1দৈনিক বার্তাঃ বাংলাদেশকে থাইল্যান্ডের মতো পরিস্থিতির দিকে নিয়ে যাওয়ার ষড়যন্ত্র হচ্ছে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ। একই সঙ্গে তিনি এ বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকারও আহ্বান জানিয়েছেন। রোববার ঢাকা রিপোর্টারস ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এ আহ্বান জানান।  দেশব্যাপী নৈরাজ্যের অন্তরালে খালেদা জিয়ার ক্ষমতার মসনদে বসার নির্লজ্জ বাসনা শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে দেশরতœ পরিষদ নামের একটি সংগঠন।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির জন্মই ষড়ডন্তের মধ্য দিযে। তাদের রাজনীতি সব সময়ই ষড়যন্ত্রের। স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়ে  বেগম খালেদা জিয়া মানুষ হত্যা করেছেন।  ট্রেনের পিসপ্লেট উঠিয়ে এবং গাড়িতে আগুন দিয়ে নিরীহ ড্রাইভারদেরও হত্যা করেছেন। তাদের ষড়যন্ত্র এখনো  থেমে  নেই। তারা এখন বাংলাদেশকে থাইল্যান্ডের মতো করতে চায়। বিএনপি ও এর  নেতাদের মধ্যে পচন ধরেছে বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের প্রচ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

বিএনপির  চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উদ্দেশে হাছান বলেন, ‘নিজের ও দলের গন্ধ নেন। নিজের দলে পচন ধরে উৎকট গন্ধ  বেরোচ্ছে। নেতাদের মাঝে পচন ধরেছে। আপনি বলেছেন, শুদ্ধি অভিযান চালাবেন। এখনই ওই অভিযান চালিয়ে নিজের দলকে পচন  থেকে রক্ষা করুন। যাদের কারণে আজ আপনার দলে পচন ধরেছে, তাদের সঙ্গ ত্যাগ করুন।

তিনি আরো বলেন, আদালত চত্বরে সমাবেশ করতে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও খালেদা জিয়া বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে সেখানে সমাবেশ করতে চেয়েছিলেন। এজন্য তিনি আদালত অবমাননার দায়ে অভিযুক্ত হবেন। শুধু গুম-খুনের জন্যই নয়, দশম সংসদ নির্বাচন ঠেকাতে যেভাবে সহিংসতায় নেতৃত্ব দিয়েছেন বিএনপি নেত্রী, সেজন্য তাকেও বিচারের মুখোমুখি হতে হবে।ষড়যন্ত্রের রাজনীতি পরিহার করে নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি করতে বিএনপির প্রতি আহ্বান জানান এ আওয়ামী লীগ নেতা।

জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর খুনের নেপথ্যে ছিলেন দাবি করে হাছান মাহমুদ বলেন,  যে  সেনা সদস্যরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে, তাদের সহযোগিতা করেছেন জিয়া। এরপর বঙ্গবন্ধুর খুনের  চেয়ে জিয়াউর রহমানকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। তার লাশও পাওয়া যায়নি। আমার নির্বাচনী এলাকা রাঙ্গুনিয়ায় তার কবর আছে। সেখানে কেউ যায় না। একদিন গেলেও নিজেদের মধ্যে ঝগড়া করে।

বেগম জিয়া খালেদা জিয়ার সমালোচনা করে হাছান মাহমুদ বলেন, তিনি শনিবার সমাবেশ ডাক দিয়েছেন হাইকোর্টের সামনে। হাইকোটের নির্দেশ উপেক্ষা করে সমাবেশ ডাক দেয়া আদালতের প্রতি বৃদ্ধাগুলি দেখানো ও অবমাননা করা। এই নির্দেশনা উপেক্ষা করে যে সমাবেশ ডেকেছেন এজন্য তিনি আদালতের কাছে অভিযুক্ত।

তিনি বলেন, গুম, খুনের সঙ্গে খালেদা জিয়া ও তাদের সহযোগী স্বাধীনতাবিরোধীদের সম্পৃক্ততা আছে। শুধু গুম খুন নয়, মানুষ হত্যাসহ সব অপরাধের দায়ে তার (খালেদা) বিচার হবে।‘আওয়ামী লীগ আরো পচলে আন্দোলন খালেদা জিয়ার এমর বক্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন,বিএনপি নেত্রী অনেক আল্টিমেটাম দিয়েছেন।  কোনোটাই কাজে আসেনি। তাদের পচা নেতারা আন্দোলনে আসেনি। তাকে আমি বলবো, নিজের ও দলের গন্ধ দেখেন। নিজের দলের পচন ধরে উৎকট গন্ধ বেরুচ্ছে। নেতাদের মাঝে পচন ধরেছে। আপনি বলেছেন, শুদ্ধি অভিযান চালাবেন। এখনই ওই অভিযান চালিয়ে নিজের দলকে পচন  থেকে রক্ষা করুন। তিনি বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকা রাগুনিয়ায় তার কবর আছে।  সেখানে  কেউ যায় না। একদিন গেলেও নিজেদের মধ্যে ঝগড়া করে।

স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতি ইঙ্গিত করে হাছান মাহমুদ বলেন, যাদের কারণে আজ আপনার দলে পচন ধরেছে, তাদের সঙ্গ ত্যাগ করুন।

সংগঠনের সভাপতি চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য দেন ঢাকা মাহনগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, শিক্ষক নেতা শাহ আলম সাজু, আওয়ামী লীগ নেতা জিএম আতিক, অরুন সরকার রানা  প্রমুখ।