কালিয়াকৈরে পুলিশ পরিচয়ে অপহরণের ১৬ ঘন্টা পর অপহৃত দু’ভাই উদ্ধার ॥

0
24

?????????????????????????????????মোস্তাফিজুর রহমান টিটু/দৈনিক বার্তা : গাজীপুরের কালিয়াকৈরে পুলিশ পরিচয়ে বাড়ি থেকে অপহরণের ১৬ ঘটা পর সোমবার রাতে সহোদর দু’ভাইকে ছেড়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। অপহৃতরা হলো কালিয়াকৈর উপজেলার সূত্রাপুর এলাকার মাধব মন্ডলের ছেলে কেদারী মন্ডল (৬০) ও তাঁর ছোট ভাই ঝিলমোহন মন্ডল (৫৫)।

কেদারী মন্ডলের স্ত্রী পুষ্পরানী জানান, সোমবার ভোর রাত সাড়ে চারটার দিকে সাত-আটজনের একদল দুর্বৃত্ত তিনটি গাড়ি নিয়ে কেদারী মন্ডলের বাড়িতে আসে। এসময় দুর্বৃত্তরা নিজেদের পুলিশ পরিচয় দিয়ে ঘরের দরজা খুলতে বলে। দরজা খুলতে রাজী না হলে তারা দরজা ভেঙে ঘরের ভেতরে ঢুকে এবং অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে কেদারী মন্ডলকে জোর করে গাড়িতে তুলে নেয়। একইসময় একইভাবে দুর্বৃত্তরা পার্শ্ববর্তী ঘর থেকে কেদারী মন্ডলের ছোট ভাই ঝিলমোহন মন্ডলকেও গাড়িতে তুলে নেয়। পরে দু’ভাইকে নিয়ে অপহরণকারীরা দু’টি প্রাইভেটকার ও একটি মাইক্রোবাসে করে পালিয়ে যায়। এঘটনার পর ওই দু’ভাইয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় যোগাযোগ করা হলে পুলিশ তাদের নিয়ে আসার ব্যাপারে অবগত নয় বলে জানায়। পুলিশ অপহৃতদের উদ্ধারের জন্য বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালায় এবং চেক পোষ্ট বসায়। পুলিশের তৎপরতার কারণে অপহরনকারীরা অপহৃত দু’ভাইকে রাত ৯টার দিকে বারই পাড়া এলাকায় চন্দ্রা-আশুলিয়া সড়কের পাশে মাইক্রোবাস থেকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। কালিয়াকৈর থানার টহল পুলিশ ওই স্থান থেকে তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে দু’ভাইকে স্বজনদের হেফাজতে রাতেই বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়। দু’ভাই জিজ্ঞাসাবাদকালে পুলিশকে জানায় সশস্ত্র অপহরনকারীরা পাকা ভবনের একটি কক্ষে দিনভর আটকে উপর দিকে তাকিয়ে রাখে। এসময় অপহরনকারীরা তাদের চড় থাপ্পর মারে এবং টাকা দাবী করে।
এ ব্যাপারে সূত্রাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোলায়মান মিন্টু ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কালিয়াকৈর থানার ওসি ওমর ফারুক বলেন, ওই দু’ভাইয়ের সঙ্গে স্থানীয় ডিভাইন ও জিএমএস নামের দু’কারখানা কর্তৃপক্ষসহ কয়েকজনের জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। এর জের ধরে ঘটনাটি ঘটেছে কি না, খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এঘটনায় বিকেলে কালিয়াকৈর থানায় অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। রাত ১০টায় এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত দুই ভাইকে অপহরনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করা সম্ভব হয় নি।