সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মুন্সীগঞ্জে বেপরোয়াভাবে চলছে ইলিশ ধরা ও বিক্রি। জেলার পদ্মা ও মেঘনা নদীতে ইলিশ ধরা রীতিমত উৎসবে পরিণত হয়েছে। নদীর তীরেই ইলিশ কেনাবেচার ধুম পড়েছে। এমনকি মাত্র ১০০ থেকে ১৫০ টাকায় মিলছে এক কেজি ইলিশ।

মুন্সীগঞ্জে স্থানীয়রা জানান, আইনশৃংখলা বাহিনী দিনের বেলা অভিযান পরিচালনার কারণে জেলেরা রাতে মাছ শিকার করে। পদ্মা ও মেঘনা নদীতে ইলিশ ধরা রীতিমত উৎসবে পরিণত হয়েছে। আর নদীর তীরেই বসছে ইলিশের হাট। সেখানে ইলিশ কেনাবেচার ধুম পড়েছে। ১০০-১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে এক কেজি ইলিশ। এছাড়া মেঘনা ও পদ্মা তীরবর্তী এলাকায় নানা কৌশলে বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে ইলিশ। মুন্সীগঞ্জের পদ্মানদী বেষ্টিত লৌহজং উপজেলার উত্তর হলদিয়া গ্রামে বস্তাভর্তি করে বিক্রি হচ্ছে এসব ইলিশ।

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরাঞ্চল বকচর গ্রাম সংলগ্ন মেঘনা নদীর তীরেই বসছে ইলিশের হাট। মেঘনা তীরের অঘোষিত ওই হাটে প্রতিদিন ছুটে যাচ্ছেন পাইকার ও খুরচা মৎস বিক্রেতারা। নদীর তীরেই কেনাবেচা হচ্ছে এসব ইলিশ। এসব অস্থায়ী হাটগুলোতে রীতিমত আড়ত খুলে ইলিশ কেনাবেচা হচ্ছে।

আইনশৃংখলা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানান, মা ইলিশ রক্ষার্থে পদ্মা নদীতে এই মৌসুমে প্রতিনিয়তই অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। বিভিন্ন সময় মাছ ও জালসহ জেলেদের আটক করে জরিমানা কিংবা কারাদণ্ড প্রদান করা হচ্ছে। তবে অনেক সময় আমাদের অভিযানের আগাম বার্তা পেয়ে সটকে পড়ে জেলেরা। কিন্তু প্রজনন মৌসুমে অভিযান অব্যাহত থাকবে।