বাণিজ্য মেলায় দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করতে পণ্য ছাড়

 

বাণিজ্য মেলায় দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করতে পণ্য ছাড়

দৈনিকবার্তা-ঢাকা, ৩ জানুয়ারি:  তিনদিন পার হলেও মেলার অধিকাংশ স্টলের নির্মাণ কাজ এখনো শেষ হয়নি৷ শনিবারও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের স্টল নির্মাণ কাজ চলে৷ সেই সঙ্গে মেলায় চলছে অগোছালো অবস্থা৷ স্টল নির্মাণ শেষ করে মেলা গুছিয়ে আনতে আরো কয়েকদিন লেগে যাবে৷এবার বাণিজ্য মেলায় বাংলাদেশের পাশাপাশি ১৪ দেশের ৪৮টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে৷ এর মধ্যে অস্ট্রেলিয়ংা, যুক্তরাজ্য ও জার্মানি এবারই প্রথম অংশ নিয়েছে৷ মেলায় সব মিলিয়ে থাকছে ৫০০টি স্টল৷ এছাড়া কয়েকটি প্যাভিলিয়ন এখনো বুকিং নেয়নি কোনো প্রতিষ্ঠান৷

সরেজমিনেদেখা গেছে, দেশি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বিদেশি অধিকাংশ প্যাভিলিয়ন ও স্টলের কাজ এখনো শেষ হয়নি৷শেষ না হলেও একদিকে তারা নিজেদের পণ্য সাজিয়ে রেখেছে৷ অন্যদিকে অসমাপ্ত কাজ শেষ করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে৷ বিদেশি পণ্য কিনতে আসা দর্শনার্থীদের কেনাকাটায় ছেদ পড়ছে৷ কয়েকটি দেশি প্রতিষ্ঠান মেলার শুরুতে দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করতে পণ্যে ছাড় দিয়েছে৷

মেলায় আগত মিরপুরের বাসিন্দা বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তা নাহিদ আহসান জানান, ‘ শুক্রবার ছুটির দিন থাকায় ছেলে মেয়েদের নিয়ে মেলায় চলে এসেছি৷ তবে এখনো বিদেশি পণ্যের স্টলগুলোর কাজ শেষ না হওয়ায় পণ্য কিনতে পারছি না৷’

মেলায় অন্যান্য দেশের মধ্যে পাকিস্তানের প্যাভিলিয়নটি অনেকটা এলাকা জুড়ে করা হয়েছে৷ তাদের কাজ এখনো ৮০ শতাংশ বাকি৷ আলাপকালে প্যাভিলিয়নের সেলস ম্যানেজার ইকরাম হাফিজ জানান, স্টল বরাদ্দ পেতে দেরি হয়েছে৷ এ কারণে আমরা দেরি করে কাজ শুরু করেছি৷এদিকে বড়দের পাশাপাশি ছোটদের বিনোদনের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে সুন্দরবন ইকোপার্ক৷ শিশুপার্ক নির্মাণ করা হয়েছে দুটি৷ এসব পার্কে শিশুদের উপস্থিতি ছিল খুবই কম৷

মা বাবার সঙ্গে পুরান ঢাকা থেকে এসেছে সায়হাম৷ বাবা আকরাম হোসেন জানান,’সায়হাম প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় ভালো ফল করেছে৷ তাই বাবার কাছে বায়না ধরেছে বাণিজ্য মেলায় আসার৷ উদ্বোধনের পর ভিড় কম থাকে বলে তাকে নিয়ে বাবা-মা বাণিজ্য মেলায় এসেছেন৷সায়হাম জানান, বাণিজ্য মেলায় শিশু পার্ক ও সুন্দরবন ইকো পার্ক তার কাছে অনেক ভালো লেগেছে৷ সে বেশ আনন্দ উপভোগ করেছে৷

মেলায় প্রবেশ করতে শনিবারও গণমাধ্যম কর্মীদের বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছে৷ একাধিক গণমাধ্যম কর্মীকে এক সঙ্গে মেলায় প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না৷ শুধু গণমাধ্যম নয়, প্যাভিলিয়নে কমর্রতদের মেলায় ঢুকতে বেগ পেতে হচ্ছে৷

এ সম্পর্কে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর উপ-পরিচালক (অর্থ) রেজাউল করিম বাংলামেইলকে বলেন, গণমাধ্যম কর্মীদের পাসের বিষয়ে ভাইস চেয়ারম্যান বলতে পারবেন৷ আপনারা তার সঙ্গে যোগাযোগন করেন৷মেলা সচিবালয়ে ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করতে চাইলে হেলাল নামের একজন কর্মকর্তা জানান, স্যারকে আজ পাওয়া যাবে না৷

শহরে ব্যস্ত সবাই! ব্যস্ততার কঠিন টানাপোড়েনে সব বাধা পেরিয়ে মন চায় একটুখানি স্বস্তি৷ কমবর্্যস্ত জীবনে একটু স্বস্তি দিতে প্রতিবছরের মতো এবারো শুরু হয়েছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা৷ছুটির দিনে সময় ও সুযোগকে কাজে লাগিয়ে মেলা শুরুর দ্বিতীয় দিন পরিবার ও প্রিয় মানুষকে নিয়ে চলে এসেছেন মেলায়৷ ক্রেতা-দশর্নার্থীদের পদচারণায় জমে উঠছে বাণিজ্য মেলা৷

মেলা শুরুর প্রথম ছুটিরদিন শুক্রবার বিকেলে সব বয়সী ক্রেতা-দর্শনার্থীরই দেখা মেলেছে মেলায়৷ কেই এসেছেন ঘুরতে কেউ-বা আবার কেনাকাটা করতে৷ সব মিলিয়ে বিক্রেতাদের মুখেও দেখা গেল কিছুটা সন্তুষ্টির ছাপ৷সরেজমিনে দেখা যায়, মেলা প্রাঙ্গণের দিকে দর্শনার্থীদের ভিড় ক্রমশই বেড়ে যাচ্ছে৷ গাড়ি পাকিং এলাকাও পরিপূর্ণ হয়ে গেছে৷বিকেলে টিকেট কাউন্টারের সামনে দীর্ঘ লাইন দেখা যায়৷ তবে ভিড় বেশি থাকায় টিকিট সংগ্রহে বেশ ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে নারীদের৷