বাবা-মায়ের পাশে শায়িত ফারুকী

0
30

23484_1

দৈনিকবার্তা-পঞ্চগড়,৩০আগষ্ট: নুরুল ইসলাম ফারুকীকে পঞ্চগড়ের নাউতারী নবাবগঞ্জ গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে বাবা-মায়ের পাশে দাফন করা হয়েছে৷শনিবার সকালে বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের নাউতারী মুন্সিপাড়া গোরস্থান মাঠে জানাজা শেষে তাকে দাফন করা হয়৷ফারুকীর বড় ভাই ইসমাইল হোসেন বলেন, তার শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী বাবা-মায়ের কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়েছে৷
বড়শশীর সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জানান, বেলা ১১টায় জানাজা হওয়ার কথা থাকলেও লোকজনের ভিড় সামাল দিতে নির্ধারিত সময়ের আগে সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়৷ এতে প্রায় ২০ হাজার মানুষ জানাজায় অংশ নিতে পারেননি৷দাফন শেষ হওয়ার পরও অনেক ভক্ত-সমর্থক ফারুকীকে শেষবারের মত দেখতে আসেন বলে জানান তিনি৷তিনি বলেন, জানাজা পড়ান ফারুকীর ছেলে আহমদ রেজা ফারুকী৷মোনাজাত পরিচালনা করেন মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম৷
এর আগে ভোর ৪টার দিকে তার মরদেহ এলাকায় পৌঁছয়৷সেখানকার নাউতারী সর্দারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে তার মরদেহ রাখা হয়৷ এসময় তার স্বজন-প্রতিবেশী ও ভক্ত-সমর্থকরা কান্নায় ভেঙে পড়েন৷এ সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম সুজন, ফারুকীর ভাই আব্দুর রউফ দ্রুত হত্যাকারীদের চিহ্নিত করে শাস্তি দাবি করেন৷ বোদা থানার ওসি মজনুর রহমান জানান, যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ওই এলাকায় একটি অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প ও প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে৷
এদিকে,সুপ্রিম কোর্টের জামে মসজিদের খতিব ও একাধিক বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের উপস্থাপক মাওলানা নূরুল ইসলাম ফারুকী হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে এক নারীসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ৷শনিবার সকালে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের মুড়াপাড়া থেকে মাহমুদা খাতুন ও শরিফুল ইসলাম নামের দুজনকে আটক করা হয়৷ পরে তাঁদের গ্রেপ্তার দেখায় ঢাকার শেরেবাংলা নগর থানার পুলিশ৷
মামলা তদন্ত তদারক কর্মকর্তা পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, আটক হওয়া মাহমুদা ও শরিফুলকে ফারুকী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে৷তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ হেফাজতে (রিমান্ড) নেওয়ার আবেদন করা হবে৷বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, হত্যাকাণ্ডের দিন বিকেলে ওই নারী (মাহমুদা) ফারুকীর বাসায় গিয়েছিলেন৷ তাঁর কথাবার্তা অসংলগ্ন৷
গত বুধবার রাত আটটার দিকে আট-নয়জন দুবর্ৃত্ত পূর্ব রাজাবাজারের দোতলার ভাড়া বাসায় ঢুকে স্ত্রী ও স্বজনদের আটকে রেখে ফারুকীকে গলা কেটে হত্যা করে৷ফারুকীর ধর্মীয় মতাদর্শ নিয়ে বিরোধের বিষয়টি সামনে রেখে পুলিশ এখন পর্যন্ত ৩০ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে৷
শুক্রবারও এ হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল করেছে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের সহযোগী সংগঠন ছাত্রসেনা ও বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট৷শনিবারের মধ্যে হত্যাকারী গ্রেপ্তার না হলে রোববার সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালনের ঘোষণা দিয়েছেন ইসলামী ছাত্রসেনার সভাপতি নূরুল ইসলাম চিশতি৷ফারুকী আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের আন্তর্জাতিক সম্পাদক এবং বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের (মতিন) সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ছিলেন৷ একাধিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের মালিকও ছিলেন তিনি ৷