একাদশ জাতীয় সংসদের অধিবেশনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী এবং উপমন্ত্রীদের দায়িত্ব বণ্টন করা হয়েছে। অধিবেশন চলাকালীন সময়ে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর কাজের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী এবং তার অনুপস্থিতিতে বিকল্প মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী এবং উপমন্ত্রীদের দায়িত্ব বণ্টন করে আদেশ জারি করা হয়েছে।

সোমবার (২৮ জানুয়ারি) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এ আদেশ জারি করে।আদেশে বলা হয়েছে, একাদশ জাতীয় সংসদের অধিবেশন চলাকালে দায়িত্বপ্রাপ্ত এবং বিকল্প দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী/প্রতিমন্ত্রী/উপমন্ত্রীদের অনুপস্থিতিতে কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক এবং তার অনুপস্থিতিতে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সংসদে নিজ দায়িত্বের অতিরিক্ত হিসেবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের প্রশ্নোত্তর প্রদান এবং সংসদ সম্পর্কিত কার্যাদি সম্পাদন করবেন।

মন্ত্রিসভার সবচেয়ে সিনিয়র মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক তার মন্ত্রণালয় ছাড়াও সংসদ অধিবেশনের সময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের দায়িত্ব পেয়েছেন।এছাড়া আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক নিজের মন্ত্রণালয় ছাড়াও নির্বাচন কমিশন সচিবালয় এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংসদ কার্যক্রমের দায়িত্বে রয়েছেন।

অধিবেশনে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম নিজের মন্ত্রণালয় ছাড়া রাষ্ট্রপতির কার্যালয় ও সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের দায়িত্বে থাকবেন।সংসদ অধিবেশনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে মহিলা বিষয়ক মন্ত্রণালয়েরও দায়িত্ব পালন করবেন।

উল্লেখ্য, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জনের পর গত ৭ জানুয়ারি শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী করে নতুন সরকার গঠন করা হয়। এ সরকারে প্রধানমন্ত্রী ছাড়া ২৪ জন মন্ত্রী, ১৯ প্রতিমন্ত্রী এবং তিনজন উপমন্ত্রী রয়েছেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ যাত্রা শুরু করছে বুধবার; বিকাল ৩টায় শুরু হবে অধিবেশন।সংসদ নির্বাচনের পর গত ৯ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এই অধিবেশন আহ্বান করেন।গত ২৮ জানুয়ারি শেষ হয়েছে দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদ।গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় পায় আওয়ামী লীগ। ভোট হওয়া ২৯৯ আসনের মধ্যে ২৫৭টিতে জয় পেয়েছে দলটি, জোটগতভাবে তারা পেয়েছে ২৮৮ আসন। অন্যদিকে তাদের প্রধান রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বিএনপি ও তাদের জোটসঙ্গীরা সব মিলিয়ে মাত্র আটটি আসন পেয়েছে।

ভোটের ফল প্রত্যাখ্যানকারী বিএনপি থেকে বিজয়ীরা শপথ না নেওয়ায় তাদের ছাড়াই বসতে যাচ্ছে প্রথম অধিবেশন। সংসদ অধিবেশন শুরুর দিন সকালে ঢাকায় প্রতিবাদী মানববন্ধনের কর্মসূচিও দিয়েছে তারা।অধিবেশন শুরুর পর প্রথমেই হবে স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীকে আবারও এই পদে রাখার বিষয়ে রংপুরে নির্বাচনী জনসভায় ইঙ্গিত দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।তবে ডেপুটি স্পিকার কে হবেন, সে বিষয়ে এখনও ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি।

সংসদ সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, স্পিকার-ডেপুটি স্পিকার নির্বাচনের পর অধিবেশন কিছু সময় মুলতবি রাখা হবে।নিয়ম অনুযায়ী স্পিকার নির্বাচনের সময় ডেপুটি স্পিকারের সভাপতিত্বে সংসদ শুরু হবে। যদি বর্তমান ডেপুটি স্পিকার পরবর্তী মেয়াদের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন করেন তবে স্পিকার নির্বাচনের পর সাময়িক বিরতি দেওয়া হবে। এই সময় সংসদ ভবনে অবস্থানরত রাষ্ট্রপতির কাছে শপথ নিয়ে স্পিকার অধিবেশনে বসবেন। পরে স্পিকার ডেপুটি স্পিকার নির্বাচনের জন্য সংসদ পরিচালনা করবেন।