জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট মামলায় হাই কোর্টে খালেদা জিয়ার সাজা বাড়ানোর প্রতিবাদে বুধবার সর্বোচ্চ আদালত বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপিপন্থিদের নিয়ন্ত্রণে থাকা সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি।

মঙ্গলবার রায়ের পর আইনজীবী সমিতির কার্যকরী কমিটির সভা শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে আদালত বর্জনের এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি ও বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন।তিনি বলেন,বেআইনিভাবে বিএনপি চেয়ারপারসনের সাজা বাড়ানোর প্রতিবাদে বুধবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত তারা সর্বোচ্চ আদালতের দুই বিভাগে (হাই কোর্ট ও আপিল) কর্মবিরতি পালন করবেন।বিদেশ থেকে জিয়া এতিমখানা ট্রাস্টের নামে আসা দুই কোটি ১০ লাখ টাকা আত্মসাতের এই মামলায় জজ আদালত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছিল।

তিন আসামির আপিল এবং দুদকের একটি রিভিশন আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাই কোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার খালেদা জিয়ার সাজা বাড়িয়ে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়।প্রসঙ্গত, জয়নুল আবেদীন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, একইসঙ্গে খালেদা জিয়ার আইনজীবীও। মঙ্গলবার রায় ঘোষণার সময় তিনি ওই আদালতে ছিলেন না। এরপর দুপুর দেড়টার পর আদালত বর্জনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন।জয়নুল আবেদীন বলেন, বার অ্যাসোসিয়েশন (সুপ্রিম কোর্ট বার) সিদ্ধান্ত নিয়েছি আদালতের স্বাধীনতা সমুন্নত রাখার জন্য, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা সমন্নুত রাখার জন্য এবং এ রকম একটা বেআইনি রায় দেওয়া হলো তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের জন্য বুধবার উভয় বিভাগে, আপিল বিভাগসহ সকাল ৯টা থেকে ১টা পর‌্যন্ত আদালত বর্জনের কর্মসূচি আমরা ঘোষণা করছি।তিনি বলেন, শান্তিপূর্ণ এ কর্মসূচিতে কোনো রকম বাধা আসলে বাধা অতিক্রম করবো। যদি কোনো বাধার সৃষ্টি হয় পরবর্তীতে বিচার বিভাগকে সমুন্নত রাখার জন্য কঠিন কর্মসূচি দেবো।এ সময় সুপ্রিমকোর্ট বারের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী, সমিতির সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।