বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করে ভারতকে তাদের চারটি বন্দরে পণ্য পরিবহনের অনুমতির খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সোমবার প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়।মন্ত্রিসভা বৈঠক শেষে সচিবালয়ের প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। তিনি জানান, ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরের জন্য অ্যাগ্রিমেন্ট অন বি ইউজড অব চট্টগ্রাম অ্যান্ড মংলা পোর্ট ফর মুভমেন্ট অব গুডস টু অ্যান্ড ফ্রম ইন্ডিয়া বিটুইন দি পিপলস রিপাবলিক অব বাংলাদেশ অ্যান্ড দি রিপাবলিক অব ইন্ডিয়া’ এর খসড়ার অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা।

এই খসড়ায় বলা হয়েছে, এর মাধ্যমে ভারত বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর ব্যবহার করে তাদের চারটি বন্দরে পণ্য পরিবহন করতে পারবে। দুই দেশের মধ্যে সুসম্পর্ক বজায় রাখার স্বার্থে বাংলাদেশ সরকার এই আইনটি করছে।এছাড়াও বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আইন ২০১৮-এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন ও জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড আইন ২০১৮-এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আইন ২০১৮-এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।এটি ১৯৮৪ সালের একটা অর্ডিন্যান্স দ্বারা পরিচালিত হতো। এটিকে আইনে পরিণত করা হয়েছে। আগে এটি ইংরেজিতে ছিল, এখন বাংলায় হচ্ছে। এছাড়া তেমন কোনও পরিবর্তন নাই, তবে বোর্ড অব গভর্নেন্সে সামান্য পরিবর্তন আনা হচ্ছে। আগে জনপ্রশাসনমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী এর কোনও পদে ছিলেন না। এখন তারা পদাধিকার বলে এর সদস্য থাকবেন।

তাছাড়া জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডে (এনসিটিবি) চারজন সদস্য বাড়িয়ে একটি আইনের চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা।সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘দ্য ন্যাশনাল কারিকুলাম অ্যান্ড টেক্সট বুক বোর্ড অর্ডিন্যান্স-১৯৮৩’ বাংলায় রূপান্তর করে নিয়ে আসা হয়েছে। এতে অল্প কিছু পরিবর্তন হয়েছে।আগে বোর্ডের গঠন ছিল- চেয়ারম্যান এবং চারজন সদস্য। এখন প্রস্তাব করা হয়েছে একজন চেয়ারম্যান এবং বিষয়ভিত্তিক আটজন সদস্য। মোট নয় সদস্য মিলে বোর্ড গঠনের প্রস্তাব করা হয়েছে। পাঁচজনের মধ্যে তিনজন উপস্থিত হলেই আগে কোরাম হতো, এখন প্রস্তাব করা হয়েছে পাঁচজনের উপস্থিতিতে কোরাম পূর্ণ হবে।সদস্যদের মধ্যে আগে কাজের ভাগ করে দেওয়া ছিল না জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এখন আটজন সদস্যের প্রত্যেককে আলাদা কাজ ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ সদস্য পাঠ্যপুস্তক, প্রাথমিক শিক্ষাক্রম, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাক্রম, মাদ্রাসা শিক্ষাক্রম, কারিগরি শিক্ষাক্রম, শিক্ষাক্রম (প্রশিক্ষণ), শিক্ষাক্রম (গবেষণা, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন) এবং অর্থ। বোর্ডের কাজের মধ্যে দু’টি সংযোজনী আনা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জন্য তাদের মাতৃষাভায় পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন করা। এছাড়া ডিজিটাল ও মিথস্ক্রিয় পুস্তক প্রণয়ন ও অনুমোদন করার বিষয়টি নতুন করে যুক্ত করা হয়েছে।

বোর্ড তার কার্যাবলী সম্পাদনের ক্ষেত্রে সরকার কর্তৃক সময়ে প্রদত্ত অনুশাসন ও নির্দেশ দ্বারা পরিচালনা হবে, এটাও নতুন। প্রতি বছর ৩১ মার্চের মধ্যে সরকারের কাছে রিপোর্ট প্রদান করার বিষয়টি নতুন করে সংযোজন করা হয়।এনসিটিবি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত হবে।

এছাড়াও সরকারি মালিকানাধীন ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড এবং হ্যাক্সিন ইলেকট্রিক্যাল লিমিটেড চায়না-এর যৌথ উদ্যোগে জয়েন্ট ভেঞ্চার কোম্পানি গঠনের লক্ষ্যে এতদ সংশ্লিষ্ট জয়েন্ট ভেঞ্চার অ্যাগ্রিমেন্ট এবং গঠিতব্য কোম্পানির মেমোরেন্ডাম অব অ্যাসোসিয়েশন ও আর্টিকেল অব অ্যাসোসিয়েশন এর খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরও জানান- আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি, বঙ্গবন্ধু ঘনিষ্ঠ সহচর ও পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা আবদুস সামাদের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে মন্ত্রিসভার বৈঠক