২০ রোজার মধ্যে পোশাক শ্রমিকদের বোনাস-বকেয়া পরিশোধের দাবি

রমজানের ২০ তারিখের মধ্যে পোশাক শ্রমিকদের ঈদের বোনাস ও বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধের দাবি জানিয়েছে কয়েকটি শ্রমিক সংগঠন।শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে পৃথকভাবে মানববন্ধন ও মিছিল-সমাবেশে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট, জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন ও টেক্সটাইল গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশন এই দাবি জানায়।সব পোশাক কারখানায় ২০ রোজার মধ্যে শ্রমিকদের মূল বেতনের সমান ঈদ বোনাস পরিশোধ এবং জুলাইয়ের মধ্যে শ্রমিকদের নূন্যতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা ঘোষণার দাবি জানায় গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট।মানববন্ধন ও সংক্ষিপ্ত সমাবেশে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, আমরা শ্রমিকদের বেতন-বোনাস ২০ রোজার মধ্যে দেওয়ার জন্য দাবি জানাচ্ছি।শ্রমিকদের জন্য ঈদ কখনও আনন্দের হয়ে আসে না, ঈদের আগের দিন পর্যন্ত তাদের কাজ করতে হয়। ২০ রোজার মধ্যে বোনাসটা দেওয়া হলে আনন্দের না হোক অন্তত ঈদটা তাদের স্বস্তির হবে। পোশাক শ্রমিকদের নূন্যতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা আগামী জুলাইয়ের আগে ঘোষণার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, “দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বাজারে আমরা হিসেব করে দেখেছি ১৮ হাজার টাকার কমে কোনো পরিবার চলতে পারে না।তাই আর টালবাহানা না করে অবিলম্বে শ্রমিকদের নূন্যতম এই মজুরি ঘোষণা করা হোক।
গার্মেন্ট শ্রমিক ফ্রন্টের মানববন্ধনে সংগঠনটির সভাপতি আহসান হাবীব বুলবুলের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে সহ-সভাপতি খালেকুজ্জামান লিপন ও সাধারণ সম্পাদক সেলিম মাহমুদ বক্তব্য দেন।২০ রোজার মধ্যে পোশাক শ্রমিকদের ঈদ বোনাস ও বেতন ভাতা পরিশোধের দাবিতে একই সময় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন, সমাবেশ ও মিছিল করে জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন।সংগঠনটির সভাপতি আমিরুল হক আমিন বলেন, “ঈদ বোসান কোনো দয়া বা প্রথা নয়, এটি শ্রমিকদের আইনত অধিকার; তাই ২০ রোজার মধ্যে শ্রমিকদের ঈদ বোনাস এবং বকেয়া বেতন ভাতা পরিশোধ করতে হবে।এদিকে টেক্সটাইল গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের আয়োজনে মানববন্ধনে ২৫ রোজার আগে পোশাক শ্রমিকদের ঈদ বোনাস এবং বেতন-ভাতা পরিশোধের দাবি জানানো হয়।এছাড়া রাজধানীর তুরাগ থানায় অবস্থিত বন্ধ থাকা মাসটেক্স কারখানা চালুর দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।