সেবা সংস্থা ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের(এমডি) পদত্যাগসহ নিরাপদ পানির জন্য পাঁচ দফা দাবিতে জুরাইন থেকে শনির আখড়া এলাকায় পদযাত্রা করেছেন জুরাইনবাসী। তারা বলছেন, ওয়াসার পক্ষ থেকে দফায় দফায় শিগগিরই সংকট সমাধানের কথা বলা হলেও তা বাস্তবায়ন করা হয়নি। বরং ওয়াসার এমডি মিথ্যাচার করছেন। এ অবস্থায় দায়িত্ব পালন করতে না পারলে তাকে পদত্যাগ করতে হবে এবং ওয়াসাকে অবিলম্বে সুপেয় পানি সরবরাহ করতে হবে।

শুক্রবার (১৭ মে) সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত নিরাপদ পানির সরবরাহ নিশ্চিত করতে পাঁচটি দাবি নিয়ে রাজধানীর জুরাইনের মিষ্টি দোকান এলাকা থেকে শুরু হয়ে শনির আখড়া আর এস শপিং কমপ্লেক্স মার্কেটের সামনে এসে শেষ হয় পদযাত্রা। পদযাত্রায় অংশ নেন জুরাইন, কদমতলী ও শনির আখড়াসহ বিভিন্ন এলাকার পানি সংকটের ভুক্তভোগী নাগরিকরা। এসময় ভুক্তভোগী নাগরিকদের হাতে ছিল ওয়াসার পানি রোগের কারণ, দিতে হবে ক্ষতিপূরণ, পানির নামে বিষ পাই, বিলের টাকা ফেরত চাই, কল থেকেই সরাসরি পানি খেতে চাই সহ বিভিন্ন স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড। দূষিত পানির দায় ওয়াসাকে নিতে হবে বলে স্লোগান দিতে থাকেন তারা।

পদযাত্রাটি কদমতলী এলাকায় এলে সেখানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ওয়াসার নিরাপদ পানি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক মিজানুর রহমান বলেন, প্রথমত আমরা রাষ্ট্রকে জানাতে চাই, জুরাইনে মানুষ থাকে, কীটপতঙ্গ নয়। দ্বিতীয়ত, আমরা শেষ পর্যন্ত বাসাবাড়িতে কল খুলে ওয়াসার সুপেয়ে পানি খেতে চাই। তাই ভুক্তভোগী জনগনকে একীভূত করতে আমাদের এই পদযাত্রা। মিজানুর রহমান আরও বলেন, বারবার আশ্বাস দেওয়া হলেও ২৩ এপ্রিলের পর থেকে আমরা আজ পর্যন্ত সুপেয় পানি পানি। গত ২৫ এপ্রিল একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে সরাসরি যুক্ত হয়ে ওয়াসার এমডি বলেছেন, খুব শিগগিরই এই সংকটের সমাধান করা হবে। কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনো সমাধানের লক্ষণ নেই। যদি রাষ্ট্র আমাদের দিকে নজর দিত, তাহলে এমন হতো না। তাই আমরা পাঁচ দফা দাবিতে আজ পদযাত্রা করছি এবং সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

জুরাইনবাসীর পাঁচ দফা দাবি হলো— যেসব বাসাবাড়ি ও এলাকায় পানি নেই বা নোংরা ময়লা পানি আসছে সেসব বাসাবাড়ি ও এলাকায় দ্রুততম সময়ে নিরাপদ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করতে হবে; দূষিত পানির কারণে জুরাইন, শ্যামপুর, মুরাদপুর, দনিয়া এলাকায় যারা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের প্রত্যেককে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে; এর আগে দূষিত পানি সরবরাহ করেও যে বিল নেওয়া হয়েছে, গ্রাহকদের সেই বিল ফেরত দিতে হবে এবং ভবিষ্যতে সুপেয় পানি না পাওয়া পর্যন্ত এ অঞ্চলের মানুষ বিল পরিশোধ করবে না; ওয়াসা কিভাবে বছরের পর বছর ধরে নোংরা ও দূষিত পানি সরবরাহ করে আসছে, সে বিষয়ে তদন্ত করে দোষীদের কঠোর শাস্তি দিতে হবে; এবং অসত্য বক্তব্যের জন্য ওয়াসার এমডিকে ক্ষমা চাইতে হবে, দায়িত্ব পালন করতে না পারলে পদত্যাগ করতে হবে।