সীমান্তে মানুষ হত্যা শূন্যে আনা হবে: বিজিবি মহাপরিচালক

0
68

Mejor Genarel Aziz

দৈনিকবার্তা-ঢাকা,২৬আগষ্ট: বাংলাদেশ ও ভারতীয় সীমান্তে মানুষ হত্যা শূন্যের কোটায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ৷
সীমান্ত ব্যবস্থাপনা প্রশিক্ষণ বিষয়ে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ)দেওয়া প্রস্তাবে রাজি হয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)৷ মঙ্গলবার রাজধানীর পিলখানায় নিজের দপ্তরে সংবাদ সম্মেলনে বিজিবির মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ এ কথা জানান৷ সম্মেলনে সদ্য সমাপ্ত বিজিবি-বিএসএফ সীমান্ত সম্মেলনের বিষয়বস্তু তুলে ধরা হয়৷ ২০-২৫ আগস্ট ভারতের দিলি্লতে ওই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়৷
বিজিবির মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, গত ২১ আগস্ট থেকে পাঁচ দিনব্যাপী বিজিবি ও বিএসএফ’র মহাপরিচালক পর্যায়ে সম্মেলন হয়েছে৷ সেখানে বাংলাদেশ ও ভারতের অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে৷ তবে মূল এজেন্ডা ছিল সীমান্তে মানুষ হত্যা শূন্যে নিয়ে আসা৷
বিজিবির ডিজি জানান, বিজিবিকে সীমান্ত ব্যবস্থাপনা নিয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়ার প্রস্তাব করেছিল বিএসএফ৷ বিজিবি সেটিতে সম্মত হয়েছে৷ বিএসএফ চার ধরনের বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেবে৷এগুলো হলো জুনিয়র ও সিনিয়র কর্মকর্তাদের সীমান্ত ব্যবস্থাপনা প্রশিক্ষণ,বোমা শনাক্ত ও নিষি্ক্রয়করণ প্রশিক্ষণ, শিকারি কুকুরের ব্যবস্থাপনা প্রশিক্ষণ৷নভেম্বর নাগাদ প্রশিক্ষণের জন্য বিজিবির কর্মকর্তাদের ভারতে পাঠানো হতে পারে৷ এ ব্যাপারে বিজিবির ডিজি বলেন, আগামী ডিসেম্বরে যে সীমান্ত সম্মেলন হবে, তার আগেই প্রশিক্ষণ শুরু হবে৷
সংবাদ সম্মেলনে মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ জানান, বিএসএফ ৭১টি বিচ্ছিন্নতাবাদী ঘাঁটির তালিকা বিজিবিকে দিয়েছে৷ এর আগেও তারা বিভিন্ন তালিকা দিয়েছিল৷ কিন্তু অনুসন্ধান করে কিছু পাওয়া যায়নি৷তবে এবার দুই পক্ষ সম্মত হয়েছে, যেসব স্থান দিয়ে চোরাচালান হয়, দুই পক্ষই সেগুলো শনাক্ত করবে৷ একই সঙ্গে প্রতিবছর তা হালনাগাদ করা হবে৷
সীমান্তে বাংলাদেশের ফেলানী হত্যাকাণ্ড প্রসঙ্গে বিএসএফ বিষয়টি পুনঃতদন্ত করার কথা বিজিবিকে জানিয়েছে৷ফেলানীর বাবা ও মামাকে আবার আদালতের সামনে যেতে হবে৷ বিজিবির মহাপরিচালক বলেন, সীমান্তে যতগুলো অঘটন ঘটে, তার সব পশু চোরাচালানকে কেন্দ্র করে ঘটে৷
বিএসএফ দ্বিপক্ষীয় সম্মেলনে বিজিবিকে জানিয়েছে, ভারত এখন সীমান্তে প্রাণঘাতী অস্ত্র ব্যবহার করে না৷ প্রাণঘাতী নয় এমন অস্ত্র ব্যবহার করে৷ এই অস্ত্র ব্যবহার করতে গিয়ে বিএসএফের সদস্যরা চোরাচালানকারীদের হাতে আহত হচ্ছে৷ সেই তালিকাও দেওয়া হয়েছে বলে বিজিবিপ্রধান জানান৷আর বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ফেনসিডিল তৈরির কারখানার তালিকা বিএসএফকে দেওয়া হয়েছে৷ জবাবে বিএসএফ বলেছে, ভারতে ফেনসিডিল ওষুধ হিসেবে ব্যবহূত হয়৷এটি চোরাচালান বন্ধে বিএসএফ পদক্ষেপ নেবে৷
বিজিবিপ্রধান বলেন, সীমান্তে বেশির ভাগ হত্যাকাণ্ড হয় রাতের বেলা৷ তাই রাতের বেলায় সীমান্তে না যেতে বিজিবির ডিজি আহ্বান জানান৷তিনি বলেন, ভারতে সন্ধ্যার পর সীমান্ত এলাকায় কারফিউ থাকে৷