বিশ্বইজতেমা ও জোড় ইজতেমার পূর্বনির্ধারিত তারিখ বহালের দাবি জানিয়েছেন তাবলীগ জামাতের সা’দ পন্থী মুসুল্লীরা। এ দাবীতে তারা রবিবার গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন। রবিবার দুপুরে গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি কালে তাবলীগ জামাতের মুরুব্বী মাওলানা আব্দুল্লাহ শেখ, হাফেজ মাওলানা মুফতি ফয়সাল হোসেন, মুফতি মোয়াজ বিন নূর, মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, গাজীপুরের মুরুব্বী হাজী সিরাজ সিকদার, একেএম হুমায়ুন কবীর, মাওলানা আনোয়ার হোসেন, এবিএম আনোয়ার হোসেনসহ কয়েকশ’ মুসুল্লীরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে চত্বরে জমায়েত হন।

তাবলীগের মুরুব্বী মাওলানা আব্দুল্লাহ শেখ জানান, ২০১৮সালের ইজতেমায় ২০জানুয়ারি ভারতের নিজাম উদ্দিন মারকাজের মুরুব্বী মাওলানা সা’দ কাকরাইলের মুরুব্বীদের নিয়ে পরবর্তী বছরের পাঁচদিন ব্যাপী জোড় ইজতেমা ও তিনদিন ব্যাপী বিশ্বইজতেমার তারিখ নির্ধারণ করা হয়। সে অনুয়ায়ী জোড় ইজতেমা ৩০ডিসেম্বর এবং বিশ্ব ইজতেমা ১১জানুয়ারি শুরুর হওয়ার কথা। ইতোমধ্যে জোড় ইজতেমায় অংশ নিতে দেশী-বিদেশী হাজার হাজার মুসুল্লীর টঙ্গী ইজতেমা ময়দানে জমায়েত হতে রওনা দিয়েছেন। কিন্তু কিছু মাদ্রাসার কয়েকশ শিক্ষার্থী তাদের আগমন প্রতিহত করতে লাঠি-সোটা নিয়ে টঙ্গী ইজতেমা ময়দান দখল করে রেখেছে। এ সংঘাত এড়াতে পূর্ব নির্ধারিত তারিখে জোড় ও বিশ্বইজতেমা বহালের দাবি জানিয়েছেন তারা।

সম্প্রতি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে তাবলীগ মুরুব্বীদের নিয়ে এক বৈঠকে ওই জোড় ইজতেমা ও বিশ্বইজতেমা স্থগিত ঘোষণা করা হয়।গাজীপুরের জেলা প্রশাসক দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর জানান, তাদের আবেদন পেয়েছি। নিয়মানুয়ায়ী প্রতিবেদনের জন্য তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে পাঠানো হবে। পরে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এসময় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমও উপস্থিত ছিলেন।