সরকারকে পতন না ঘটানো পর্যন্ত আন্দোলন চলবে:বিএনপি

fakrulঢাকা,৩ফেব্রুয়ারি, সরকারের অবৈধ কর্মকাণ্ডের যাতে প্রতিবাদ না হয়,সেজন্য বিরোধী দলের কর্মসূচি পালনে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত রুহুল কবির রিজভী আহমেদ৷তিনি বলেন, বিরোধী দলের ওপর সরকারের তান্ডব ও নির্যাতন এবং সোহারাওয়ার্দী উদ্যানে পূর্বঘোষিত সমাবেশ করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে মঙ্গলবার মহানগরীর প্রতিটি থানায় বিক্ষোভ সমাবেশ করবে ১৯ দল৷

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন৷ বিএনপি ও শরিকদের কর্মসূচি বানচাল করতে সরকার নিজেদের ‘সাজানো প্রশাসন’কে ব্যবহার করছে বলে অভিযোগ করেছে দলটি৷

রিজভী বলেন, সরকার পতনের আন্দোলন স্থগিত করা হয়নি৷ আন্দোলন-সংগ্রাম চলছে৷ আবারো অল্প কিছুদিনের মধ্যে আন্দোলন-সংগ্রাম তীব্র থেকে তীব্রতর হবে৷ সরকারকে গলায় গামছা দিয়ে পতন না ঘটানো পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন৷

রোববার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশ-ছাত্রলীগের হামলার ঘটনার নিন্দা জানান বিএনপির এ নেতা৷ এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিরবতায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকতেই তারা মৌনতা অবলম্বন করছেন৷

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ অভিযোগ করে শিগগিরই সরকারের বিরুদ্ধে ‘দুর্বার’ আন্দোলন শুরু হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন৷ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের তারিখ এর আগে দুইবার পেছানো হয়৷

প্রথম দফায় একুশে বই মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের কারণে ১ ফেব্রুয়ারি এবং পরদিন বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতের কারণ দেখিয়ে দ্বিতীয় দফা সমাবেশের তারিখ পেছানো হয়৷শনিবার ঘোষণা করা হয়েছিল, সোমবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশটি দুপুর ২টায় অনুষ্ঠিত হবে৷ কিন্তু রাত পর্যন্ত মহানগর পুলিশের অনুমতি পায়নি বিএনপি৷

রিজভী বলেন,সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশের জন্য তারা অনেক আগেই মহানগর পুলিশকে চিঠি দিলেও তারা অনুমতি দেয়নি৷প্রতিদিন নির্মম নিষ্ঠুরতায় বিরোধীদলের কর্মসূচিকে বানচাল করতে সাজানো প্রশাসনকে সরকার বেপরোয়াভাবে ব্যবহার করছে৷

তিনি বলেন, সরকারকে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিতে চাই, মানুষের বাক-ব্যক্তি ও বিবেকের স্বাধীনতাকে কঠিন লৌহ শৃঙ্খলে বন্দি রাখার অপচেষ্টা কখনোই সফল হবে না৷ আমাদের আন্দোলন অব্যাহতভাবে চলছে৷ অল্প কিছু দিনের মধ্যেই আবারো দুর্বার আন্দোলন আমরা শুরু করব৷

সারাদেশে গুম ও ক্রসফায়ারে মানুষ হত্যা চলছে অভিযোগ করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব বলেন, আমরা বলে দিতে চাই, এভাবে সন্ত্রাস ও হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে অবৈধ সরকার টিকে থাকতে পারবে না৷ আন্দোলনকেও তারা স্থিমিত করতে পারবে না৷

দলের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবীর খোকন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সহ দপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, শামীমুর রহমান শামীম, জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা (জাসাস) সভাপতি এম এ মালেক, যুব দলের সিনিয়র সহসভাপতি আবদুস সালাম আজাদ, মুক্তিযোদ্ধা দলের সহসভাপতি আবুল হোসেন, মত্‍স্যজীবী দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আউয়াল খান সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন৷