গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বিদ্যুতের খুঁটিবাহী বিকল ট্রাকের সঙ্গে লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ট্রেনের সহকারী চালক নিহত এবং চালকসহ অন্ততঃ ২০জন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গ ঢাকা-খুলনা রেল রুটে প্রায় সাড়ে ৬ ঘন্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। নিহত সহকারী চালকের নাম নূর আলম শরীফ (৪৫)। তিনি ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার শশা গ্রামের মৃত মমিন উদ্দিন শরীফের ছেলে।

জয়দেবপুর রেলওয়ে জংশনের মাষ্টার মো. শাহজাহান মিয়া ও কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিসের ওয়্যারহাউস ইন্সপেক্টর ইব্রাহিম চৌধুরীসহ স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে বিদ্যুতের খুঁটিবাহী রয়েল গ্রুপের একটি ট্রাক কালিয়াকৈর থেকে চন্দ্রা যাচ্ছিল। রাত দেড়টার দিকে হাইটেক পার্ক সংলগ্ন কালিয়াকৈর উপজেলার বক্তারপুর এলাকার একটি অবৈধ রেলক্রসিং পয়েন্ট দিয়ে ঢাকা-খুলনা রেললাইন পার হওয়ার সময় লাইনের উপর ট্রাকটি বিকল হয়ে পড়ে। এসময় ঢাকা লালমনিরহাটগামী লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনের সঙ্গে ওই ট্রাকের সংঘর্ষ হয়। এতে ইঞ্জিনের ভিতরে চাপা পড়ে ট্রেনের সহকারী চালক শরীফ ঘটনাস্থলেই নিহত এবং চালক শফিউল ইসলাম সেলিম (৩৫)সহ অন্ততঃ ২০জন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে প্রেরণ করা হয়। আহতদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা গুরুতর। দূর্ঘটনার পূর্বক্ষণে ট্রেনটিকে আসতে দেখে ট্রাকের চালক ও হেলপার ট্রাক থেকে নেমে পালিয়ে যায়। সংঘর্ষে ট্রেনের ইঞ্জিনের সামনের অংশ ও বিদ্যুতের খুঁটিবাহী ট্রাকটি দুমড়ে মুচড়ে যায় এবং বগির সংযোগস্থলের পার্টিং ভেঙ্গে ট্রেনের ইঞ্জিনসহ চারটি বগি অন্য ৭টি বগি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এসময় ইঞ্জিনসহ বিচ্ছিন্ন হওয়া ট্রেনের সামনের অংশটি খুঁটিসহ ওই ট্রাকটিকে হেঁচড়ে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে খাড়াজোড়া এলাকার ব্রীজের পাশে গিয়ে থামে এবং অপর অংশটি ঘটনাস্থলেই পড়ে থাকে। ট্রেনের যাত্রীরা বিকল্প পথে তাদের গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ট্রেন ছেড়ে চলে যায়। দূর্ঘটনার পরপর ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গের ওই রেলরুটে ট্রেন চলচল বন্ধ হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ও কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌছে খুঁটির নীচে ইঞ্জিনের ভিতরে চাপা পড়ে আটকে থাকা নিহত শরীফসহ কয়েক যাত্রীকে উদ্ধার করে। পরে রেলওয়ের উদ্ধারকারী দল দূর্ঘটনা কবলিত ট্রেনটিকে মৌচাক ষ্টেশন এলাকায় সরিয়ে নিয়ে লাইন মেরামত করার পর সকাল আটটার দিকে ওই লাইনে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

রেলওয়ের লালমনিরহাট বিভাগীয় যন্ত্র প্রকৌশলী (লোকো) আশিষ কুমার মন্ডল ও জয়দেবপুর রেলওয়ে জংশন পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (এসআই) এসএম রকিবুল হক জানান, নিহতের স্বজনদের আবেদনের প্রেক্ষিতে কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ময়নাতদন্ত ছাড়াই নিহতের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। নিহতের ভাতিজা কাইয়ুম শরীফ লাশ গ্রহণ করেছেন।