পাসের হার বাড়ার পাশাপাশি শিক্ষার মানও বেড়েছে: শিক্ষা মন্ত্রী

Nahid

দৈনিকবার্তা-ঢাকা,৫সেপ্টেম্বর: পরীক্ষায় পাসের হার বাড়ার পাশাপাশি শিক্ষার মানও বেড়েছে বলে দাবি করেছেন শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ৷ শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্ট ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান এবং সদস্য লেখক সম্মাননা অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ কথা বলেন৷

মন্ত্রী বলেন, পরীক্ষার ফল বের হওয়ার পরে কি প্রশ্ন আসবে আমার জানা হয়ে গেছে৷ আমাদের অনেক জ্ঞানী শিক্ষক, যাদের পায়ে ধরে আমি সালাম করি; তারা বলেন, অনেক পাস করছে, কিন্তু গুণ কমে যাচ্ছে৷

কিন্তু আমি বলি গুণ কমে যাচ্ছে- যারা এ কথাটি বলছেন তারা ঠিক করছেন না৷গুণ বেড়েছে, যে গুণ হওয়া উচিত; যে মান হওয়া উচিত্‍; সে মান আমরা অর্জন করতে পারিনি৷ আমরা সে পর্যায়ে পৌঁছুতে পারিনি৷ তবে আগের তুলনায় মান প্রতি বছর বাড়ছে৷

গত উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগের মধ্যে অবস্থান ধর্মঘট ও মানববন্ধনের মতো কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষাবিদ ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল৷ তার সর্বশেষ কলামেও এ বিষয়টি তুলে ধরেছেন, যাতে শিক্ষার মান কমে যাওয়া এবং আশঙ্কাজনক হারে পাসের হার বাড়ার প্রসঙ্গ উঠে এসেছে৷

অবশ্য ফাঁস’ হওয়া প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা দিয়ে অনেকে ভাল ফল করেছেন বলে শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে অভিযোগ উঠলেও তা সরাসরি প্রত্যাখ্যান করে আসছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ৷

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমার অনেক ভুল আছে; আমার অনেক ত্রুটি আছে; শোধরানোর জন্য আমাদেরকে বলেন, আমাদের চাপ দেন, আমাদের বুঝিয়ে দেন, দয়া করে আমাদের ছেলে মেয়েদের বলবেন না মান কমে গেছে৷ তারা হতাশ ও নিরুত্‍সাহিত হবে৷ তারা বলবে- পাস করেছি কিন্তু আগের মতো শিখিনি৷

উচ্চ শিক্ষায় ভর্তি হতে আগ্রহীদের আসনের সমস্যা নেই জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, অনেকে বলে এতো পাস করছে ভর্তি হবে কোথায়, উচ্চ শিক্ষা সব দেশে প্রতিযোগিতামূলক, সেখানে যারা টিকবে সেখানে তারা পড়বে৷

অনুষ্ঠানে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ২৪ জনকে বৃত্তি দেয়া হয়, যাদের সবাই সাংবাদিকদের সন্তান৷ এছাড়া ১৮ ডিআরইউ’র সদস্যকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়৷

দৈনিকবার্তা সম্পাদক গোলাম সারওয়ার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আ আ স ম আরেফিন সিদ্দিক, ঢাকা স্টক এঙ্চেঞ্জ চেয়ারম্যান বিচারপতি সিদ্দিকুর রহমান মিয়া, ডিআরইউ সভাপতি শাহেদ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন৷