মেয়েকে নিয়ে পাকিস্তানের পথে নওয়াজ, লাহোরে গ্রেপ্তার প্রস্তুতি

গ্রেপ্তারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে দেশে ফিরছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। মেয়ে মরিয়ম নওয়াজকে নিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যা নাগাদ তার পাকিস্তানের পৌছার কথা। এদিকে, নওয়াজকে বহনকারী বিমান লাহোরে অবতরণের পরপরই মেয়েসহ তাকে গ্রেপ্তার করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। দুপুর থেকে শহরের এক অংশে সাধারণের যাতায়াত বন্ধ রাখা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, তাকে বিমান থেকে নামিয়ে সরাসরি নিজেদের হেফাজতে নেবে নিরাপত্তা বাহিনী। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

খবরে বলা হয়, গত সপ্তাহে দুর্নীতি মামলায় নওয়াজ শরীফকে ১০ ও মেয়ে মরিয়মকে ৭ বছরের কারাদন্ড দেয় পাকিস্তানের একটি আদালত। এ মাসের ২৫ তারিখে দেশটিতে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। নওয়াজের দল পিএমএল-এন দাবি করেছে, নির্বাচনে অংশগ্রহণ থেকে বিরত রাখার জন্যই নওয়াজকে নজিরবিহীনভাবে এ সাজা দেয়া হয়েছে। নওয়াজের দাবি, তিনি সেনাবাহিনীর টার্গেটে পরিণত হয়েছেন। শুক্রবার প্রকাশিত এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, আমি জানি যে, আমাকে সরাসরি জেলে নেয়া হবে। পাকিস্তানিদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, আমি আপনাদের জন্যই দেশে ফিরছি। আমার যাত্রায় শামিল হোন, হাতে হাত রাখুন এবং দেশের গতিপথ বদলে দিন। নওয়াজ শরীফ একটি বিমানের সিটে বসে ওই ভিডিও চিত্র ধারণ করেন। তবে ভিডিও চিত্র ধারণের সময় তিনি কোথায় অবস্থান করছিলেন, তা নিশ্চিত হওয়া যায় নি। পরে নওয়াজের মেয়ে মরিয়ম নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে বাবাকে আবুধাবি বিমানবন্দরে তোলা একটি ছবি পোস্ট করেন।এদিকে, পিএমএল-এন এর ভারপ্রাপ্ত প্রধান ও নওয়াজ শরীফের ছোট ভাই শাহবাজ শরীফ অভিযোগ করেছেন, নওয়াজ শরীপের পাকিস্তানে প্রত্যাবর্তনকে ঘিরে তার দলের শত শত কর্মী-সমর্থককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নির্বাচন সামনে রেখে তার দলের ওপর নির্লজ্জভাবে আক্রমণ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, নওয়াজের প্রত্যাবর্তনকে স্বাগত জানাতে তার হাজার হাজার কর্মী-সমর্থক লাহোরের বিমানবন্দরে হাজির হবেন। তার ভাষায়- ‘গোটা বিশ্ব জানে যে, পিএমএল-এন চক্রান্তের শিকার। এর পরেও আমরা বিমান বন্দরে যাবো। আমরা পুরোপুরি শান্তিপূর্ণভাবে নওয়াজকে স্বাগত জানাবো।নওয়াজের প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে লাহোরে প্রায় ৮ হাজার পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ প্রধান সাজ্জাদ হাসান মান এ খবর নিশ্চিত করেছেন। শুক্রবার সকাল থেকেই লাহোরের একাংশের রাস্তা আটকে রাখা হয়েছে। এছাড়া পুরো শহরের সাধারণ মানুষের চলাচল সীমিত করা হয়েছে।