2দৈনিক বার্তা : কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম হিরু ও পৌর বিএনপির সভাপতি হুমায়ুন কবির পারভেজকে অপহরণের অভিযোগে র‌্যাব-১১ এর সাবেক কমান্ডার চাকরিচ্যুত লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদসহ পাঁচ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কুমিল্লার আদালতে মামলা হয়েছে। এদিকে বেনাপোল পৌরসভার প্যানেল মেয়র তারিকুল ইসলাম তুহিনকে মেয়র আশরাফুল আলমের সহযোগিতায় র‌্যাব অপহরণ করেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেছেন তুহিনের স্ত্রী ছালমা আলম। যুগান্তর ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-
কুমিল্লা : র‌্যাব-১১ এর সাবেক কমান্ডার চাকরিচ্যুত লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদসহ পাঁচ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কুমিল্লার আদালতে মামলা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। রোববার ৬নং আমলি আদালতে এ মামলা দায়ের করেন অপহৃত পৌর বিএনপির সভাপতি হুমায়ুন কবির পারভেজের বাবা ও সাইফুল ইসলাম হিরুর ফুফাতো ভাই লাকসাম ফতেপুর গ্রামের রঙ্গু মিয়া।
মামলাটি আমলে নিয়ে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাবরিনা নার্গিস তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য লাকসাম থানার ওসিকে আদেশ দেন। তিনি চাকরিরত র‌্যাব সদস্যদের বিরুদ্ধে তদন্ত করার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের আইনানুগ পূর্বানুমতি নেয়ার জন্যও তদন্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন।
মামলার আসামিরা হলেন- র‌্যাব-১১ এর সাবেক কমান্ডার চাকরিচ্যুত লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, র‌্যাব-১১ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর সাহেদ রাজী, ডিএডি শাহজাহান আলী, র‌্যাবের এসআই কাজী সুলতান আহমেদ ও অসিত কুমার রায়সহ আরও অনেকে।
মামলায় উল্লেখ করা হয়, ২০১৩ সালের ২৭ নভেম্বর রাত ৯টায় লাকসাম বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম হিরুর মালিকানাধীন দৌলতগঞ্জের বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার মিলে প্রবেশ করে অভিযুক্ত র‌্যাব সদস্যরা টেবিল থেকে ১৪ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনার পরে লাকসাম বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম হিরু, পৌর বিএনপির সভাপতি হুমায়ুন কবির পারভেজ ও ১নং সাক্ষী বিএনপি নেতা জসিম উদ্দিন অ্যাম্বুলেন্সযোগে কুমিল্লা যাওয়ার পথে র‌্যাব তাদের আটক করে। জসিম উদ্দিনকে লাকসাম থানায় হস্তান্তর করা হলেও এখন পর্যন্ত সাইফুল ইসলাম হিরু ও হুমায়ুন কবির পারভেজের কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। মামলা দায়েরের সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন- সাইফুল ইসলাম হিরুর বোন সেলিনা আক্তার, মেয়ে মাশরুফা ইসলাম, হুমায়ুন কবির পারভেজের স্ত্রী শাহানাজ আক্তারসহ তাদের স্বজনরা।
বেনাপোল : বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফুল আলমের সহযোগিতায় র‌্যাবই তারিকুল আলম তুহিনকে অপহরণ করেছে। সহযোগীকে আটক করলে তুহিন অপহরণের রহস্য উদঘাটন করা যাবে বলে দাবি করেছেন বেনাপোল পৌর প্যানেল মেয়র ও শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি তারিকুল আলম তুহিনের স্ত্রী ছালমা আলম। তিনি ১৪ মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছেন।
রোববার বেলা ১১টায় নিখোঁজ তুহিনের বেনাপোলের বাড়ির সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। সাংবাদিক সম্মেলনে ছালমা আলম তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত বছরের ৭ মার্চ সকালে তার স্বামী তুহিন ঢাকার শেরেবাংলানগর ন্যাম ফ্ল্যাটের শার্শা আসনের এমপি শেখ আফিল উদ্দিনের বাসভবন থেকে নেমে ফার্মগেট অভিমুখে যাওয়ার সময় নিখোঁজ হন।
সংবাদ সম্মেলনে তুহিনের বাবা ডা. ইউসুফ আলম, মা আনোয়ারা বেগম, বড় ভাই প্রভাষক শরিফুল আলম শাহিন, তুহিনের এক বছরের শিশুপুত্র, বোনসহ আত্মীয়স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।