1দৈনিক বার্তাঃ  নিরাপত্তার দাবিতে চুয়াডাঙ্গার পেট্রোল পা¤প মালিকদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে। সোমবার সকাল ৬টা থেকে শুরু হয়েছে এ ধর্মঘট। সকাল থেকে জেলার ১৮টি পেট্রোল পা¤প বন্ধ রয়েছে।পেট্রোল ও ডিজেল বিক্রির পয়েন্টগুলোতে সকাল থেকে জ্বালানি তেল বিক্রি বন্ধ রয়েছে। ফলে, বিপাকে পড়েছে তেলবাহী পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা।

বাংলাদেশ পেট্রোল পা¤প মালিক সমিতি ও ট্যাংক-লরি ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চুয়াডাঙ্গার জেলার
সাধারণ স¤পাদক মো. হাবিল হোসেন জোয়ার্দ্দার জানান, বৃহ¯পতিবার রাতে জীবননগর ফিলিং স্টেশনে ডাকাতি হয়। ১০-১২ জনের একদল ডাকাত রাত ১২টার দিকে বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জীবননগর ফিলিং স্টেশনের নৈশ প্রহরীকে বেঁধে রেখে আড়াই লাখ টাকা ডাকাতি করে নিয়ে যায়। এর আগেও কার্পাসডাঙ্গা ফিলিং স্টেশন, বদরগঞ্জের হাইওয়ে ফিলিং স্টেশনে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এভাবে একের পর এক ফিলিং স্টেশনগুলোতে ডাকাতির ঘটনা ঘটার পরও পুলিশ প্রশাসন পেট্রোল পা¤প ব্যবসায়ীদের কোনো নিরাপত্তা দিতে না পারায় অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ডাক দেয়া হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলার ১৮ টি তেল পাম্ম ও ৩৭ টি তেল বিক্রি পয়েন্টেসে প্রতিদিন গড়ে ১ লাখ ৮০ হাজার লিটার জ্বালানি তেল উত্তোলন ও বিপণন হয়ে থাকে।গত ২ দিনের ধর্মঘটের কারণে খুচরা জ্বালানী তেল বিক্রেতারা পার্শ্ববর্তী ঝিনাইদহ ও মেহেরপুর জেলা থেকে পেট্রোল এনে এক লিটার ও আধা লিটারের বোতলে ভরে ১২০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা প্রতি লিটার বিক্রি করছে।

জনৈক তেল বিক্রেতা জানান, জেলার কোথাও কোন তেল না পাওয়ায় চাহিদার কারণে পার্শ্ববর্তী জেলা থেকে মোটা অংকের গাড়ি ভাড়া দিয়ে অল্প অল্প করে তেল (পেট্রোল) লুকিয়ে আনতে হচ্ছে। সেই কারনে একটু বেশী দামে পেট্রোল বিক্রি করতে হচ্ছে। তাও আবার লুকিয়ে লুকিয়ে।চুয়াডাঙ্গা বড় বাজারের জনৈক ব্যবসায়ী মিরাজুল ইসলাম বাপ্পী জানান, কোথাও তেল (পেট্রোল) পাওয়া যাচ্ছে না। অনেক চেষ্টার পর এখানে এক লিটার পেলাম। তবে দাম অনেক বেশী। তার পরও তেলটা পেয়ে খুশি। তা না হলে বাইকটা ফেলে রেখে পায়ে হেটে কাজ সারতে হতোভ

খুলনা বিভাগীয় ট্যাঙ্কলরি (জ্বালানি তেল পরিবহন) মালিক সমিতির যুগ্ম স¤পাদক তসলিম আরিফ জানান, ধর্মঘট চলাকালীন খুলনা ডিপো থেকে চুয়াডাঙ্গা জেলায় কোনো ট্যাঙ্কলরি জ্বালানি তেল উত্তোলন ও পরিবহন করতে পারবে না।

চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার মো. রশীদুল হাসান বলেন, “জীবননগর ফিলিং স্টেশনে ডাকাতির মামলার
অনেক অগ্রগতি হয়েছে। ঘটনায় জড়িত থাকা সন্দেহে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আশা করি খুব দ্রুত এর সমাধান হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, গত বৃহ¯পতিবার রাতে জীবননগর ফিলিং স্টেশনে একদল সশস্ত্র ডাকাতদল নৈশপ্রহরীদেরকে বেধে মারপিট করে আড়াই লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এ সময় তারা দুটি শক্তিশালী বোমা বিস্ফোরণ ঘটায়। গত শুক্রবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক মো. দেলোয়ার হোসাইনের সাথে বৈঠকের পর পেট্রোল পা¤প মালিক সমিতি ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ডাকাতি হওয়া টাকা উদ্ধার ও জড়িতদের গ্রেফতারে আল্টিমেটাম দেয়। বেধে দেওয়া সময় পার হলে সোমবার বিকেলে আকস্মিক খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি মনিরউজ্জামান জীবননগ ফিলিং স্টেশন পরিদর্শন করেন।