নিজের ছেলেকে কোন ভালো স্কুলে ভর্তি করাতে পারছেননা এরশাদ

43

হুসেইন-মুহম্মদ-এরশাদ-300x200

দৈনিকবার্তা-ঢাকা: মৃত্যুর পর নিজের কবরে উপর স্মৃতিসৌধ নির্মাণের জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি অনুরোধ করলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

তিনি বলেছেন, ‘অনেকেই তো মারা গেছেন। তাদের অনেকের বড় বড় কবর হয়েছে। সেখানে মানুষ ফুল দেয়। তোমরা আমার জন্য একটি স্মৃতিসৌধ করিও যাতে মানুষ ফুল দিতে পারে।’

সাবেক স্ত্রী বিদিশার গর্ভজাত সন্তান এরিকের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আজ ছেলেটার ৫ বছর বয়স পেরিয়ে গেছে তবু কোনো ভালো স্কুলে ভর্তি করাতে পারলাম না। দেশের কোনো স্কুল ভর্তিও নিতে চায় না।’

শুক্রবার বিকেলে কাকরাইলে ছোট ভাই সাবেক সংসদ সদস্য মোজাম্মেল হক লালুর মৃত্যুতে জাতীয় পার্টি আয়োজিত দোয়া মাহফিলে এ অছিয়ত করেন এরশাদ।

পরিবারের প্রতি বিভিন্ন সময়ে জুলুম ও অত্যাচার করা হয়েছে দাবি করে বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে এরশাদ বলেন, ‘আমার পরিবারের ওপর অনেক অত্যাচার হয়েছিল। আমার স্ত্রী, দুই ভাই, পুত্র সন্ত্রানসহ সকলকে অত্যাচারিত হতে হয়েছে।’

উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আজ আমাদের শোককে শক্তিতে পরিণত করতে হবে। শোককে শক্তিতে পরিণত করে ক্ষমতায় গিয়ে আমরা অত্যাচারের প্রতিবাদ করব।’

সদ্যপ্রয়াত ছোট ভাইয়ের কথা বলতে আবেগ আপ্লুত হয়ে সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘ইচ্ছা ছিল বাবা মায়ের কবরের পাশে আমার কবর হবে। কিন্তু ছোট ভাই মারা যাওয়ায় তাকে সেখানে কবর দেয়া হয়েছে। এখন আমার কবর কোথায় হবে জানি না।’

দোয়া মাহফিলে সভাপতির বক্তব্য দেন পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- দলের প্রেসিডিয়াম ও সংসদ সদস্য এমএ হান্নান শাহ, আবুল কাশেম, সংসদ সদস্য নুর ই হাসনা লিলি এবং সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা প্রমুখ।