কোন সমঝোতার নয়, গুপ্তহত্যা বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা: তোফায়েল

Tofayel Ahmmed

দৈনিকবার্তা-ঢাকা, ১১ জানুয়ারি: বিশ্ব ইজতেমা শেষ হওয়ার পর গুপ্তহত্যা ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপ বন্ধে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ৷ এসময় মন্ত্রী সমঝোতার সম্ভাবনা নাকচ করে বলেন, যারা পেট্টোল বোমা মেরে গাড়ি পুড়িয়ে দেয়, তাদের সঙ্গে রাজনৈতিক সমঝোতা সম্ভব নয়৷ তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, আমরা কী সেই রাজনৈতিক দল, সেই সরকার! তারা কী মনে করে! নির্বাচন সম্পর্কে তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে৷ রোববার সচিবালয়ে ডবি্লউটিও’র সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন৷

অবরোধে সব কিছু স্বাভাবিকভাবে চলছে জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, অস্বাভাবিক গুপ্তহত্যা বন্ধে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা বিশ্ব ইজতেমার পর কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে৷ তোফায়েল আহমেদ বলেন, ভারতের বিজিপি নেতা অমিত শাহ ফোন না করলেও অসত্য ও মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করছে৷

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, তারা (বিএনপি) এদেশে কী আন্দোলন করবে? মানুষকে কী মনে করে এরা? এদেশের মানুষ রাজনৈতিকভাবে সচেতন৷ এখানে অসত্য তথ্য দিয়ে লাভ হবে না৷

তিনি আরো বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন বাসায় যেতে পারেন৷ কিন্তু তিনি ওখানেই থাকবেন৷ অরাজকতা, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করাই তাদের লক্ষ্য৷ এতে কোনো লাভ হবে না৷ বিশ্ব ইজতেমা শেষ হওয়ার পর গুপ্তহত্যা ও সন্ত্রাসী কার্যাকলাপ বন্ধে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে৷অবরোধের মধ্যে কলকারখানা, লঞ্চ, ট্রেন সবকিছু স্বাভাবিকভাবে চলছে জানিয়ে তোফায়েল বলেন, অস্বাভাবিক হলো হঠাত্‍ করে গুপ্ত আঘাত করা, চলন্ত বাসে আগুন দেওয়া৷ এ সব কাজে বিএনপি বা জোটের কোনো নেতাকে দেখা যায় না৷ তারা অন্যকে দিয়ে এগুলো করাচ্ছেন৷ তারা আরাম আয়েশে আছেন৷ এটা বন্ধ করতে সরকার বদ্ধপরিকর৷

তিনি বলেন, ধৈর্য ধরেন, এটা বন্ধ হবে৷ আইন-শৃঙ্খলা প্রয়োগকারী সংস্থা বাস্তব পদক্ষেপ গ্রহণ করবে৷ কীভাবে গুপ্তহত্যা ঠেকানো যাবে, সাংবাদিকদের এ প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, অপেক্ষা করেন৷ আমরা যখন কলকাতায় ছিলাম নকশালের বোমার আওয়াজে নয় মাস ঘুমাতে পারিনি৷ এখন বাটি চালান দিয়েও নকশাল আর খুঁজে পাবেন না৷ এই অবস্থা হবে বাংলাদেশে৷

রাজনৈতিক সমঝোতার প্রশ্নে তোফায়েল আহমেদ বলেন, যারা পেট্রোল বোমা মেরে গাড়ি পুড়িয়ে দেয়, তাদের সঙ্গে কী রাজনৈতিক সমঝোতা করবেন! আমরা কী সেই রাজনৈতিক দল, সেই সরকার! তারা কী মনে করে!নির্বাচন সম্পর্কে তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে৷হরতাল-অবরোধ বন্ধে এফবিসিসিআই আইনের আশ্রয় নিতেই পারে বলেও জানান বাণিজ্যমন্ত্রী৷

আওয়ামী লীগের সমাবেশ প্রসঙ্গে তোফায়েল আহমেদ বলেন, আমরা অনুমতি নিয়ে শান্তিপূর্ণ সভা করবো৷ অন্যরা একবার সভা করতে পারলে দেখবেন, আগুন কীভাবে জ্বালায়! জনসভার নামে তারা কী অরাজকতা সৃষ্টি করে!

খালেদা জিয়ার স্বাধীন চলাচল প্রসঙ্গে তোফায়েল আহমেদ প্রশ্ন রাখেন, তিনি কী স্বাধীনভাবে চলাচল করতে চান? উনি ওখানেই থাকবেন৷ উনি পুরানা পল্টনে খাট-পালঙ্ক এনেছিলেন৷ একজন জাতীয় নেত্রী সিনক্রিয়েট করবেন৷ অরাজক বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করবেন৷ সেজন্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থা যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে৷

হজের পর মুসলমানদের সব চেয়ে বড় জমায়েত বিশ্ব ইজতেমার সময় তারা ছাড় দেয়নি উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, তাতেও ট্রাফিক জ্যাম পড়েছে৷ কিন্তু রাতের বেলায় হঠাত্‍ পেট্রোল বোমা মেরে ড্রাইভার, শিক্ষিকা মেরেছে৷ আমরাও আন্দোলন করেছি৷ এই সচিবালয় কোনো লোককে ধরে রাখতে পারেনি৷ তারা পল্টনে আমাদের সমাবেশে হাজির হয়েছিলেন৷ কিন্তু তারা জনসম্পৃক্ততা ধরে রাখতে পারেননি৷অবরোধে গত রাত নয়টা থেকে ২৪ ঘন্টায় পুলিশ-বিজিবির নিরাপত্তায় ৯,৯২৪টি গাড়ি চলেছে বলে জানান মন্ত্রী৷ডবি্লউটিও’র সভা প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি পোশাক ডিউটি-ফ্রি ও কোটা ফ্রি করার জন্য আলোচনা হয়েছে৷