ফেরিডুবির ঘটনায় দক্ষিণ কোরীয় প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ

0
31

1দৈনিক বার্তা : দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধানমন্ত্রী চাং হং উন ফেরিডুবির ঘটনায় রোববার পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন।তিনি বলেন, দুর্ঘটনা না ঠেকাতে পারা এবং পরবর্তী পদক্ষেপ যথাযথভাবে নিতে ব্যর্থতার কারণে আমি ক্ষমা চাচ্ছি। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী হিসাবে আমি বিশ্বাস করি এ দায়-দায়িত্ব আমার এবং আমি পদত্যাগ করছি।

রোববার সকালে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে এ পদত্যাগের ঘোষণা দিয়ে চাং বলেন, আমি আরও আগেই পদত্যাগ করতে চেয়েছিলাম, কিন্তু পরিস্থিতি সামাল দেওয়াই আমার কাছে প্রধান বিবেচ্য ছিল এবং আমি মনে করেছি ছেড়ে যাওয়ার আগে নিজের এ দায়িত্বটুকু পালন করতে।

তিনি বলেন, এখন আমি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছি, তবে এটা প্রশাসনকে কোনো বেকায়দায় ফেলার জন্য নয়।চাং বলেন, এই প্রেক্ষিতে পদত্যাগ করার সিদ্ধান্তই সবচেয়ে বেশি যৌক্তিক। যা করার আমি তাই করেছি।

স্মরণকালের ভয়াবহতম এই ফেরি ডুবির ঘটনায় চাং সরকারের বিরুদ্ধে ছি-ছি রব ওঠে। ফেরি ডুবিতে প্রাণ হারানো ব্যক্তিদের স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে গেলে প্রধানমন্ত্রীকে লক্ষ্য করে বোতলও নিক্ষেপ করা হয়।সব সমালোচনা সয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে শেষ পর্যন্ত পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন চাং।

এদিকে, উদ্ধারকারী দলের মুখপাত্র জানিয়েছেন, শনিবারের উদ্ধার অভিযানে ৯৩ জন ডুবুরি অংশ নেবেন। আবহাওয়া প্রতিকূল হলেও উদ্ধার অভিযান অব্যাহত থাকবে।

১৬ এপ্রিল ৪৭৬ জন যাত্রী নিয়ে ডুবে যায় ‘দ্য সিউল’ নামে ফেরিটি। ইনচিয়ন থেকে পূর্বাঞ্চলীয় পর্যটন দ্বীপ জেজুতে যাওয়ার সময় ডুবে যাওয়া ফেরির যাত্রীদের ৩২৫ জনই ছিল স্কুল শিক্ষার্থী। সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এখন পর্যন্ত ১৮৩টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছে আরও অনেক যাত্রী।
দক্ষিণ কোরিয়ার একটি টেলিভিশন চ্যানেল জানায়, ডুবুরিরা ডুবে যাওয়া ফেরিটির ডাইনিং হল ও ক্যাফেটেরিয়ায় তল্লাশি চালাচ্ছেন। ফেরিটি সমুদ্রের গভীরে প্রায় ২৫ কিলোমিটার নিচে তলিয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন ডুবুরিরা।নিখোঁজ মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনার জন্য ফেরির ক্যাপ্টেনকেই দায়ী করেছেন ও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান, ডুবে যাওয়ার আগে ফেরির ক্যাপ্টেন ও কয়েকজন ক্রু ফেরি থেকে নেমে যান। এছাড়া, ডুবে যাওয়ার সময় ফেরির চালকের আসনে তৃতীয় পর্যায়ের একজন নবীশ ক্যাপ্টেন ছিলেন বলেও জানা যায়।

তবে ডুবে যাওয়ার পেছনে ফেরির ত্রুটিপূর্ণ অবস্থা বা ক্রুদের কোনো অবহেলা ছিল কিনা তাও খতিয়ে দেখছেন উদ্ধারকারী দলের সদস্যরা। যদিও ফেরি ডুবির ঘটনায় আটক ১৫ জন ক্রুকেই দায়িত্বে অবহেলার দায়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।ফেরি ডুবির নিন্দা জানিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন হাই বলেন, এটি হত্যাকাণ্ডের সমতুল্য।



ইস্তফা দিয়ে বেরিয়ে আসছেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধানমন্ত্রী। ছবি:রয়টার্স।