কক্সবাজারের টেকনাফে নাফ নদী থেকে মাছ ধরার ট্রলারসহ মঙ্গলবার চারজন বাংলাদেশি জেলেকে ধরে নিয়ে গেছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি।

মঙ্গলবার ভোররাত সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার শাহপরীর দ্বীপের জালিয়াপাড়া সংলগ্ন নাফ নদী এলাকায় চার জেলেকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করা হয়। এরপর তাদের ধরে নিয়ে যান বিজিপির সদস্যরা। প্রথম আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সাবরাং ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য মোহাম্মদ ফজলুল হক।

এই চারজন হলেন আজিম উল্লাহ মাঝি, মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, আবুল কালাম ও মোহাম্মদ হাসান। তাঁরা সবাই উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ পশ্চিম বাজারপাড়ার বাসিন্দা।

ইউপি সদস্য মোহাম্মদ ফজলুল হক বলেন, নাফ নদী থেকে মাছ ধরার ট্রলারসহ চার জেলেকে ধরে নেওয়ার নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। মাছ ধরার ট্রলারের মালিক শাহপরীর দ্বীপ ডেইলপাড়ার বাসিন্দা আমান উল্লাহ।

নৌকার মালিক আমান উল্লাহ বলেন, আজ ভোরে চারজন মাঝি-মাল্লা মাছ ধরতে শাহপরীর দ্বীপের জালিয়াপাড়ার নাফ নদী এলাকায় যান। এ সময় নাফ নদীর মিয়ানমার জলসীমানায় টহলরত ওই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির সদস্যরা একটি স্পিডবোটে হঠাৎ করে বাংলাদেশের জলসীমানায় ঢুকে পড়েন। তাঁরা ট্রলারে থাকা মাঝি-মাল্লাদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করেন। পরে ট্রলারের সঙ্গে রশি বেঁধে মিয়ানমার জলসীমানায় নিয়ে যান।এ প্রসঙ্গে টেকনাফ-২-বিজিবির অধিনায়ক ও উপ অধিনায়কের সরকারি মুঠোফোন নম্বরে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তাদের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত মিয়ানমার থেকে ইয়াবার চালান ও রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে ২০১৭ সালে এপ্রিল মাসে বিজিবি নাফ নদীতে মাছ ধরার ওপর সতর্কতা জারি করেন। এর পর থেকে এখন পর্যন্ত দুই বছর ধরে নাফ নদীতে মাছ ধরা বন্ধ আছে। তবে নাফ নদী দিয়ে প্রচুর মাছ ধরার ট্রলার ও নৌকা বঙ্গোপসাগরে মাছ শিকার এবং মাছ কিনতে যায়।