1দৈনিক বার্তা: বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া অর্থাভাবে বাড়ি ভাড়া দিতে পারছেন না এ বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় অর্থ ছাড় দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিষয়টি  সামনে এনে খালেদা জিয়া দেশের মানুষের সহানুভূতি নেয়ার চেষ্টা এবং রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র করছেন কি না সে বিষয়টিও খতিয়ে দেখতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।
সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশ দেন। বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় এ বিষয়ে আলোচনা হয় বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।
জানা গেছে, বৈঠকে আইনমন্ত্রী বিষয়টির অবতারনা করে বলেন, খালেদা জিয়া কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে এ কাজ করেছেন। আসলে তিনি বাড়ি ভাড়া দিতে পারছেন না  নাকি এটা অন্য কোনো ষড়যন্ত্র বিষয়টি খতিয়ে দেখা দরকার।
এ সময় বৈঠকে উপস্থিত অন্য মন্ত্রীরাও কোনো নতুন ষড়যন্ত্র আছে কি-না তা খতিয়ে দেখার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
উল্লেখ্য, ১/১১ এর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত ব্যাংক একাউন্ট চালু হলেও খালেদা জিয়ার একাউন্ট বন্ধ রয়েছে। এনবিআর চেয়ারম্যান দু মাস আগে এ বিষয়ে খালেদা জিয়ার পক্ষে কোন আবেদন পাওয়া যায়নি বলে ব্যবস্থা নেয়া হয়নি মন্তব্য করেন।  সোমবার একটি জাতীয় দৈনিকের প্রতিবেদনে বলা হয়, অর্থাভাবে প্রায় তিন বছর বাড়ি ভাড়া দিতে পারছেন না সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। প্রতি মাসে দুই লাখ টাকা হারে বাড়ি ভাড়া ছাড়াও তার অনেক খরচ রয়েছে। তিন মেয়াদের সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর ব্যাংক হিসাবগুলো জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) দীর্ঘ সাত বছর জব্দ থাকায় তার সংসারে চলছে এখন টানাপড়েন। মাত্র ৫০ হাজার টাকা ব্যাংক থেকে উত্তোলনের যে অনুমতি রয়েছে, তা দিয়ে সংসার চালাতে পারছেন না সাবেক সেনাপ্রধান ও রাষ্ট্রপতি মরহুম জিয়াউর রহমানের স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। তার আয়কর আইনজীবী এ বিষয়ে এনবিআর চেয়ারম্যানের কাছে সাক্ষাতের জন্য বার বার সময় চেয়েও পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেন। বিষয়টি পত্রিকায় প্রকাশ পাবার পরপরই সরকারের উচ্চ পর্যায়ে আলোচনায় স্থান পেলো।