image_114394_0

দৈনিকবার্তা-ঢাকা, ১৯ জানুয়ারি: পুলিশের বাধার মধ্যে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের জন্মদিনে তার সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠন৷ তবে একসঙ্গে নয়, বিচ্ছিন্ন বিচ্ছিন্নভাবে তারা শ্রদ্ধা জানান৷ আর পুলিশি ঝামেলা এড়াতে দলের কোনো সিনিয়র নেতা সমাধি প্রাঙ্গণে আসেননি৷সকালে সাবেক সংসদ সদস্য বিলকিছ ইসলামের নেতৃত্বে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল এবং দুপুরে বিএনপির সাংস্কৃতিক সম্পাদক গাজী মাজহারুল আনোয়ারের নেতৃত্বে কয়েকজনকে ছাড়া পুলিশ কাউকেই জিয়ার মাজারে ঢুকতে দেয়নি৷ সব মিলিয়ে জিয়ার মাজারে প্রবেশ করতে সক্ষম হন ২০-৩০ জন নেতাকর্মী৷১৯ জানুয়ারি সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৭৯ তম জন্মবার্ষিকী পালন উপলক্ষ্যে চন্দ্রিমা উদ্যানে অবস্থিত তার মাজারে ফুল দেয়ার কর্মসূচি ঘোষণা করে বিএনপি৷

সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকীতে শেরেবাংলা নগরে তার কবরে শ্রদ্ধা নিবেদনে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির নেতারা৷সংসদ ভবনের পেছনের সড়কে জিয়ার কবরে প্রবেশের মূল ফটকে সকাল থেকেই বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে৷ সড়কের দুই মাথায় ব্যারিকেড বসিয়ে আটকে দেওয়া হয়েছে গাড়ি চলার পথ৷কাছেই পুলিশের জলকামানের গাড়ি, প্রিজন ভ্যান ও এপিসি প্রস্তুত থাকতে দেখা গেছে৷বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা সকাল থেকে দল বেঁধে চন্দ্রিমা উদ্যানে জিয়ার কবরে এলেও তাদের ফিরে যেতে হয়৷ পরে পুলিশ কয়েকজন নেতাকে এককভাবে ভেতরে প্রবেশের সুযোগ দেয়৷

জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত সাংবাদিকদের বলেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্মদিনে আমরা তার কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে এসেছিলাম৷ সেই কবর জিয়ারতে সরকার বাধা দিয়েছে- এটা কেমন গণতন্ত্র? আমরা এহেন কার্যক্রমের নিন্দা জানাচ্ছি৷ তেজগাঁও পুলিশের উপ কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার সাংবাদিকদের বলেন, বিকালে সংসদ অধিবেশন শুরু হচ্ছে বলে নিরাপত্তার স্বার্থে এ এলাকায় সভা-সমাবেশ, জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে৷ তাই এখানে কাউকে দলবদ্ধভাবে পদযাত্রা করে যেতে দেওয়া হবে না৷ কেউ ব্যক্তিগতভাবে জিয়াউর রহমান সাহেবের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে যেতে চাইলে একা যেতে পারবেন৷

সোমবার ছিল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৭৯তম জন্মবার্ষিকী৷ অন্যান্য সময়ের মতো দলের পক্ষ থেকে দিনটি উপলক্ষে রাজধানীর শেরে বাংলানগরে জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানানোর কথা বলা হয়েছিল৷কিন্তু সকাল থেকে সেখানে প্রবেশ পথে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য অবস্থান নিয়ে নেতাকর্মীদের ভেতরে প্রবেশে বাধা দেয় বলে অভিযোগ পাওয়া যায়৷

এর কারণ জানতে চাইলে পুলিশের তেজগাঁও জোনের ডিসি বিপ্লব সরকার সাংবাদিকদের বলেন, আজকে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন শুরু হবে৷ তাই অত্র এলাকায় সভা সমাবেশ, মিছিল-মিটিং নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে৷বিএনপি চেয়ারপারসনসহ দলের কেন্দ্রীয় নেতারা আসতে চাইলে পুলিশ বাধা দেবে না এমনটা জানিয়ে তিনি আরো বলেন, মিছিল নিয়ে কেউ এখানে প্রবেশ করতে পারবে না৷পরে বিএনপির পক্ষ থেকে দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল মহিলা দলের কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতাদের নিয়ে জিয়ার সমাধিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান৷ এসময় সাবেক এমপি বিলকিস ইসলাম, বিলকিস জাহান শিরিন, সুলতানা আহম্মেদ, ফরিদা ইয়াসমিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন৷

বিএনপি ছাড়াও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় ছাত্রদল, মহিলা দল, ওলামা দল, জাসাস, জিসাসসহ অন্যান্য অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা বিচ্ছিন্নভাবে শ্রদ্ধা জানান৷প্রতিবছর এই দিনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দলের শীর্ষ নেতৃবৃন্দসহ জিয়ার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন৷ গত ৩ জানুয়ারি থেকে তিনি গুলশান কার্যালয়ে অবরুদ্ধ থাকার কারণে সেখানে যেতে পারেননি বেগম খালেদা জিয়া৷

এদিকে জিয়াউর রহমানের রুহের মাগফেরাত কামনা করে সমাধি প্রাঙ্গণে দোয়া পরিচালনা করেন জাতীয় ওলামা দলের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শাহ নেসারুল হক৷এ উপলক্ষ্যে সকাল থেকেই চন্দ্রিমা উদ্যানের প্রবেশমুখে জড়ো হন বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা৷ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, আখতার হামিদ পবন, মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফতসহ উপস্থিত ছিলেন শতাধিক সাবেক এমপি৷ সাবেক সংসদ সদস্য বিলকিছ ইসলাম সহ মহিলা দলেরও দেড়শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত হন সকালে৷ এছাড়া চন্দ্রিমা উদ্যানের বাইরে রোকেয়া সরণির বিমান চত্বরে জড়ো হন বিএনপির সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা৷ কিন্তু ফুল দিতে মাজারে প্রবেশে নেতাকর্মীদের বাধা দেয় পুলিশ৷

সোমবার জাতীয় সংসদের অধিবেশন উপলক্ষ্যে জাতীয় সংসদ ভবন ও তার চারপাশের এলাকায় সব ধরনের সভা, সমাবেশ ও জমায়েত নিষিদ্ধ করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)৷ এর অংশ হিসেবেই বিএনপি নেতাকর্মীদের জিয়ার মাজারে জমায়েত হতে দেয়া হয়নি বলে জানিয়েছে পুলিশের একটি সূত্র৷গত ৩ জানুয়ারি থেকে গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিএনপি নেত্রী অবরুদ্ধ থাকায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও অন্যান্য সিনিয়র নেতারা জিয়ার মাজারে যাবেন বলে ধারণা করা হয়েছিলো৷ তবে তাদের কেউই সেখানে উপস্থিত হয়নি৷ এ পরিস্থিতিতে নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেক নেতাই বলেছেন, জিয়াউর রহমানের ৭৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে শ্রদ্ধা নিবেদনে মহিলা দলই শেষ ভরসা৷ সোমবার মহিলা দল ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের কেউ মাজারে যেতে না পারলে হয়তো বিএনপির পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করাই সম্ভব হতো না৷