সারাদেশের অবরোধ: সংর্ঘষ ভাংচুর ও অগি্নসংযোগ

_66176474_66176473

দৈনিকবার্তা-ঢাকা, ৬ জানুয়ারি:  সারাদেশে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ পালন করছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দল৷ অবরোধে দূরপাল্লার যান চলাচল বন্ধ থাকলেও কোথাও েেকাথাও আন্তঃজেলা বাস চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে৷ নির্দিষ্ট সময় ছেড়ে গেছে ট্রেনও৷ অবরোধের সমর্থনে খণ্ড খণ্ড মিছিল বের করা হয়৷ অবরোধে বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও নির্ধারিত সময়েই গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে ট্রেন৷বরিশালে অভ্যন্তরীণ রুটে যান চলাচল করলেও দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে৷ স্বাভাবিক রয়েছে অভ্যন্তরীণ রুটের লঞ্চ চলাচল৷৫ জানুয়ারি দশম সংসদ নির্বাচনের বর্ষপূর্তিতে পূর্ব ঘোষিত বিএনপি’র কর্মসূচি পালনে ব্যর্থ হয়ে সোমবার বিকালে সারাদেশে লাগাতার অবরোধের ডাক দেয় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া৷

এদিকে, মঙ্গলবার সকালে সিলেটে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ এবং বেশকিছু গাড়ি ভাঙচুর করেছে অবরোধ সমর্থকরা৷ অবরোধে নাশকতার আশঙ্কায় সারাদেশ থেকে প্রায় দুইশো জনকে আটক করেছে পুলিশ৷বিএনপির ডাকা অনির্দিষ্টকালের অবরোধের প্রথম দিন সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের তেলিরাই এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করে ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা৷ এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোঁড়ে এবং বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে তারা৷ পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করলে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় তারা৷

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের ঘোষিত কর্মসূচির প্রথম দিনে রাজধানীতে ৬টি গাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে৷ এদিকে রাজধানীর কদমতলী ফতুল্লা-পোসত্মগোলা সড়কে পেট্রোল বোমা হামলায় এক আনসার সদস্য আহত হয়েছেন৷ অবরোধ চলাকালে রাজধানীসহ সারাদেশে যানবাহন চলাচল অন্যান্য দিনের মতো স্বাভাবিক ছিলো৷ অবরোধে কর্মসূচি জনজীবনে তেমন প্রভাব পড়েনি৷ এতে জনগণেরও কোন সাড়া মিলেনি৷ ঢাকাসহ সারাদেশে অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কার্যক্রম স্বাভাবিক ছিল৷মঙ্গলবার সকাল থেকে রাজধানীতে যানবাহন চলাচল অন্যান্য দিনের মতোই স্বাভাবিক ছিলো৷ পুলিশ জানায়, অবরোধে নাশকতা ঠেকাতে রাজধানীতে আজ কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়৷ সকাল থেকেই বিভিন্ন সড়কের মোড়ে মোড়ে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন রয়েছে৷ এদিকে অবরোধকারীদের নাশকতা মোকাবেলা করতে আইন-শৃংখলা রৰাকারী বাহিনীকে সহায়তার জন্য রাজধানীসহ দেশের বড় শহরগুলোতে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে৷

সংর্ঘষ ভাংচুর ও অগি্নসংযোগঅবরোধে লঞ্চ ও ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক ছিল৷ রাজধানী থেকে দূরপালস্নার বাসও চলাচল করতে দেখা গেছে৷ রাজধানীর সায়দাবাদ বাস টার্মিনাল ও সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল ঘুরে দেখা গেছে, আজ বাস-লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক ছিল৷ তবে যাত্রীর সংখ্যা অন্যান্য দিনের তুলনায় কম ছিল৷ সকালে অবরোধকারীরা একটি স্থানীয় যানবাহনে বোমা হামলা চালালে আনসার সদস্য মো. মনোয়ার হোসেন (৪৫) গুরম্নতর দগ্ধ হন৷ বিকেলে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে শিখড় পরিবহনের একটি বাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা৷ দমকল বাহিনীর পরিদর্শক নিলুফা ইয়াসমিন জানান, উচছৃংখল জনতা বিকেল পৌনে ৪টায় শাহবাগ মোড়ে শিখড় পরিবহণের ওই বাসে আগুন দেয়৷ খবর পেয়ে দমকল বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পেঁৗছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়৷ মঙ্গলবার অবরোধ সমর্থনকারীরা বিকেল ৩টা ১৮ মিনিটে রাজধানীর মিরপুর ১০ নম্বর এলাকায় বিকল্প সিটি সার্ভিস পরিবহনের একটি বাসে অগি্নসংযোগ করে৷ আগুনে বাসটির আংশিক পুড়ে যায়৷ দমকল বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভায় বলে নিলুফা ইয়াসমিন জানান৷ এদিকে বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটে রাজধানী গুলিসত্মান মাওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামের পাশে একটি যানবাহনে অবরোধকারীরা অগি্নসংযোগ করে৷ খবর পেয়ে দমকল বাহিনীর তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে৷ এর আগে দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে পুরান ঢাকার তাঁতীবাজার এলাকায় দুর্বৃত্তরা সাভার পরিবহনের একটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়৷ ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্মকর্তা নাজমা আক্তার বলেন, তাঁতীবাজারে বাসে আগুন দেয়ার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে৷

দুপুর ২টা ৫ মিনিটে মতিঝিলে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ভবনের সামনে বিআরটিসির একটি বাসে আগুন দেয়া হয় বলে ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে৷বাসের সঙ্গে একটি প্রাইভেট কারেও আগুন দেয়া হয়েছে৷ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, চার থেকে পাঁচ জন যুবক হঠাত্‍ গাড়ি দুটোতে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায় ৷রাজধানীর পুরান ঢাকার জনসন রোডে ৬-৭টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে দুর্বৃত্তরা৷ তবে এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি৷মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে৷প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জনসন রোডের ঢাকা চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ভবনের পাশে এসব ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়৷ খবর পেয়ে ৩০-৪০ জন পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলেও কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি৷বারকুন বাড়ির লেনের ভেতর থেকে এসব ককটেল ছোড়া হয়েছে বলেও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান৷কুমিল্লার আলেখার চরের বিশ্বরোড এলাকায় ২০টি গাড়ি ভাঙচুর করেছে অবরোধকারীরা৷ পরে পুলিশ ও বিজিবি তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়৷ লক্ষ্মীপুরের বিভিন্ন সড়কে গাছের গুঁড়ি ফেলে ও টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে রাখে নেতা-কর্মীরা৷খুলনা:খুলনার পিটিআই মোড় থেকে মিছিল বের করে বিএনপি নেতা-কর্মীরা৷ নগরীতে হালকা যান চলাচল করলেও আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে৷ তবে স্বাভাবিক রয়েছে ট্রেন চলাচল৷

নোয়াখালী: নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার সেবারহাট বাজারে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছেপরে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষ হয়৷ এ সময় কয়েক রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছোড়ে পুলিশ৷সংঘর্ষে ছাত্রলীগের ৩ কর্মী গুলিবিদ্ধ ও পুলিশসহ উভয়দলের অন্তত ৩০ জন আহত হয়৷ মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে ঘন্টাব্যাপী এ সংঘর্ষ চলে৷প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, উপজেলার সেবারহাট বাজারে স্থানীয় ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বিএনপি-জামায়াতসহ ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা অর্তকিতে হামলা চালায়৷খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা কয়েক রাউন্ড শর্টগানের ফাঁকা গুলি নিক্ষেপ করে৷ এতে জেলা ছাত্রলীগের সদস্য সোহেলসহ ছাত্রলীগের ৩ কর্মী কর্মী গুলিবিদ্ধ হয়৷ এছাড়া সেনবাগ থানার ৫ পুলিশ সদস্যসহ মোট ৩০ জন আহত হয়৷ আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয়ভাবে চিকিত্‍সা দেওয়া হচ্ছে৷

এদিকে, সংঘর্ষের সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে একটি টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি মনির হোসেন বাবুর মোটরসাইকেলে ভাঙচুর করে ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা৷এ বিষয়ে জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) ইলিয়াস শরীফ ও সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) সঙ্গে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি৷৫ জানুয়ারির কর্মসূচি পালনে বাধা দেয়ার প্রতিবাদে মঙ্গলবার সারাদেশে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ পালন করছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দল

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুুলিশ-২০ দলীয় জোটের সাথে সংঘর্ষ হয়৷ ওই এক বিএনপি কর্মী আইনশৃংখলা বাহিনীর গুলিতে মারা যায়৷ তার প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার ২০ দলীয় জোটের ডাকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে সকাল-সন্ধ্যার হরতাল চলছে৷ অগি্ন সংযোগ, লাঠি মিছিল ও বিচ্ছিন্ন পিকেটিংয়ের মধ্যদিয়ে চাঁপাই-রহনপুর মহাসড়ককের পলশা এলাকায় শিবিরকমর্ীরা রাসত্মায় বসে রাসত্মা অবরোধ করে হরতাল পালন করে৷ সকাল ৮টার দিকে হরতালের সমর্থনে পলশা মিশন বাজার থেকে একটি লাঠি মিছিল বের করে রসুনপুর এলাকা সড়কপ্রদৰিণ শেষে ওই স্থানে টায়ারে জ্বালিয়ে রাসত্মায় পিকেটিং করে তারা৷এদিকে আইন শৃংখলা স্বাভাবিক রাখতে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে৷ অতিরিক্ত পুলিশ, বিজিবি ও র্যাবসহ শহরজুড়ে টহল দিচ্ছে ও আইনশৃংখলা বাহিনীর ভ্রাম্যমান একটি দল৷ তবে হরতালের কারনে শহরে অধিকাংশ দোকান পাট, মার্কেট ও যানচলাচল বন্ধ রয়েছে৷ হরতালের কারণের জনসাধারণের জনজীবন বিপযসর্ত্ম হয়ে পড়েছে৷ হরতালের ফলে জনসাধারণরা ঘরের বাইরে বের হতে পারে না৷ তবে হরতালে কোন ভারি যানবহন চলাচল ও দূর্পালস্না বাস ছেড়ে যায়নি৷ অন্যদিকে রেল চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে৷ মাদারীপুরে অবরোধে দূরপালস্নার যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক

মাদারীপুর: সারাদেশে চলছে ২০ দলীয় জোটের ডাকা অনির্দিষ্টকালের অবরোধ কর্মসূচী৷ তবে মাদারীপুরে এর কোন প্রভাব পড়েনি৷ মঙ্গলবার সকাল থেকেই শহরের জীবন যাত্রা ছিল প্রায় স্বাভাবিক৷ বেলা বাড়ার সাথে সাথে স্কুল, কলেজ, ব্যাংক, বীমাকারী প্রতিষ্ঠান ও শহরের বিভিন্নস্থানে মানুষের ঢল দেখা গেছে৷ জেলার পুরাতন বাস টার্মিনাল থেকে বিভিন্ন সময়ে নিজ গনত্মব্যে বাস ছেড়ে যেতে দেখা গেছে৷ এছাড়া ঢাকার উদ্দেশ্যে সঠিক সময়ে পরিবহন কোম্পানীর বাস ছেড়ে যায়৷ দুপুর পর্যনত্ম জেলার কোথায়ও অপ্রতিকর কোন ঘটনার খবর পাওয়া যায় নি৷মাদারীপুরের সার্বিক পরিবহনের কাউন্টার ম্যানেজার জাহিদুল হক জনি জানান, ‘হরতাল কিংবা অবরোধের মত কর্মসূচীতে সার্বিক পরিবহন চলাচলে কোন প্রভাব পড়ে না৷ প্রতিদিনের মত সকাল থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যথা সময়ে পরিবহন বাস গুলো ছেড়ে যায়৷’ নাটোরে বিএনপির ডাকা হরতাল শান্তিপূর্নভাবে পালিত হচ্ছে

চট্টগ্রাম: বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের ডাকা দিনব্যাপী হরতাল কর্মসূচি সত্ত্বেও আজ বন্দরনগরী ও জেলায় জনজীবন ও স্বাভাবিক ছিল৷পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আইন প্রয়োগকারী সংস’ার সদস্যরা হরতালের সময় বন্দরনগরী ও জেলায় কঠোর নিরাপত্তায় নজরদারি গড়ে তুলেছে৷ সোমবার একটি সমাবেশ থেকে নেতা-কর্মীদের গ্রেফতারের প্রতিবাদে বিএনপি ও তাদের জোট হরতাল আহ্বান করেছিল৷মহানগর ও জেলা পুলিশ কন্ট্রোল রম্নম সূত্র জানায়, হরতালের সময় বন্দরনগরী ও জেলার কোথাও বিশৃঙ্খল ঘটনার কোন খবর পাওয়া যায়নি৷পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিএনপি-জামায়াত কর্মীদের কোনো পিকেটিং এবং মিছিল করতে দেখা যায়নি৷হরতালের সময় নগরীর রাসত্মায় সিএনজিসহ সব ধরণের মোটর যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে৷ পুলিশ প্রহরায় অল্প সংখ্যক দূরপালস্নার বাস ও ভারী যানবাহন চলাচল করেছে৷শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও সরকারি ও বেসরকারি অফিসে উপস্থিতি স্বাভাবিক ছিল৷সম্ভাব্য ভাংচুর, অগি্নসংযোগ ও হামলার ভয়ে ব্যক্তিগত যানবাহনের উপস’িতি কম ছিল, তবে বন্দরনগরী রাসত্মায় আধিপত্য ছিল রিকশা এবং ব্যাটারি চালিত তিন চাকার যানবাহনের৷বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগসহ তাদের সহযোগি সংগঠনগুলোর মিছিলের আধিপত্য ছিল মহানগরীর সড়ক জুড়ে৷এছাড়া হরতালে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য, র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব) ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়ন করা হয়েছে৷

সারাদেশের অবরোধ

চট্টগ্রাম রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল (সিইপিজেড) কর্তৃপক্ষ সূত্র জানায়, সিইপিজেড এলাকায় কার্যক্রম পুরোদমে চলেছে এবং শ্রমিকদের উপস’িতি প্রায় স্বাভাবিক ছিল৷বাংলাদেশ রেলওয়ের চট্টগ্রাম স্টেশন ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ বাসসকে জানান, মহানগরী থেকে সব নির্ধারিত ট্রেন সময়সূচি অনুযায়ী ছেড়ে গেছে এবং এসে পেঁৗছেছে৷বিমান বন্দর সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম শাহ আমানত আনত্মর্জাতিক বিমানবন্দরে সব দেশীয় এবং আনত্মর্জাতিক ফ্লাইট সময়সূচি অনুযায়ী ছেড়েছে এবং অবতরণ করেছে৷পোর্ট সূত্র জানায়, বন্দরে মালামাল উঠা নামার কাজ পুরোদমে চলেছে৷

নাটোর : দলীয় দুই কমর্ী নিহতের প্রতিবাদে নাটোরে বিএনপির ডাকা সকাল সন্ধ্যা হরতাল শান্তিপূর্নভাবে পালিত হচ্ছে৷ হরতালে বন্ধ রয়েছে অভ্যন্তরীন ও দুরপাল্লার বাস চলাচল৷ দোকানপাট বন্ধ আছে৷ এ পর্যন্ত জেলার কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার সংবাদ পাওয়া যায়নি৷ নাটোরের পুলিশ সুপার বাসুদেব বনিক জানান, শহরের গুরুত্বপূর্ন মোড়গুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে৷ নাশকতা ঘটাতে পারে এই আশংকায় জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ৫বিএনপি কর্মীকে আটক করা হয়েছে৷ শহরের তেবাড়িয়া এলাকায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপি কমর্ীদের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে রাকিব ও রায়হান নানে দুজন মারা যায়৷ বিএনপির সাধারন সম্পাদক আমিনুল হক রাকিব ও রায়হানকে নিজেদের কর্মী বলে দাবী করে৷ অপরদিকে, স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল রাকিবকে আওয়ামীলীগ কর্মী বলে দাবী করে৷

মংলা:মংলার জয়মনি বাজার এলাকায় বিএনপির কাযর্ালয় ভাংচুর করেছে দুর্বৃত্তরা৷ এ সময় দুর্বৃত্তদের হামলায় ৩ জন আহত হয়েছে৷ সোমবার রাতে ১০/১৫ জনের একদল দুর্বৃত্ত লাঠিসোঠা নিয়ে ওই অফিসটিতে হামলা চালায়৷ অফিসটিতে তখন দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা টেলিভিশন দেখছিল৷ দুর্বৃত্তরা অফিসে ঢুকে প্রথমে টিভিসহ অন্যান্য আসবাবপত্র ভাংচুর করে৷ পরে সেখানে উপস্থিত নেতা-কমর্ীদের মারকর করে জখম করে৷ এতে চিলা ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ফারম্নক হাওলাদার, যুবদল নেতা জাকির হাওলাদার ও হাফিজুর রহমান আহত হন৷ময়মনসিংহে পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনায় সাবেক মন্ত্রীসহ বিএনপি ও জামায়াতের ৫০০ নেতাকর্মীর নামে মামলাময়মনসিংহঃ পুলিশের সাথে সংঘর্ষ এবং ককটেল বিস্ফোরণ ও পেট্রলবোমা হামলার ঘটনায় পৃথক দুইটি মামলা দায়ের করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ৷ এসব মামলায় বিএনপির শিল্পবিষয়ক সম্পাদক ও জেলা সভাপতি সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ, জামায়াতে ইসলামীর জেলা সহকারী সেক্রেটারি মাওলানা মোজাম্মেল হক আকন্দ, যুবদলের জেলা সভাপতি শামীম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার মাসুদুল হক, ছাত্রদলের জেলা সভাপতি রোকনুজ্জামান সরকার রোকন, স্বেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি শাহিদুল আলম খসরুসহ বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরসহ অঙ্গসংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ৫০০জনকে আসামি করা হয়েছে৷

সোমবার সন্ধ্যায় জেলাস্কুল মোড়ে পেট্রলবোমা হামলায় ৩ জন আহত হওয়ার ঘটনায় বিএনপির শিল্পবিষয়ক সম্পাদক ও জেলা সভাপতি সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দসহ অঙ্গসংগঠনের সভাপতি/সাধারন সম্পাদকসহ ২৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ১৫০ জনকে আসামি করে বিস্ফোরক দ্রব্য, সরকারি কাজে বাধা, পেট্রোলবোমা হামলা ও পুলিশ এ্যাসল্টের মামলা করা হয়েছে৷ সোমবার ২০ দলের সমাবেশ শেষে গঙ্গাদাস গুহ রোডে পুলিশের সাথে সংঘর্ষ, ককটেল বিস্ফোরণ, পুলিশ এ্যাসল্ট ও সরকারি কাজে বাধাদানের অভিযোগে বিএনপির শিল্পবিষয়ক সম্পাদক ও জেলা সভাপতি সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ, জামায়াতে ইসলামীর জেলা সহকারী সেক্রেটারি মাওলানা মোজাম্মেল হক আকন্দসহ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক এবং ছাত্রশিবির সভাপতিসহ ৩১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৪০০/৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে৷উল্লেখ, সোমবার সন্ধ্যায় কালো পতাকা মিছিল শেষে পুলিশের সাথে ২০ দলের নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও সংঘষের্র পর জেলাস্কুল মোড়ের কাছে পেট্রলবোমা হামলা ইজিবাইক চালক সিদ্দিকুর রহমান দগ্ধ হলে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়৷ এছাড়া গঙ্গাদাস গুহ রোডের বাতিরকল এলাকায় পুলিশের সাথে ২০ দলের নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও সংঘষের্র সময় ককটেল বিস্ফোরণ ও পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ ঘটনায় কয়েকজন আহত হন৷ ময়মনসিংহে বিএনপি কর্মীদের ছুঁড়া পেট্রোল বোমায় সিদ্দিক (৩৫) নামের এক অটোরিকশা চালক গুরুতর আহত হয়েছেন৷সোমবার সন্ধ্যায় বিএনপি নেতাকর্মীরা মিছিল বের করলে পুলিশ-বিএনপি কর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে৷

বিএনপি নেতাকর্মীরা শহরের জিলা স্কুল মোড়ে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ও একটি পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মারে৷ এ বোমায় অটোরিকশা চালক সিদ্দিক অগি্নদগ্ধ হন৷ পরে তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷ এ সময় পুলিশের ছুঁড়া টিয়ারশেলে কমপক্ষে বিএনপির ১০ নেতাকর্মী আহত হন বলে বিএনপি সূত্রে জানা গেছে৷ সূত্র জানায়, গণতন্ত্র হত্যা দিবস কর্মসূচিকে ঘিরে সোমবার দুপুর থেকেই শহরের হরিকিশোর রায় রোডের ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে গণজমায়েত করে ২০ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীরা৷ শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে এ সমাবেশে যোগ দিতে আসে কালো পতাকা মিছিল৷ যোগাযোগ করা হলে কোতোয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফজলুল করিম জানান, এ ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে ৩ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে৷ রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) ঃ সারা দেশে অনিদিষ্টকাল অবরোধের প্রথমদিন মঙ্গলবার কুড়িগ্রামের রাজারহাটে শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয়েছে৷ সকাল থেকে ছাত্রদলের নেতাকমর্ীরা রাজারহাট বাজারের বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান নেয়৷ বেশ কিছু ইজিবাইক রাস্তায় থাকলেও তাদের সরিয়ে দেয়া হয়৷ বাস মিনিবিাস সহ ভারী যানবাহন চলচলা বন্ধ ছিল৷ ফলে জন সাধারনের ভোগান্তির সৃষ্টি হয়৷ দুরের যাত্রীরা পায়ে কিংবা রিক্্রা-ভ্যান করে তাদের গন্তব্যস্থলে যাতায়াত করতে দেখা যায়৷ অবরোধে উপজেলার বিভিন্ন অফিসগুলোতে কাজকর্ম স্বাভাবিক ছিল৷ দোকান-পাট নিদিষ্ট সময়ে খোলা হলেও তেমন ক্রেতা লক্ষ্য করা যায়নি৷ ব্যাংক-বীমা ও এনজিও অফিসের লেন-দেন স্বাভাবিক ছিল বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন৷ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লেখা পড়ায় বিঘ্ন সৃষ্টি হয়নি৷ রাজারহাট থানার পুলিশী টহল জোরদার ছিল৷ কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি বলে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রশিদ জানান৷ সবমিলে প্রথমদিনের অবরোধ ছিল ঢিলেঢালা৷

সাতক্ষীরা : দেশ ব্যাপী বিএনপির ডাকা অনির্দিষ্ট কালের অবরোধের প্রথম দিনে মঙ্গলবার সাতৰীরায় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই অবরোধ পালিত হচ্ছে৷ অবরোধের কারনে দূরপালস্নার পরিবহন বন্ধ রয়েছে৷ দূরপালস্নার পরিবহন বন্ধ থাকায় ঢাকাগামী যাত্রীরা পড়েছেন বিপাকে৷ তবে, আভ্যনত্মরীন রম্নটে সীমিত সংখ্যক বাস চলাচল করছে৷ অন্যান্য যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে৷ অবরোধের পৰে জেলার কোথাও কোন এখনও পর্যনত্ম মিছিল মিটিং ও সমাবেশের খবর পাওয়া যায়নি৷  জেলার কোথাও বিএনপির কোন নেতাকর্মীকে অবরোধের সমর্থনে পিকেটিং করতে দেখা যায়নি৷ এদিকে, নাশকতার আশংকায় পুলিশের বিশেষ অভিযানে সাতৰীরা শহরের ৯ নং ওয়ার্ড জামায়াতের সেক্রেটারী এড. আবু বকর সিদ্দিকসহ জামায়াত, বিএনপি ও অন্যান্যসহ মোট ৫০ জনকে আটক করেছে৷ এর মধ্যে জামায়াত-বিএনপির ১৮ জন নেতা-কমর্ী রয়েছে৷ সোমবার রাত ভোর অভিযান চালিয়ে সাতৰীরা জেলার বিভিন্ন সা্থন থেকে পুলিশ তাদেরকে আটক করে৷ সাতৰীরা জেলা পুলিশের তথ্য কর্মকতর্া উপপরিদর্শক (এসআই) কামাল বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আটককৃতদের বিরম্নদ্ধে নাশকতাসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলা রয়েছে৷

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর এলাকায় সকাল সোয়া ৭টার দিকে অবরোধ সমর্থনে মিছিল বের করার চেষ্টাকালে বিএনপির নেতাকমর্ীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে আহত হয়েছে কমপৰে ৫ জন৷ এসময় পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতাকমর্ীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে৷ পুলিশ ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়৷ প্রত্যক্ষদশর্ী ও পুলিশ জানায়, সকাল সোয়া ৭টার দিকে খানপুর হাসপাতাল রোড এলাকায় অবরোধ সমর্থনে জেলা বিএনপির সভাপতি এডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের নেতৃত্বে মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়৷  এসময় পুলিশ বিএনপির নেতাকমর্ীদের কাছ থেকে ব্যানার ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ইটপাটকেল নিৰেপের ঘটনা ঘটে৷ এসময় সংঘর্ষে কমপৰে ৫ জন আহত হয়েছে৷ পুলিশ ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়৷ পুলিশের গুলিতে দুইজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে বিএনপির নেতাকমর্ীরা দাবি করেছে৷ নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতর্া(ওসি) মঞ্জুর কাদের জানান, পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে৷

যশোর : যশোরে বিরোধী নেতাকমর্ীদের নামে মিথ্যা মামলা দেওয়ার প্রতিযোগিতা চলছে বলে মনত্মব্য করেছেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু৷ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টায় স্থানীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘রাজনীতিকদের নামে ডাকাতিপ্রচেষ্টার মামলা, বোমা দিয়ে আদালতে চালান দেওয়া এখন নৈমিত্তিক ব্যাপারে পরিণত হয়েছে৷ রাজনীতিবিদদের এমন অসম্মান ইতিপূর্বে কখনও করা হয়নি৷’  স্থানীয় সংসদ সদস্য রণজিত রায়ের নির্দেশে পুলিশ বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও বাঘারপাড়া উপজেলা সভাপতি প্রকৌশলী টিএস আইয়ুবকে গ্রেফতার করেছে বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘পুলিশ এখন রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠান নয়, দলীয় আনুগত্যের প্রতীকে পরিণত হয়েছে৷ তাই তারা ঢাকায় অবস্থানকালে টিএস আইয়ুবের নামে যশোরে মামলা দেয়৷ সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী একজন নেতার কাছ থেকে বোমা ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধারের মতো হাস্যকর মামলা সাজানো হয়েছে৷’ সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে লৰ্য করে পিপার স্প্রে নিৰেপ করার তীব্র সমালোচনা করেন সাবু৷ জাতীয় প্রেসক্লাবে অবরম্নদ্ধ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরম্নল ইসলাম আলমগীরের নিরাপদে বাসায় যাওয়ার ব্যবস্থা করতে পুলিশের প্রতি দাবি জানান তিনি৷ একইসঙ্গে তিনি একুশে টিভির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুস সালামের মুক্তি ও টেলিভিশন চ্যানেলটির সম্প্রচারে সব প্রতিবন্ধকতা অপসারণের দাবি জানান৷  সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি রফিকুর রহমান তোতন, অ্যাডভোকেট জাফর সাদিক, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন, যুগ্ম-সম্পাদক মিজানুর রহমান খান, নগর সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র মারম্নফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মুনির আহমেদ সিদ্দিকী বাচ্চু, সদর উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী আজম, বাঘারপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান, যশোর পৌরসভার কাউন্সিলর হাজী আনিসুর রহমান মুকুল, জেলা যুবদল সভাপতি এহসানুল হক মুন্না প্রমুখ৷বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধ কর্মসূচি যশোরে চলছে৷ অবরোধ চলাকালে কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি৷ অবরোধে রাসত্মায় বিএনপি ও তার শরীক দলের নেতাকমর্ীদের দেখা না গেলেও আতঙ্কের কারণে যশোর থেকে ১৮ রম্নটের পরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে৷ তবে শহরে রিকশা-অটোরিকশাসহ ছোট যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে৷ এছাড়া ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে৷ এদিকে, যশোরে ২০ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধ শানত্মিপূর্নভাবে চলছে৷ অবরোধের সমর্থনে সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে শহরের চাঁচড়া মোড়ে যশোর-বেনাপোল সড়ক অবরোধ করে মিছিল করে জোটের নেতাকর্মীরা৷ মিছিল থেকে সরকারের বিরম্নদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান৷ সহিংসতা এড়াতে পুলিশ টহল জোরদার রয়েছে৷ এদিকে পুলিশ জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিএনপি জামায়াতের ৬ নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন মামলায় ৫৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ৷

পাবনা প্রতিনিধি ঃ পাবনা জেলা, উপজেলা বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদলের ২ শতাধিক নেতা-কর্মির নামে মামলা দায়ের হয়েছে৷ সোমবার রাতে সদর থানার এস আই নাজমুল হোসেন বাদী হয়ে ৫৫ জনের নাম উলেস্নখসহ ২ শতাধিক নেতা-কর্মিকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন৷ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আহসানুল হক জানান, ৫ জানুয়ারী শহরের বিৰোভ মিছিলের নামে পুলিশের ওপর হামলা, সরকারী কাজে বাধা, ককটেল বিস্ফোরণসহ বিশৃংখলা করে জনমনে ত্রাস সৃষ্টি করার অভিযোগ এই মামলা দায়ের হয়েছে৷ পুলিশের বিশ্বস্থ একটি সুত্র জানায়, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আব্দুস সামাদ খান মন্টু, জেলা বিএনপির ত্রাণ সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর শহীদুল ইসলাম লালু, সদর থানা বিএনপির সভাপতি কেএম মুসা, সাধারন সম্পাদক বুলাল হোসেন, পৌর বিএনপির সভাপতি তৌফিক হাবীব, জেলা বিএনপি নেতা বাবুল বিশ্বাস, টুটুল বিশ্বাস, রানা বিশ্বাস, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি হিমেল রানা, সাধারন সম্পাদক তসলিম হাসান সুইট, ড্যাবের সাধারন সম্পাদক আহমেদ মোসত্মফা নোমান, লগ বাবুসহ ৫৫ জনের নাম উলেস্নখ করা হয়েছে৷ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আহসানুল হক জানান, সৌকত, বাপ্পি, বেলাল, এলেমসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ ওসি জানান, অন্যদের গ্রেফতারে পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে৷ বগুড়ায় পিটিআই মোড়ে অটো ভাংচুর\\ককটেল বিষ্ফোরণ\\ মোটর সাইকেলে আগুন\\রেলপথ ও নৌপথ ছিল স্বাভাবিকবগুড়া: বগুড়ার রাজপথে অবরোধকারীদের দেখা না গেলে সড়ক মহাসড়কে গাড়ী চলাচল করছে না৷ তবে রেলপথ ও নৌপথে চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে৷ তবে, রাজপথে পুলিশ প্রহরায় বিআরটিসি সহ বেশ কিছু গাড়ী চলাচল করছে৷ রেলপথ ও নৌপথে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে ঝুঁকির মধ্যে চলাচল করছে৷

বগুড়া : এদিকে বগুড়া শহরে রিঙ্া, ভ্যান, ব্যাটারি চালিত অটো এবং সিএনজি চালিত অটোরিঙ্া চলাচল করছে৷ সকালে শহরের পিটিআই মোড়ে কয়েকজন পিকেটার ২/৩টি অটো ভাংচুর করে৷ এছাড়া ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধির মোটর সাইকেল আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়৷ এখানে ২/৩টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়৷ এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছলে তারা পালিয়ে যায়৷বগুড়ায় মহাসড়কে দূরপালস্নার কোন যানবাহন চলাচল করছে না৷ এমনকি আনত্মজেলা রম্নটেও যানবাহনগুলোও কম৷ তবে পুলিশ প্রহরায় বিআরটিসি বাসগুলো চলাচল করতে দেখা গেছে৷ বিভিন্ন উপজেলা থেকে তাদের প্রয়োজনে চলাচল করতে মটরসাইকেল কিংবা ভটভটি নিয়ে কিছু লোকজন যাতায়াত করছে৷ তবে, বগুড়া থেকে বিভিন্ন রম্নটে ট্রেন চলাচল ও বগুড়া’র পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া যমুনা নদী দিয়ে নৌ চলাচল স্বাভাবিকভাবেই চলছে৷ বিআরটিসির পরিচালক পর্ষদের সদস্য শুভাশীষ পোদ্দার লিটন জানান, অবরোধ থাকলেও বিভিন্ন রম্নটে বিআরটিসি যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে৷ বগুড়ার ডিপো থেকে বিভিন্ন রম্নটে বিআরটিসি গাড়ী চলাচল করছে৷

বগুড়া রেলষ্ট্রেশন মাষ্টার বেনজুরম্নল ইসলাম বেনজু জানান, দুপুর সাড়ে ১২ টা পর্যনত্ম লোকাল পদ্মরাগ, দোলনচাপা, সেভেনআপ, লালমনিরহাট এঙ্প্রেস স্বাভাবিকভাবে চলাচল করেছে৷ প্রতিটি ট্রেনে যেখানে আটশ’ যাত্রী বহন করা যায় সেখানে দু’হাজার যাত্রী নিয়ে ট্রেনগুলো ঝুঁকির মুখে চলাচল করছে৷ ষ্ট্রেশনে দুই থেকে তিন মিনিট স্টপেজ থাকলেও ২৫-৩০ মিনিট পর্যনত্ম বিলম্বে অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে ট্রেন ছাড়া হচ্ছে৷ এসব অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে ঢাকাগামী ট্রেন নির্দিষ্ট সময়ে ষ্ট্রেশনে পেঁৗছতে পারছে না৷ ঢাকা গামী ট্রেনটি ১.৩০ মিনিটে বগুড়া ষ্ট্রেশনে পেঁৗছার কথা থাকলেও ট্রেনটি আসবে বিকেল ৫ টায়৷অন্যদিকে সারিয়াকান্দি উপজেলার যমুনা নদীর নৌ ঘাট ও ধুনট উপজেলার সহড়াবাড়ী নৌঘাট থেকে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে শ্যালো চালিত বড় বড় নৌকা জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ, সরিষাবাড়ী, সিরাজগঞ্জ, ভুইয়াপুর ও ঢাকার দিকে স্বাভাবিকভাবে চলাচল করছে৷ সহড়াবাড়ী নৌ ঘাটের ইজারাদার ইয়াকুব মুন্সী জানান, অন্যান্য দিনের চেয়ে সহড়াবাড়ী ঘাট থেকে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে অধিকসংখ্যক নৌকা ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় চলাচল করলেও পথে কোন বাধা সৃষ্টি হয়নি৷

রাজশাহী: রাজশাহীতে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে ছাত্রশিবির কর্মীরা৷ এ ঘটনায় গুরুতর আহত পুলিশ কনস্টেবল আমজাদ ও শফিকুলকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে৷ মঙ্গলবার সকাল সোয়া দশটার দিকে মহানগরীর শালবাগান এলাকার পাশে আলিফ-লাম-মিম ভাটার সামনে রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কে এ হামলার ঘটনা ঘটে৷ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সোয়া ১০টার দিকে অবরোধের সমর্থনে ছাত্রশিবির কর্মীরা আলিফ-লাল-মিম ভাটার সামনের মহাসড়কে বিক্ষোভ মিছিল বের করে ও রাস্তায় পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়৷এসময় পুলিশের একটি পিকআপ ভ্যান সেখানে গেলে শিবির কর্মীরা পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর শুরু করে৷ গাড়িতে থাকা পুলিশ কনস্টেবল আমজাদ ও শফিকুল গাড়ি থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গে শিবির কর্মীরা তাদের ঘিরে ধরে ইট ও লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করে৷ শিবির কর্মীরা পুলিশের সঙ্গে থাকা অস্ত্রও কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করে৷খবর পেয়ে বিজিবি সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে শিবির কর্মীরা পালিয়ে যায়৷রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ইফতে খায়ের আলম জানান, আহতরা আশঙ্কামুক্ত৷ তাদের জরুরি চিকিত্‍সা সেবা দেওয়া হচ্ছে৷ এছাড়া ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারের জন্য ওই এলাকায় পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে৷