ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো নাকি লিওনেল মেসি, দু’জনের মধ্যে কাকে এগিয়ে রাখবেন এমন বিতর্ক চলতেই থাকে সমর্থকদের মধ্যে। তবে সব বিতর্ক ছাড়িয়ে একের পর এক রেকর্ড গড়ে চলেছেন গ্রহের অন্যতম সেরা দুই তারকা। একজন স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনায়, আরেকজন ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাসের হয়ে মাঠ কাঁপিয়ে চলেছেন।

তবে দু’জনকে পারফরম্যান্সের তুলনায় খুব বেশি আলাদা না করা গেলেও, একদিক থেকে তুলনা করাই যায়। সেটা হচ্ছে, দু’জনের মাসিক আয়। ফুটবলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ মাসিক বেতন পাওয়া ১০ ফুটবলারের তালিকাসহ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম। যেখানে জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড রোনালদোর চেয়ে অনেকটা এগিয়ে আছেন বার্সেলোনা তারকা মেসি।

প্রতিবেদনটির দেওয়া তথ্যমতে, আর্জেন্টাইন তারকা মেসির মাসিক বেতন ৮.৩ মিলিয়ন ইউরো। বাংলাদেশি মূদ্রায় যা দাঁড়ায় প্রায় ৭৯ কোটি টাকা। যা পর্তুগিজ তারকা ফরোয়ার্ড ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ। পর্তুগিজ তারকার মাসিক বেতন ৪.৭ মিলিয়ন ইউরো। বাংলাদেশি মূদ্রায় যা প্রায় ৪৫ কোটি টাকা।এই তালিকার তিনে আছে ফরাসি ফরোয়ার্ড আঁতোয়া গ্রিজমানের (অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ) নাম। ২৭ বছর বয়সি এই ফরোয়ার্ডের মাসিক বেতন ৩.৩ মিলিয়ন ইউরো। বাংলাদেশি মূদ্রায় যা প্রায় ৩১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

এছাড়াও এই তালিকার চারে আছে ব্রাজিয়ান তারকা নেইমারের নাম। পিএসজির এই তারকার মাসিক বেতন ৩.০৬ মিলিয়ন ইউরো। পাঁচে থাকা উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার লুইস সুয়ারেজের (বার্সেলোনা) মাসিক বেতন ২.৯ মিলিয়ন ইউরো।ওয়েলস তারকা গ্যারেথ বেলের (রিয়াল মাদ্রিদ) নাম আছে এই তালিকার ছয়ে। রিয়ালের এই তারকার মাসিক বেতন ২.৫ মিলিয়ন ইউরো। সাতে থাকা ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার ফিলিপ কুতিনহোর (বার্সেলোনা) বেতন ২.৩ মিলিয়ন ইউরো। আর তালিকার আটে থাকা অ্যালেক্সিস সানচেজের (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড) বেতন ২.২৮ মিলিয়ন ইউরো।

এই তালিকাতে জায়গা আছে ফরাসি তারকা কিলিয়ান এমবাপের (পিএসজি) নামও। ২০ বছর বয়সি এই ফরাসি ফরোয়ার্ডের মাসিক বেতন ১.৭৩ মিলিয়ন ইউরো। এছাড়াও আর্সেনাল ফরোয়ার্ড মেসুত ওজিলের মাসিক আয় ১.৬ মিলিয়ন ইউরো।