ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে জাতীয় পার্টির দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া। এই আসনেই প্রার্থী ছিলেন তারই শ^শুর অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা। মৃধা মনোনয়ন না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে তার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে আগুন জ¦ালিয়ে এক ঘন্টা অবরোধ করে রাখেন। এসময় রাস্তার দু’পাশে দীর্র্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

মঙ্গলবার সকাল ১১ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সরাইল উপজেলার কুট্টা পাড়া মোড়ে এই অবরোধ সৃষ্টি করেন। পরে দুপুর সোয়া ১২ টার দিকে অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা উপস্থিত সকলের প্রতি বক্তব্য দেয়ার পর তার নেতৃত্বে অবরোধ তুলে নেয়া হয়। দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে যান চলাচল শুরু হয়।দলীয় নেতাকর্মী সূত্রে জানা যায়, ২৬ নভেম্বর বিকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে জাতীয় পার্টি থেকে অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধার জামাতা অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া দলীয় মনোনয়ন পান। এই খবর ছড়িয়ে পড়লে ক্ষুব্ধ হন শ^শুর জিয়াউল হক মৃধা ও তার কর্মী সমর্থকরা। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার সকাল ১১ টার দিকে অর্ধ শহ¯্রাধীক লোকজন ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সরাইল উপজেলার কুট্টাপাড়া মোড়ে অবস্থান নিয়ে মহাসড়কে টায়ার জ¦ালিয়ে রাস্তা অবরোধ করেন। এসময় তার নেতাকর্মীরা মাথায় কাফনের কাপড় বেধে ‘বহিরাগত প্রার্থী ঠেকাও, সরাইল আশুগঞ্জ বাঁচাও’ সহ বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকেন। এতে মহাসড়কের দু’পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। দুপুর সোয়া ১২ টার দিকে অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা ঘটনাস্থলে পৌছে বক্তব্য দেয়ার পর তার নেতৃত্বে অবরোধ তুলে নেয়া হয়। পরে সাড়ে ১২ টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে যান চলাচল শুরু হয়। তবে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা জানান, অবিলম্বে জামাই রেজাউল ইসলাম ভূইয়ার মনোনয়ন প্রত্যাহার করে শ^শুর জিয়াউল হক মৃধাকে মনোনয়ন দেয়া না হলে আরো কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলা হবে।