পরমাণু অস্ত্রলোভী ও দোসরদের বিরুদ্ধে মার্কিন হুশিয়ারি

110

যেসব সন্ত্রাসী বা জঙ্গিবাদী গোষ্ঠি বা দল গোপনে পারমাণবিক অস্ত্রের মালিক হওয়ার চেষ্টা করছে সেসব গোষ্ঠি বা দলকে সহযোগিতা করা থেকে পরমাণু শক্তিধরদের বিরত থাকার আহবান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। পাশাপাশি প্রয়োজনে প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে হুশিয়ারিও উচ্চারণ করেছে তারা। ট্রাম্প প্রশাসনের ২০১৮ সালের নিউক্লিয়ার পশ্চার রিভিউ (এনপিআর) প্রকাশ উপলক্ষে পেন্টাগনে শুক্রবার দিনশেষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে পলিটিক্যাল অ্যাফেয়ার্স সংক্রান্ত উপ-মন্ত্রী টম শ্যাননের বক্তব্যের বরাত দিয়ে সংবাদ মাধ্যমগুলো একথা জানায়। সংবাদ সম্মেলনে টম শ্যানন বলেন, জঙ্গি গোষ্ঠি বা সন্ত্রাসীদের পারমাণবিক অস্ত্রের অধিকারী হতে বা এগুলো মোতায়েন করার ক্ষেত্রে যেসব রাষ্ট্র বা সংগঠন সহায়তা করবে যুক্তরাষ্ট্র তাদেরকে দুষ্কর্মের মূল হোতা হিসেবে দায়ী করবে। তবে ১০০ পৃষ্ঠার এই রিপোর্টে বা এনপিআর রিপোর্টে এই দুষ্কর্মে সহায়তা করছে এমন কোনো রাষ্ট্র বা সংস্থার নাম উল্লেখ করা হয়নি।তবে এতে পাকিস্তানের প্রতি পরোক্ষ ইঙ্গিত করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্র পাকিস্তানের পরমাণু অস্ত্র ধর্মীয় জঙ্গি গোষ্ঠি বা চরমপন্থিদের হাতে চলে যেতে পারে মর্মে মার্কিন কর্মকর্তারা দীর্ঘদিন ধরে উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছেন। এজন্য পাকিস্তানের পরমাণু অস্ত্রের নিরাপত্তা ১০০ ভাগ নিশ্চিত করার জন্য ওয়াশিংটন ইসলামাবাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে আসছে। পাকিস্তান অবশ্য বরাবরই যুক্তরাষ্ট্রের এহেন উদ্বেগকে ভিত্তিহীন ও অমূলক বলে দাবি করে আসছে।টম শ্যানন সাংবাদিকদের বলেন, ২১ শতকে মানবজাতির জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি হচ্ছে সম্ভাব্য পারমাণবিক সন্ত্রাস। সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর উচিত হলো এই হুমকি দূর করার বিষয়ে এক যোগে কাজ করা। রাষ্ট্র ও সরকারের বাইরের গোষ্ঠি বা দল ফারমাণবিক অস্ত্র বাগিয়ে নেবার চেষ্টা করছে এমন আশঙ্কা বা ভীতি আমাদের মনে সদা ক্রিয়াশীল।এ প্রসঙ্গে মার্কিন জ্বালানি উপমন্ত্রী ড্যান ব্র“ইলে বলেন, পরমাণু অস্ত্রের বিস্তারমূলক কর্মকান্ডের প্রতি যুক্তরাষ্ট্র সব সময় তীক্ষ্ণ নজর রেখে চলেছে।