সোনালী আঁশের গৌরব পুরুদ্ধারে পাটনীতি বাস্তবায়ন জরুরি:মেনন

0
69

পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন

দৈনিকবার্তা-নিউজ : ঢাকা,২৮আগষ্ট : বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, পাট শিল্পকে বাঁচাতে হলে পাট নীতির বাস্তবায়নের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে৷ সোনালী আঁশ পাটের হৃতগৌরব পুনরুদ্ধারে বিগত মহাজোট সরকার ২০০৯ সালের পর বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সে সময়েই যুগোপযোগী পাটনীতি প্রণয়নে একটি কমিটিও গঠন করা হয়৷ কমিটি একটি পাট নীতি প্রণয়ন করলেও তা বাস্তবায়ন করা হয়নি৷

পাট শিল্প ধ্বংসে বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ’র নেপথ্য তাড়িত যে ধারণা সকলের মাঝে বিরাজ করছে তা দূর করতেই প্রণীত পাট নীতির প্রায়োগিক বাস্তবায়ন জরুরী বলেও তিনি মন্তব্য করেছেন৷ বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সম্মেলন কক্ষে পাটকল শ্রমিক-কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ আয়োজিত ‘জাতীয় সম্পদ পাট ও পাট শিল্পের সংকট ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ মন্তব্য করেন৷ অনুষ্ঠানে রাজনীতিবিদ, শ্রমিক নেতৃবৃন্দ এবং গবেষকরা বলেন, পাট শিল্পকে লাভজনক করতে হলে সকল পাটকলের পুরানো যন্ত্রপাতি সরিয়ে সেখানে আধুনিক প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি স্থাপন করতে হবে৷ তারা আধুনিক মেশিনারিজের প্রতিস্থাপন ছাড়াও তারা পাটকলগুলোর ব্যবস্থাপনায় প্রযুক্তি জ্ঞান সম্পন্ন, দক্ষ ও যোগ্য ব্যক্তিদের সম্পৃক্ত করারও পরামর্শ দেন৷

সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক মো. শহীদুল্লাহর সভাপতিত্বে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক এমএম আকাশের সঞ্চালনায় এ আলোচনা সভায় বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পাটির্র (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাসদ’র নেতা রাজিকুজ্জামান রতন, শ্রমিক-কর্মচারী ঐক্য পরিষদের (স্কপ) সাধারণ সম্পাদক ওয়াজেদুল ইসলাম, বাংলাদেশ কনজুমার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান গোলামুর রহমান, পরিবেশ আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুল মতিন, বাংলাদেশ জুট মিল কর্পোরেশনের (বিজেএমসি) সাবেক পরিচালক মো. শামসুল হক প্রমুখ বক্তৃতা করেন৷

বক্তারা বলেন, পাট শিল্পের উন্নয়নের জন্যই নয় পরিবেশের জন্যও পাট চাষের কোন বিকল্প নেই৷ যে জমিতে পাট চাষ করা হয় সে জমির উর্বরতা শক্তিও বৃদ্ধি পায় বলে তারা উল্লেখ করেন৷উল্লেখ্য, এই অনুষ্ঠানে পাট শিল্পের অতীত ও বর্তমান প্রেক্ষাপটসহ এ শিল্পের সংকট উত্তরণে কতিপয় সুপারিশ সম্বলিত একটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়৷এতে বলা হয়, প্রায় ৩ কোটি মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে পাট শিল্পের সাথে জড়িত৷ এ জন্যই এ শিল্পের উন্নয়নে সরকারকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া প্রয়োজন৷