ট্যাক্সরেট সামঞ্জস্যপূর্ণ রাখা হবে যাতে কারও কোনো ক্ষতি না হয়, বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) বিকেলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সম্মেলন কক্ষে বেজা, বিডা, বেপজা, বিল্ড ও এফবিসিসিআই-এর সঙ্গে প্রাক বাজেট আলোচনাসভায় তিনি এ তথ্য জানান।

মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া বলেন, আমরা অটোমেশনের দিকে যাচ্ছি। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ভ্যাটের বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। ট্যাক্স রেট করা হবে সামঞ্জস্যপূর্ণ। বড়দের জন্য বেশি আর ছোটদের জন্য কম। আর সেটা হলে কারও কোনো ক্ষতি হবে না। এছাড়া ব্যবসায়ীদের শুধু এক্সেম্পশন দিতেই থাকলে তারা কখনো লাভজনক হবে না। কখনো মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবে না। ফলে এসব বিষয়ও এনবিআরকে মাথায় রাখতে হবে।

তিনি আরও বলেন, এনবিআর শুধু রাজস্ব আহরণ নয়, পলিসি মেকারের কাজও করে থাকে। অনেকে বলে থাকে আমরা প্রাইভেট সেক্টরে বেশি প্রটেকশন দিয়ে থাকি। আর প্রটেকশনের কারণে দেশীয় শিল্প রক্ষার নামে বিপদগ্রস্থ হচ্ছে। দুএকটি কোম্পানিকে প্রটেকশন দিয়ে কোনো লাভ নেই। বেজা, বেপজা, হাইটেক পার্ককে বেশ কিছু সুবিধা দেওয়া হয়েছে। করপোরেট ট্যাক্সের মাধ্যমে অনেক রাজস্ব আছে। আর এটা কমানো হলে রাজস্ব কোথা থেকে আসবে সেটা চিন্তা করে দেখতে হবে। ফলে কমানো হলে রাজস্ব আহরণ কমে যাবে।

আলোচনাসভায় বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবণ চৌধুরী বলেন, আমাদেরকে হিউম্যান স্কিল বাড়ানো দরকার। দক্ষ জনবলের দরকার। বন্ড লাইসেন্স নিতে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়। সেজন্য সামনে থেকে বন্ড লাইসেন্স অনলাইনে আবেদনের মাধ্যমে যেন করা যায় সেটা চিন্তা করে দেখা দরকার।

বিল্ডের সিইও ফেরদৌস আরা বলেন, ইনক্যাম ট্যাক্সের ফরম সহজিকরণ করা দরকার। ভ্যাটের রেট না বাড়িয়ে যদি ১২ শতাংশ করা হয় তাতে সরকারের ক্ষতি হবে না। ভ্যাটের অব্যাহতি প্রাপ্ত করসীমা অন্তত ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত করা যেতে পারে। নতুন ভ্যাট ও এসডি আইনে ১২৭১টি পণ্যের ওপর সম্পূরক শুল্ক তুলে নিতে যাচ্ছে। কিন্তু একবারে তুলে না নিয়ে পর্যায়ক্রমে তুলে নেওয়াটা ভালো। বেপজার সদস্য মিজানুর রহমান বলেন, বেপজার অধীনে তথা আটটি ইকোনোমিক জোনে ৫ লাখ ২০ হাজার লোক কাজ করছে। বছরে প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকার বেতন দেওয়া হচ্ছে। স্পেশাল ইকোনোমিক জোনে ৩৮টি দেশের ইনভেস্ট রয়েছে। কিন্তু অনেক জায়গায় পাঁচ-সাত বছরের ট্যাক্স হলিডে রয়েছে। এটা ১০ বছর করা দরকার। তাহলে ইকোনোমিক ক্ষেত্রে আরও বেশি উন্নতি হবে।আলোচনাসভায় এনবিআরের সকল সদস্য উপস্থিত ছিলেন।