3দৈনিক বার্তাঃ রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ২০২১ সাল নাগাদ বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করতে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়নে এগিয়ে আসতে লায়ন্স ক্লাবসহ এ ধরনের অন্যান্য কল্যাণমুখী সংগঠনসমূহের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, আগামী ২০২১ সাল নাগাদ আমাদের প্রিয় মাতৃভূমিকে মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করতে সরকার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। আমি সরকারের উদ্যোগ বাস্তবায়নে লায়ন্স ক্লাবসহ এ ধরনের অন্যান্য সংগঠনকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।

শনিবার নগরীর এক হোটেলে লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল মাল্টিপল ডিস্ট্রিক্ট-৩১৫ এর ২৭তম বার্ষিক কনভেনশনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।দেশ অনেক এগিয়েছে উলে¬খ করে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ বলেন,জনগণের মাথাপিছু আয় বেড়েছে, শিক্ষার হার বেড়েছে, জীবনযাত্রার মান বাড়াসহ বিদ্যুৎ উৎপাদন, যোগাযোগ ও কৃষির উন্নয়ন এবং ব্যাপক নগরায়ন ঘটেছে।

তিনি বলেন, তবে আমি স্বীকার করছি আমরা আমাদের কাক্সিক্সক্ষত উন্নয়ন থেকে এখনও অনেক দূরে। আমি আশা করি, সাধারণ জনগণের ভাগ্য উন্নয়নে যদি আমরা কাজ করি তবে খুব শিগগিরই এ দেশকে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলতে পারব।

বাংলাদেশকে একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বর্ণনা করে রাষ্ট্রপতি বলেন, দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সরকার ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে এবং এ বিষয়ে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি উলে¬খ করেন, সরকার শিক্ষা,স্বাস্থ্য ও নারীর ক্ষমতায়নে উলে¬খ্যযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে। তিনি আরো বলেন, সহস্রাব্দের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে উলে¬খ্যযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নয়নে সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্থা ও সামাজিক সংগঠনের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যার যার অব¯’ান থেকে সকলের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে দেশকে তার কাঙ্খিত উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব।

তিনি লায়ন সদস্যদের উদ্দেশ্যে বলেন, তাদের (লায়নদের) দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন বিশেষ করে শিক্ষা, স্বাস্থ্য খাত, জলবায়ু, স্যানিটেশন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে কাজ করার যথেষ্ট সুযোগ ও সামর্থ রয়েছে।

তিনি বলেন,‘আপনি সমাজের যত ক্ষুদ্র অংশের নেতাই হোন না কেন এ ধরনের কল্যাণমূলক কাজে জড়িত হওয়ার মাধ্যমে আপনি দেশের সার্বিক উন্নয়ন ও অগ্রগতি তরান্বিত করার পাশাপাশি কাজের মান নিশ্চিত করতে পারেন।

রাষ্ট্রপতি দৃঢ় আস্থা প্রকাশ করে বলেন, সরকার লায়নদের জনকল্যাণমূলক কাজে সার্বিক সহায়তা প্রদান করবে। তিনি বলেন, আপনাদের সকল প্রকার উন্নয়নমূলক উদ্যোগে আমার সমর্থন ও সহযোগিতা পাবেন।

লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল বিশ্বে সবচেয়ে বড় কল্যাণ ধর্মী সংস্থা। ২০৯টি দেশের ৪৬ হাজার ক্লাবের সদস্য সংখ্যা প্রায় ১৪ লাখ। বাংলাদেশে বর্তমানে লায়ন্সের সদস্য ১৩ হাজার এবং লির্ড ৬ হাজার।

জেলা কাউন্সিল চেয়ারপার্সন ড. এস এম জগলুল এ মজুমদার, এফবিসিসিআই সভাপতি কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ, সাবেক আন্তর্জাতিক পরিচালক শেখ কবির হোসেন ও মোসলেম আলী খান এবং কনভেনশন চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন বিশ্বাসও অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।