কমপক্ষে ১ লাখ ৩৬ হাজার ২শ’ ২৭ জনে দাঁড়িয়েছে৷

সংস্থার পরিচালক রামি আব্দেল রহমান বলেন, ২০১১ সালের মার্চে সহিংসতা শুরুর পর থেকে রক্তক্ষয়ী মাসগুলোর মধ্যে জানুুয়ারি অন্যতম৷তবে প্রাণহানির প্রকৃত সংখ্যা আরো অনেক বেশি হতে পারে৷ কারণ এ সংখ্যা নিয়ে বিদ্রোহী, জিহাদি ও সরকার কঠোর গোপনীয়তার রক্ষা করে৷

প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারীদের ওপর সরকারি বাহিনীর অভিযানের প্রেক্ষাপটে সংঘাতের শুরু যা পরবর্তীতে সশস্ত্র অভূ্যত্থানে পরিণত হয়৷ এতে অসংখ্য লোক আহত ও লাখ লাখ লোক বাস্তুচু্যত হয়৷গত শনিবার উত্তরাঞ্চলের আলেপ্পো নগরীতে হেলিকপ্টার থেকে ব্যারেল বোমা নিক্ষেপ করা হলে কমপক্ষে ৪৬ বেসামরিক লোক নিহত হয়৷রামি আব্দেল রহমান বলেন, কেবল তারেক আল-বাব এলাকায়ই ৩৩ বেসামরিক লোক নিহত হয়৷

আলেপ্পোয় জোড়া গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে কমপক্ষে ৭ জন নিহত হয়৷ বিদ্রোহীদের একটি দপ্তর লক্ষ্য করে জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট অব ইরাক ও লেভ্যান্ট এ হামলা চালায়৷মধ্যাঞ্চলের হামা প্রদেশের মোরেক শহরে কমপক্ষে ১২ সরকারি যোদ্ধা নিহত হয়েছে৷

এদিকে সিরিয়ার সরকার ও বিরোধী পক্ষ এবং বিদেশী শক্তি এখন সংঘাত বন্ধে জেনেভায় ১০ দিনের বৈঠকের মূল্যায়ন করছেন৷ বৈঠকে অর্জন বলতে কিছুই হয়নি৷ অন্যদিকে পরবর্তী বৈঠকের প্রত্যাশাও অনিশ্চিত৷