চলছে জাতীয় পিঠা উৎসব ১৪২৪

হাজার বছরের সমৃদ্ধশালী সংস্কৃতির উত্তরাধীকারী আমরা। খাদ্যরসিক বাঙালি প্রাচীনকাল থেকে প্রধান খাদ্যের পরিপূরক মূখরোচক অনেক খাবার তৈরী করে আসছে। তবে পিঠা সর্বাধিক গুরুত্বের দাবিদার। লোকজ এই শিল্প আবহমান বাংলার অপরিহার্য অঙ্গ হয়ে উঠেছিল। এ যুগে সামাজিকতার ক্ষেত্রে পিঠার প্রচলন কমে এসেছে। শুধু খাবার হিসেবে নয় বরং লোকজ ঐতিহ্য এবং নারীসমাজের শিল্প নৈপুন্যের স্মারক রূপেও পিঠা বিবেচিত হয়। বাংলার নারীসমাজ অতীতে শিক্ষাদীক্ষায় অনগ্রসর ছিল সত্য, কিন্তু স্বীকার করতে হবে এদেশের নারী সমাজ লোকজ শিল্পকর্মে অত্যন্ত নিপুন।
এলাকা অনুযায়ী ভিন্ন ভিন্ন বা আলাদা রকম পিঠা তৈরী হয়ে থাকে। গ্রামাঞ্চলে সাধারণত নতুন ধান ওঠার পর থেকেই পিঠা তৈরীর আয়োজন করা হয়। শীতের সময় বাহারী পিঠার উপস্থাপন ও আধিক্য দেখা যায়। বাঙালির লোক ইতিহাস ও ঐতিহ্যে পিঠা-পুলি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে বহুকাল ধরে। এটি লোকজ ও নান্দনিক সংস্কৃতিরই বহি:প্রকাশ। মূখরোচক খাবার হিসেবে পিঠার স্বাদ গ্রহণ ও জনসমক্ষে একে আরো পরিচিত করে তুলতে শহরে ও গ্রামে বিভিন্ন স্থানে পিঠা উৎসব আয়োজন করা হয়।
লোকজ এই ঐতিহ্য ধরে রাখতে বাঙালির পিঠা পার্বণের আনন্দধারায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও জাতীয় পিঠা উৎসব পরিষদ এর যৌথ আয়োজনে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ১০ থেকে ১৮ মাঘ ১৪২৪/২৩ থেকে ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা শুরু হয়েছে জাতীয় পিঠা উৎসব ১৪২৪।
২৩ জানুয়ারি ২০১৮ মঙ্গলবার বিকেলে একাডেমি প্রাঙ্গণে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাতীয় পিঠা উৎসব উদ্যাপন পরিষদ ১৪২৪ এর আহ্বায়ক ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক জনাব লিয়াকত আলী লাকী এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইটিআই বিশ্ব কেন্দ্রের সাম্মানিক সভাপতি জনাব রামেন্দু মজুমদার, মঞ্চসারথি জনাব আতাউর রহমান, দেশবরেণ্য নৃত্যগুরু জনাব আমানুল হক এবং দেশবরেণ্য সংগীতশিল্পী সৈয়দ আব্দুল হাদী। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জাতীয় পিঠা উৎসব উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি জনাব ম. হামিদ। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সচিব জনাব জাহাঙ্গীর হোসেন চৌধুরী এবং স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন জাতীয় পিঠা উৎসব উদ্যাপন পরিষদের সদস্য সচিব খন্দকার শাহ্ আলম।
জাতীয় পিঠা উৎসব ১৪২৪ প্রতিদিনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ধারাবাহিকতায় ৩য় সন্ধ্যায় সমবেত নৃত্য পরিবেশন করেন দীপা খন্দকার এর পরিচালনায় দিব্য সাংস্কৃতকি সংগঠন এবং কবিরুল ইসলাম রতন এর পরিচালনায় নৃত্যালোক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন শিল্পী ইকবাল খোরশেদ, মাসুদুজ্জামান ও মোঃ আব্দুল কাদের তালুকদার। একক সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী মোহনা দাস, আতাউর রহমান, দোয়েল, আইরিন পারভীন অন্না, প্রদীপ মোহন্ত, নিশি কাউসার, জয়দেব কুমার, সানজিদা মীম, অনন্যা আচার্য্য, সুরাইয়া আক্তার সূবর্ণা, সোনিয়া দেওয়ান, দেলওয়ার বয়াতি ও সাজু।। জাতীয় পিঠা উৎসব ১৪২৪ প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত পিঠা প্রেমিদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। আজকের ছবি সংযুক্ত।