নুরুল-ইসলাম-নাহিদ

দৈনিকবার্তা-ঢাকা, ১৪ জানুয়ারি: আগামী ২ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো ধরনের চেষ্টা করা হলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে বলে হুঁশিয়ার করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ৷বুধবার সচিবালয়ে এসএসসি পরীক্ষার নিরাপত্তা প্রস্তুতি নিয়ে অনুষ্ঠিত ২য় দফার বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন৷

প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে এবার সন্দেহভাজন সবার গতিবিধি নজরদারিতে রাখা হয়েছে উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী প্রশ্নপত্র ছাপার ব্যবস্থাকে আরো আধুনিকায়ন করারও সুপারিশ করেন৷এ সময় এসএসসি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে শেষ করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরো সজাগ থেকে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান নুরুল ইসলাম নাহিদ৷

শিৰামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, আসন্ন এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস বা ফাঁসের গুজব ছড়ানো, ফেসবুকে প্রশ্নপত্রের নামে হুজুগ সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে৷তিনি বলেন, বিজি প্রেসসহ সম্ভাব্য যেসব স্থান থেকে এবং ব্যক্তির দ্বারা প্রশ্নপত্র ফাঁস হতে পারে তাদের ওপরে কড়া নজরদারি ও সার্বৰণিক নিবিড় পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা করেছি৷ সংশ্লিষ্টদের বাবা-মা, আত্নীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব সবার ব্যাপারেই আমরা খোঁজ খবর রাখছি৷ কাজেই পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস বা ফাঁসের গুজব ছড়ানো এবং ফেসবুকে প্রশ্নপত্র ফাঁসের নামে হুজুগ সৃষ্টিকারীদের পরিবারেরর সদস্য বা বন্ধু-বান্ধবও আইনের হাত থেকে রেহাই পাবেন না

আগামী ২ ফেব্রম্নয়ারি ২০১৫ থেকে অনুষ্ঠিতব্য এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা সুষ্ঠু, নকলমুক্ত এবং ইতিবাচক পরিবেশে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সভা আহ্বান করা হয়৷সভা শেষে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস প্রতিরোধে আমরা সবের্্বাচ্চ মনিটরিং-এর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি৷ দৃশ্যমান এবং অদৃশ্যমান উভয় পদ্ধতিতে মনিটরিং করছি৷ বিজি প্রেসের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মকান্ড সার্বক্ষণিকভাবে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে মনিটরিং করা হচ্ছে৷ এই অবস্থায়ই তারা কাজ করতে বাধ্য৷

তিনি বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস বা ফাঁসের চেষ্টাকারীরা শনাক্ত হওয়ার সাথে সাথে তাদের বিরুদ্ধে ‘পাবলিক পরীক্ষা আইন ১৯৮০ (সংশোধিত ১৯৯৮)-এর শাসত্মির বিধান নিশ্চিত করা হবে৷ আইসিটি এ্যাক্ট-২০০৬ অনুযায়ীও তাদের শাসত্মি দেয়া হবে৷ ফেসবুকে প্রশ্নপত্রের নামে সাজেশন প্রদান করাকে অপরাধ হিসেবে উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে ত্বড়িত্‍ শাসত্মির ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে৷ এজন্য সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোকে সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ের মধ্যে রাখা হচ্ছে৷

এর আগে মনিটরিং কমিটির সভায় জানানো হয়, আসন্ন এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে এবার আমরা আরো সমন্বিতভাবে কাজ করছি৷ এ লক্ষ্যে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষাকে সর্বাধিক গুরম্নত্ব দিয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজ করার জন্য ইতিমধ্যেই দেশের সব বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কাছে শিক্ষা সচিবের ডিও লেটার পাঠানো হয়েছে৷সভায় বলা হয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে পরীক্ষা সংক্রানত্ম কন্ট্রোল রম্নমের জন্য লিংক স্থাপন করা হয়েছে৷ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটের হোমপেজে ‘এঙ্াম কন্ট্রোল রম্নম’ নামক মেনুতে কন্ট্রোল রুমের ইমেইল আইডি, জাতীয় মনিটরিং কমিটির সদস্যগণের ফোন নম্বর ও ইমেইল আইডি থাকবে৷

আসন্ন আসন্ন এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে একটি সক্রিয় ও ত্বড়িত্‍ কার্যক্ষম একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে (কক্ষ নং ১৯২২, ভবন নং ০৬, বাংলাদেশ সচিবালয়)৷ কন্ট্রোল রুমে ল্যান্ড ফোন (৯৫৪৯৩৯৬), দু’টি ইউনিক মোবাইল ফোন (০১৭৭৭-৭০৭৭০৫ ও ০১৭৭৭-৭০৭৭০৫), ইন্টারনেট কানেকশন নেয়া হয়েছে৷ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন উপসচিব পর্যায়ের কর্মকর্তার তত্বাবধানে কন্ট্রোল রুম পরিচালনা করা হবে৷ এখানে একাধিক আইটি বিশেষজ্ঞ থাকবে৷

ফেসবুকে বা অন্য কোনোভাবে তথ্য পাওয়ার সাথে সাথে বিটিআরসি, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থাকে জানিয়ে তাত্‍ক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷ তাত্‍ক্ষণিকভাবে তথ্য আদান প্রদানের সুবিধার জন্য কন্ট্রোল রম্নমের ইনচার্জের নাম ও মোবাইল নম্বর ওয়েবসাইটে থাকবে৷ একইভাবে দেশের ১০টি বোর্ডেই ভিন্ন ভিন্ন কন্ট্রোল রম্নম খোলা হবে৷

এছাড়াও পরীক্ষা চলাকালীন নিরবিচ্ছিন্ন বিদু্যত্‍ সরবরাহ করার জন্য বিদু্যত্‍ বিভাগে, পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে উত্তরপত্র এবং ওএমআরসহ গোপনীয় কাগজপত্র শিক্ষা বোর্ডসমূহে প্রেরণের লক্ষ্যে ডাকঘর খোলা রাখার জন্য ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে এবং পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে উত্তরপত্র এবং ওএমআরসহ গোপনীয় কাগজপত্র শিক্ষা বোর্ডসমূহে প্রেরণের লক্ষ্যে রেলওয়ে পার্সেল বিভাগ খোলা রাখার জন্য রেলপথ মন্ত্রণালয়ে পত্র দেয়া হয়েছে৷

ডশক্ষাসচিব মো: নজরম্নল ইসলাম খান প্রশ্নপত্র ফাঁস প্রতিরোধে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য স্বল্পসংখ্যক ব্যক্তির নিবিড় তত্বাবধানে স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে প্রশ্নপত্র ছাপানোর পরামর্শ দেন৷ তিনি বলেন, ছাপাখানায় কর্মরত প্রত্যেক ব্যক্তি একত্র হয়েও প্রশ্নপত্র ফাঁস করতে পারে৷ কাজেই এই প্রক্রিয়াকে যতটা সম্ভব স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে সম্পন্ন করা জরুরী৷

জাতীয় মনিটরিং কমিটির আহ্বায়ক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন ও অর্থ) স্বপন কুমার সরকার এ সভায় সভাপতিত্ব করেন৷ সভায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয়,সংস্থার ও প্রতিষ্ঠানের কমিটির কর্মকতর্া ও সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন৷