৩৩৩ নম্বরে এসএমএস পেয়েই পাবনার ভিন্নভিন্ন স্থানের তিনটি বাল্য বিয়ে বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছেন জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। শুক্রবার পাবনা সদরের হিমাইতপুর, মালঞ্চি ও মালিগাছা ইউনিয়নের এই তিনটি বাল্য বিয়ে দেয়ার প্রস্তুতি চলছিলো।

জানা যায়, শুক্রবার পাবনা সদর উপজেলার হিমাইতপুর ইউনিয়নের নিয়ামতউল¬াহপুর, মালঞ্চি ইউনিয়নের চরমালঞ্চি এবং মালিগাছা ইউনিয়নের মনিদহ গ্রামে এই তিনটি বাল্য বিয়ের আয়োজন করা হয়। ৩৩৩ নম্বর থেকে এসএমএস পেয়ে পাবনা জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিনের নির্দেশে পাবনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জয়নাল আবেদীনের সার্বিক তত্বাবধানে এই বিয়েগুলো বন্ধ করা হয়।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, বাল্যবিয়ে বন্ধে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য এবং সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অপরাধে তাৎক্ষণিক ভাবে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ৭ জনকে গ্রেপ্তার করে দন্ডবিধির ১৮৬ ধারার অপরাধে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদনন্ড ও জরিমানা প্রদান করা হয়।

দন্ডিতরা হলেন, সদর উপজেলার মালঞ্চির মো: আফজাল শেখ, মালিগাছার মো: মুক্তার খাঁ ও মো: ইজাজুল খাঁ, হিমাইতপুরের মো: চাঁদ আলী প্রমানিক, মো: আমিরুল ইসলাম ও মো: মুক্তার হোসেন এবং ঈশ্বরদীর ছলিমপুর ইউনিয়নের মো: আলামিন হোসেন। দন্ডিতদের মধ্যে ৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড এবং একজনকে অর্থ দন্ডে দন্ডিত করা হয়।

ইউএনও জয়নাল আবেদীন বলেন, বাল্য বিবাহ আইনত: ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। বাল্য বিবাহ রোধে উপজেলা প্রশাসন সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে। পাশাপাশি যে কোন স্থানে বাল্যবিবাহ হচ্ছে এমন খবর পেলে তাৎক্ষণিক ভাবে জানানোর জন্য সাধারণ মানুষকে অনুরোধ করেছেন তিনি।