বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিএনপিকে রাজনীতি ও নির্বাচনের বাইরে রাখার জন্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সরকার তাঁর দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে তাড়াহুড়া করে মিথ্যা মামলার রায়ের দিন ঘোষণা করেছে। আজ সোমবার রাজধানীর নয়াপল্টনে ভাসানী মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাংগঠনিক সভায় ফখরুল এ কথা বলেন।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়া সংগ্রাম করতে জানেন। অতীতেও তিনি সংগ্রাম করে জয়ী হয়েছেন, এবারও তিনি পরাজিত হবেন না। সরকারের সমালোচনা করে বিএনপি নেতা আরো বলেন, বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখতে আওয়ামী লীগ যে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র শুরু করেছে, তা কখনোই জনগণ সফল হতে দেবে না।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই মিথ্যা মামলা তারা করেছে। মিথ্যা মামলাটির তারা বিচারকাজটাও ঠিকমতো করেনি। খালেদা জিয়াকে আটকে রেখেছিল এক-এগারোর সরকার—এক বছর। আটকে রাখতে পেরেছি কি? পারেনি। আওয়ামী লীগ বারবার চেষ্টা করেছে বিএনপিকে ধ্বংস করে দেওয়ার। ধ্বংস করতে পারছে কি?

বিএনপি দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে টিকে থাকবে, টিকে আছে, সামনের দিকে আরো শক্তিশালী আরো হবে এবং তাদের পরাজিত করবে।’ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা করবেন পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এতিমদের সহায়তা করার উদ্দেশ্যে একটি বিদেশি ব্যাংক থেকে আসা দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ এনে এ মামলা করা হয়।

খালেদা জিয়া ছাড়া মামলার অন্য আসামিরা হলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।