পাবনার ঈশ্বরদীতে মাদক ব্যবসায়ীদের ছোঁড়া ককটেল বিস্ফোরণে ৫ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। ২শ” পিচ ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী দুলাল হোসেন দুলাল (২৩) কে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৪ মে) রাত দেড় টার দিকে পাবনা-ঈশ্বরদী মহাসড়কের মধ্য অরনকোলা দিপু সরকারের পরিত্যক্ত গোডাউনের সামনে এ ঘটনা ঘটে। আটককৃত মাদক ব্যবসায়ী দুলাল ঈশ্বরদী পৌর এলাকার মাহাতাব কলোনীর মৃত আব্দুল মান্নান শেখ এর ছেলে। আহত পুলিশ সদস্যরা ঈশ্বরদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। তারা হচ্ছেন, টাউন ইন্সপেক্টর শেখ মতিউর রহমান, কনেস্টবল (৩০২) রকিব উদ্দিন, কনস্টেবল (১১৭২) মিজানুর রহমান, কনস্টেবল (৯১৯) মুশিহার আলী, কনস্টেবল (৫১৪) শহিদুল ইসলাম।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক জানান, পাবনা-ঈশ্বরদী মহাসড়কের আলহাজ্ব মোড় এর সামনে মধ্য অরনকোলা এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান চলছিলো। এমন সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী দুলাল হোসেন দুলাল ওরফে মুচি দুলাল বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেট সহ পৌর এলাকার অরনখোলা রোড দিয়ে দিয়ে তার অপর দুই সদস্য সহ সিএনজি যোগে আসছে। পুলিশকে দেখে তারা সিএনজি থেকে নেমে বাংলাদেশ সুগারক্রপ ইনস্টিটিউটের ২নং গেটের সামনে দিয়ে হেঁটে আসছিল। রেশম ও তুত গবেষণা কেন্দ্রের সামনের রাস্তায় পূর্ব থেকেই ওঁৎ পেতে থাকা পুলিশ সদস্যরা তাদের চ্যালেঞ্জ করে ও তল্লাসী চালায়। এ সময় দুলালের কাছে ২শ” পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যায়। এ সময় তার অপর সহযোগী মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশের ওপর ককটেল বোমা নিক্ষেপ করে দুলালকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। তখন পুলিশ আতœ রক্ষার্থে ১০ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছোঁড়ে। ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় মুচি দুলালকে ২শ’ পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে ঈশ্বরদী স্বাস্থ্য কমেপ্লেক্স চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়। ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিম উদ্দিন জানান, দুলাল কুখ্যাত ও পুলিশের তালিকাভ’ক্ত চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। ২০১৭ সালের ২৯ ডিসেম্বর ইয়াবাসহ পুলিশের হাতে আটক হয়েছিল সে। জামিনে মুক্ত পেয়ে আবার মাদক ব্যবসায় সংঘবদ্ধভাবে জড়িয়ে পড়ে। মাদক ও পুলিশের ওপর বোমা হামলার ঘটনায় পৃথক পৃথক মামলা নথিভুক্ত করে আদালতের মাধ্যামে তাকে পাবনা জেলা কারাগারে পাঠানো হবে বলে থানা সুত্র জানায়।