আলোচনায় সম্মত দুই কোরিয়া

111

উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে আলোচনা সফল হয়েছে। ফেব্র“য়ারি মাসে দক্ষিণ কোরিয়ার পিয়েঅনচ্যাংয়ে শুরু হতে যাওয়া শীতকালীন গেমসে দল পাঠাতে রাজি হয়েছে উত্তর কোরিয়া। যুগান্তকারী ঘোষণাটি দেওয়ার পরপরই দুদেশের প্রতিনিধিরা পরস্পরকে আনন্দে জড়িয়ে ধরে উল্লাস প্রকাশ করেন।

মঙ্গলবার (দু’দেশের সীমান্তবর্তী ‘শান্তিগ্রাম’ পানমুনজমে শুরু হওয়া এই দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মূল এজেন্ডাই ছিল শীতকালীন অলিম্পিক গেমসে উত্তর কোরিয়ার অংশগ্রহণ।আলোচনা সফল হওয়ায় দু’দেশের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে যে টানটান উত্তেজনা ও অস্বস্তিকর অবস্থা চলে আসছে তা কিছুটা হলেও দূর হলো। সম্পর্ক স্বাভাবিক করার পথে মঙ্গলবারের আলোচনায় সফলতা ও সৌহার্দ্যপূর্ণ মনোভাব প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে ভূমিকা রাখবে। উত্তর কোরিয়া যে দলটি পাঠাবে তাতে অ্যাথলেটদের পাশাপাশি বেশ কিছু সংখ্যক কর্মকর্তা ও চিয়ারলিডাররা থাকবেন। গেমস চলাকালে দুদেশের পরিবারগুলোর পুনর্মিলনের একটি প্রস্তাবও দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। যুদ্ধের কারণে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়া পরিবারগুলোর পুনর্মিলনের বিষয়ে দু’দেশের মানুষই একমত এবং খুব আবেগপ্রবণ। এমনটা তারা বেশি বেশি চান। ধারণা করা হচ্ছে, এই পুনর্মিলন হবে চান্দ্রবর্ষের ছুটির সময়। শীতকালীন অলিম্পিক তখন মাঝামাঝি পর্যায়ে থাকবে।সিউল আরো চায়, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সময় দুদেশের অ্যাথলেটরা একসঙ্গে মার্চ করুক, যেমনটি তারা করেছিল কোরীয় উপদ্বীপের পতাকা হাতে, ১০ বছর আগে ২০০৬ সালের উইন্টার অলিম্পিকে। তবে এ প্রস্তাবে উত্তর কোরিয়া রাজি হয়েছে কিনা জানা যায়নি।

উল্লেখ্য, গত দু’বছরের মধ্যে বিবদমান দেশ দুটির মধ্যে এটাই প্রথম আলোচনা। দক্ষিণ কোরিয়া বলছে আন্ত-কোরিয়া সম্পর্কের উন্নয়নে তারা সম্ভব সবকিছু করবে। দেশ দুটির মধ্যে সর্বশেষ আলোচনা হয়েছিল ২০১৫ সালে। এরপর থেকেই উত্তেজনার পারদ বেড়েই চলেছে। এর একটি কারণ উত্তর কোরিয়ার পরমাণু অস্ত্র কার্যক্রম ও যুক্তরাষ্ট্রের তরফে উত্তর কোরিয়ার প্রতি উস্কানিমূলক আচরণ। উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালানোর পর দক্ষিণ কোরিয়া উত্তর কোরিয়ায় কায়েসং ইন্ডাস্ট্রিয়াল প্রজেক্ট নামে যৌভভাবে পরিচালিত একটি অর্থনৈতিক প্রকল্প থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়। এরপর থেকেই দুদেশের সম্পর্কে তিক্ততা কেবলই বেড়েছে।