নেপালে ইউএস বাংলার বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ৫০, পাইলট আবিদকে আহত অবস্থায় উদ্ধার, সহকারী পাইলট প্রিথিলা নিহত

নেপালে রাজধানী কাঠমুন্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইউএস বাংলার বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় এ পর্যন্ত ৫০ জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল ও রয়টার্স। জানা গেছে, ইউএস বাংলার ওই বিমানে ৬৭ জন যাত্রী এবং ৪জন ক্রু ছিলেন। এরমধ্যে ২৫ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। তবে হাসপাতালে নেওয়ার পর ৭ জনকে মৃত ঘোষণা করা হয়। এদিকে হিমালয়ান টাইমস জানিয়েছে, বিমানটির ৩৩ জন যাত্রী নেপালের নাগরিক ছিলেন। এসটু-এজিইউ নম্বরের ওই বিমানটি ঢাকা থেকে উড্ডয়ন করে এবং ত্রিভুবন বিমানবন্দরে দুপুর ২টা ২০ মিনিটে এটি অবতরণ করে। বিমানবন্দর ও নেপালের সেনাবাহিনী উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছে। বিমানবন্দরের মুখপাত্র প্রেম নাথ ঠাকুর বলেন, অবতরনের সময় টার্ন করতে গিয়ে ফুটবল মাঠের কাছে বিধ্বস্ত হয়।

নেপালে দুর্ঘটনার শিকার ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের পাইলট ক্যাপ্টেন আবিদকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। তবে সহকারী পাইলট প্রিথিলা রশিদ নিহত হয়েছেন। রাজধানীর বারিধারায় ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের প্রধান কার্যালয় থেকে জানানো হয়, নেপালের কাঠমুন্ডু এয়ারপোর্টের কাছাকাছি বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। বিমানটির ফ্লাইট নম্বর ছিল BS-211।

বেলা ১২টা ৫১মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ৬৭জন যাত্রী নিয়ে নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। বিমানটি দুপুর ২টা ২০মিনিটে বিধ্বস্ত হয়। ইতোমধ্যে নেপালের ত্রিভুবন এয়ারপোর্টের কাছে দুর্ঘটনার শিকার ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের যাত্রীদের মৃতদেহের ছবি প্রকাশ করতে শুরু করেছে নেপালি গণমাধ্যম।