গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ঃ আওয়ামীলীগের যৌথসভা ঃ ‘কাউন্সিলর যার যার, নৌকা সবার’

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থীকে বিজয়ী করতে আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে এবারের নির্বাচনে সিটি কর্পোরেশনের ৫৭টি ওয়ার্ডের জন্য গঠিত ১১৬টি কমিটি প্রথম পর্বের কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে। কমিটিগুলোর প্রথম পর্বের কার্যক্রম শেষে বুধবার পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় এবারের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী জয়লাভের ব্যাপারে নানা প্রতিবন্ধকতা চিহ্নিত এবং সেগুলো সমাধানের উপায় নির্ধারণ করা হয়।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও গাজীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আ.ক.ম. মোজাম্মেল হক এর সভাপতিত্বে রাজবাড়ি সড়কের জেলা কার্যালয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত এ যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি ও কর্ণেল (অবঃ) ফারুক খান এমপি, গাজীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান, প্রকৌশলী আব্দুস সবুর, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও গঠিত কমিটিগুলোর প্রধান সমন্বয়ক ইকবাল হোসেন সবুজ, আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমসহ প্রমূখ নেতৃবৃন্দ সভায় বক্তব্য রাখেন।

সভায় জানানো হয়, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থীকে বিজয়ী করতে আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে এবারের নির্বাচনে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন ৫৭টি ওয়ার্ডের জন্য ১১৬টি কমিটি গঠন করা হয়। জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ এ কমিটিগুলোর প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্বে রয়েছেন। ১০ সদস্যের প্রতিটি কমিটি গত ২৪ এপ্রিল থেকে এ নির্বাচনী এলাকায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মো. জাহাঙ্গীর আলমের নৌকার প্রতীকের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারনা শুরু করেন। তারা প্রতিদিন প্রতিটি ভোটারের খোঁজে তাদের বাড়ি, অফিস, ব্যবসা প্রতিষ্ঠাণসহ বিভিন্ন এলাকায় ছুটে যান এবং তাদের সমর্থন আদায়ের জন্য কথা বলেন। ১২ জুন পর্যন্ত তারা এ কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এ কার্যক্রম পরিচালনাকালে তারা নানা বিষয়াবলী চিহ্নিত করেন। চিহ্নিত সমস্যাবলী স্থানীয়ভাবে সমাধানের চেষ্টা করেন। বুধবার অনুষ্ঠিত সভায় সেসব সমস্যাবলী নিয়ে আলোচনা করা হয়। এসময় কমিটির সদস্যরা জানান, আওয়ামীলীগ বা অঙ্গসংগঠণের একাধিক নেতা কাউন্সিলর পদে পরষ্পরের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। যা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থীর জন্য কিছুটা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে বলে আশংকা করছেন কমিটিগুলোর সদস্যরা। আলোচনা শেষে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ অন্য পদের প্রার্থীদের বেলায় নিজেদের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন করলেও মেয়র পদে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে একযোগে কাজ করার নির্দেশ দেন। এসময় তারা বলেন, এবারের নির্বাচনে ‘কাউন্সিলর যার যার, নৌকা সবার’ এ লক্ষ্য নিয়ে সবাইকে কাজ করতে হবে। সভায় কমিটিগুলোকে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠাণ পর্যন্ত মেয়র পদে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করার পরামর্শ দেওয়া হয়। বিশেষ করে ভোট গ্রহণের দিন যাতে প্রতিটি ভোটার নির্বিঘেœ ও নিরাপদে কেন্দ্রে গিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট প্রদান করতে পারে সে ব্যাপারে সহযোগিতা করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থীসহ ৭জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এদের মধ্যে ৬জন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মনোনীত এবং একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন। এছাড়াও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৫৭টি সাধারণ ওয়ার্ডের সাধারণ আসনের কাউন্সিলর পদে ২৫৪ জন এবং ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পদে ৮৪জন প্রার্থী এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এবারের নির্বাচনে একটি ওয়ার্ডে সাধারণ আসনের কাউন্সিলর পদে একজন প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এবার গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৫৭টি সাধারণ ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫লাখ ৬৯ হাজার ৯৩৫ এবং নারী ভোটার ৫লাখ ৬৭হাজার ৮০১।