বন্ধ হয়ে গেল হোটেল রূপসী বাংলা

হোটেল রূপসী বাংলা

দৈনিকবার্তা-ঢাকা,১সেপ্টেম্বর :  সংস্কারের জন্য বন্ধ হয়ে গেল রূপসী বাংলা হোটেল৷ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে হোটেলটি বন্ধ করে দেওয়া হয়৷ দেড় বছর সংস্কার কাজ শেষে ২০১৬ সালে নতুন আঙ্গিকে আবার চালু হবে বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন এই হোটেল৷ তখন এর নাম হবে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল৷রূপসী বাংলা হোটেলের বিপণন ও যোগাযোগ ব্যবস্থাপক সাহীদুস সাদিক আনুষ্ঠানিকভাবে রূপসী বাংলা হোটেল বন্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন৷

এর আগে দুপুর পৌনে ১২টার দিকে হোটেলে অবস্থানকারী মালয়েশিয়ার একটি অতিথি দলকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় জানায় হোটেল কর্তৃপক্ষ৷রূপসী বাংলায় অনুষ্ঠিত মালয়েশিয়ান শিক্ষা মেলায় অংশ নিতে এই দলটি মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশে এসেছিল৷ তারা তিন দিন রূপসী বাংলায় অবস্থান করেন৷নতুনরূপে ফেরার প্রস্তুতি নিতে বন্ধ হয়ে গেল হোটেল রূপসী বাংলা’র দরজা৷

হোটেলের মার্কেটিং ও কমিউনিকেশন্স বিভাগের প্রধান শহিদুস সাদিক জানান,সোমবার দুপুরে সব অতিথিকে বিদায় দিয়ে রূপসী বাংলা বন্ধ করে দেয়া হয়৷তিনি বলেন, গতরাতে আমাদের হোটেলে ৪২ জন দেশি-বিদেশি অতিথি ছিলেন৷ দুপুর ১২টার মধ্যে তারা বিদায় নিয়ে চলে যান৷

রূপসী বাংলার নিজস্ব ওয়েবসাইটেও সংস্কারের কথা জানিয়ে একটি নোটিস দিয়ে বাকি সব কনটেন্ট প্রত্যাহার করা হয়েছে৷এখন থেকে রূপসী বাংলা থাকবে কেবল নামফলকে৷ সংস্কার কাজ শেষে সেখানেও লেখা দেখা যাবে ‘ইন্টারকন্টিনেন্টাল৷

সাদিক বলেন, আন্তর্জাতিক হোটেল চেইন ইন্টারকন্টিনেন্টাল এখনো এর ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে৷ তবে তাদের নামে এতোদিন হোটেল পরিচালিত হচ্ছিল না৷সংস্কারের পরও হোটেলের মালিক প্রহিসাবে বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেড থেকে যাবে৷ থাকবেন হোটেলের বর্তমান কর্মীরাও৷ এই সংস্কার কাজে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৩০ থেকে ৪৫০ কোটি টাকা৷

পাঁচ দশকের পুরনো এ হোটেলটির ব্যবস্থাপনায় আবারো ফেরার জন্য ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তি করে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেল গ্রুপ, যে গ্রুপটি ১৯৬৬ থেকে ১৯৮৩ পর্যন্ত এ হোটেলের ব্যবস্থাপনায় ছিল৷ইন্টারকন্টিনেন্টালের পর ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব এসেছিল আন্তর্জাতিক হোটেল সেবাদানকারী আরেক প্রতিষ্ঠান শেরাটন৷ প্রায় ২৮বছর পর ২০১১ সালের এপ্রিলে শেরাটন চলে গেলে বাংলাদেশ সার্ভিসেস লিমিটেড হোটেলটির ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নেয়৷ওই সময় থেকে রূপসী বাংলা নাম নিয়ে নতুন করে চালু হয় বাংলাদেশের নানা গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা এই হোটেল৷

রাজধানী ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত এ হোটেলটি ১৯৮১ সালে সমপ্রসারণ এবং বিভিন্ন সময়ে কিছু কিছু সংস্কার হলেও আন্তর্জাতিক ফাইভ স্টার মানে তোলার জন্য বেশকিছুদিন ধরেই বৈশ্বিক হোটেল পরিচালন কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে তাগাদা আসছিল৷অতিথিদের জন্য রূপসী বাংলায় বর্তমানে ২৭২টি বিভিন্ন ধরনের কক্ষ রয়েছে,যার প্রতিটির গড় আয়তন ২৪ থেকে ২৬ বর্গমিটার৷কর্তৃপক্ষ বলছে,ফাইভ স্টার হোটেলের আন্তর্জাতিক মান রক্ষার জন্য সংস্কারের মাধ্যমে কক্ষগুলো বড় করা হবে৷ফলে কক্ষসংখ্যা কমে হবে ২৩০টি৷এছাড়া আসবাব,সুইমিং পুল, জিমনেশিয়ামের আধুনিকায়নসহ অন্যান্য সেবাও যুক্ত করা হবে৷