গাড়ি চাপায় মানুষ মারার অভিযোগ থেকে এমপি পুত্র সাবাব চৌধুরীর নাম প্রত্যাহার

রাজধানীতে সড়ক দূর্ঘটনায় গাড়ি চাপা দিয়ে মানুষ মারার অভিযোগ থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে নোয়াখালি-৪ এর সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরীর ছেলে সাবাব চৌধুরীর নাম। এ দূর্ঘটনায় নিহত ড্রাইভার সেলিম বেপারীর পরিবারের সঙ্গে আর্থিক সমঝোতার মাধ্যমে বাদী পক্ষের অভিযোগ থেকে বাদ দেওয়া হয় সাবাব চৌধুরীকে। বৃহস্পতিবার (২১ জুন) সন্ধ্যায় ঢাকায় নাওয়ার প্রপার্টিজ লিঃ’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ইমরান হোসেন ও এমপি একরামুল করিমের প্রতিনিধির মাধ্যমে এ সমঝোতা হয়।

বিশ্বস্ত সুত্র জানায়, বাদী পক্ষের অভিযোগ থেকে নাম তুলে নিলে এমপি ছেলে সাবাব চৌধুরীকে হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। সাবাব চৌধুরীর পরিবর্তে মামলায় যোগ হয়েছে ঐ গাড়ির ড্রাইভার নুরুল আমিনের নাম। মামলার বাদী সেলিম বেপারির জামাতা আরিফ ভুঁইয়া এবং নিহত সেলিমের স্ত্রী, মেয়ে মামলা প্রত্যাহারের বিষয়ে ৩০০ টাকার ষ্ট্যাম্পে একটি লিখিত বক্তব্য দিয়েছেন। যেটা কিছু সময়ের মধ্যে দূর্ঘটনা সংশ্লিষ্ট থানায় প্রেরণ করা হবে বলে অন্য একটি সুত্র নিশ্চিত করেছে।

অন্যদিকে এ ঘটনায় দেশব্যাপী আলোচনায় আসা এমপি পুত্র সাবাব চৌধুরী দাবি করেছেন: তাকে দুর্ঘটনার জন্য দায়ী করা হলেও ওইদিন তিনি ঢাকাতেই ছিলেন না। তাঁকে এবং তাঁর পরিবারকে রাজনৈতিকভাবে হেয় করার জন্য একটি মহল উদ্দেশ্যমূলক ভাবে ফাঁসাতে চাচ্ছে। এখন পর্যন্ত সাবাবকে দোষী করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের জবাবে সাবাব বলেন: “১০ জুন থেকে আমি নোয়াখালীতে। ঘটনার দিন ১৯ জুন রাত ৯ টা পর্যন্ত আমি নোয়াখালীর সুবর্ণচরে আমার নামে উদ্বোধন করা একটি ঘাট পরিদর্শনে ছিলাম। সেখানে হাজার হাজার মানুষ ছিল। তারা আমাকে দেখেছে। হাজার হাজার মানুষ সাক্ষী আছে আমি তখন নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ছিলাম। এখানে লুকোচুরির কিছুই নাই।”