উইন্ডিজের বিপক্ষে ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্টি সিরিজে হার দিয়ে বছর শেষ করলো টাইগাররা। মিরপুরের শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সফরকারীদের দেওয়া ১৯১ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে ১৪০ রানে গুটিয়ে গেছে সাকিব বাহিনী। ব্যাটসম্যানদের বিব্রতকর ব্যাটিংয়ে তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে ৫০ রানে হারে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

উইন্ডিজের বিপক্ষে ২-১ এ টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারলেও টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজে জয় পেয়েছে টাইগাররা। টেস্টে ধবল ধোলাই করলেও ওয়ানডেতে ২-১ ব্যবধানে সিরিজের ট্রফি জেতে লাল সবুজের দল।

টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে দু-দলই একটি করে ম্যাচ জেতায় শেষ ম্যাচটি দাঁড়ায় অলিখিত ফাইনালে। তবে আজ বৃহস্পতিবার শেষ ম্যাচে এসে দিনটি নিজেদের করে নিতে পারলেন না টাইগাররা। টসে হেরে আগে ব্যাট করে ১৯০ রান করে উইন্ডিজ। ১৯১ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে দরুন শুরু করে বাংলাদেশ। তবে ম্যাচের দৃশ্যপট পরিবর্তন হয়ে যায় একটি নো-বল কাণ্ডের পর।

তিন ওভার ছয় বলের সময় ওশান থমাসের করা একটি বলে লিটন দাস ক্যাচ তোলেন। উইন্ডিজ ফিল্ডার ক্যাচ ধরলেও আম্পায়ার তানভীর আহমেদ নো-বলের সিদ্ধান্ত দেন। কিন্তু টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় থমাস লাইন ক্রসই করেননি। উইন্ডিজ ফিল্ডাররা বারবার আবেদন করলেও নো-বলের সিদ্ধান্তেই অটল থাকেন আম্পায়ার। এ জন্য কিছুক্ষণ খেলা থেমেও থাকে। অনেক জল গড়ানোর পর খেলা শুরু হলেও টাইগাররা ফিরতে পারেননি স্বরূপে।

৬৫ থেকে ৯৬ রানের মধ্যে বাংলাদেশ হারায় ৭ উইকেট। সর্বোচ্চ ৪৩ রান আসে লিটন দাসের ব্যাট থেকে। মাহমুদুল্লাহ ও মেহেদি মিরাজের ব্যাট থেকে আসে ১৯ রান করে। সাকিব-আরিফুল হক ফেরেন কোনো রান না করেই। তামিম ৮ ও সৌম্য ৯ রান করে সাজঘরে ফিরেন। শেষ দিকে ২২ রান করে হারের ব্যবধান কমান আবু হায়দার রনি।

উইন্ডিজের হয়ে সর্বোচ্চ পাঁচ উইকেট নেন কেমো পল। ফ্যাবিয়ান অ্যালেন দুই উইকেট ও শেলডন কটরেল, কার্লোস ব্রাফেট নেন একটি করে উইকেট।