বয়সসীমা তুলে দিয়ে ধারাবাহিক কমিটির দাবি পূরণের আশ্বাসে ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতারা ফের অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে।

বুধবার (১৯ জুন) বেলা ১১টা থেকে পৌনে ২ ঘণ্টাব্যাপী রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে ছাত্রদলের বিলুপ্ত কমিটির সাবেক নেতারা।গত রোববার (১৬ জুন) প্রথম দিনের মতো কর্মসুচি শুরু করে। পরে সোমবার (১৮ জুন) আবার বসে মঙ্গলবার বাদ দিয়ে বুধবার আবারও অবস্থান কর্মসূচি পালন করে বিলুপ্ত কমিটির নেতাকর্মীরা। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) আবারও অবস্থান কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, সকাল থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের মূল ফটকের সামনে অবস্থান নেয় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। অবৈধ প্রেস রিলিজ মানি না মানবো না, আমাদের দাবি মানতে হবে, মানতে হবে স্লোগানে স্লোগানে মুখোরিত করে তুলছে নয়াপল্টন।

বিলুপ্ত কমিটির নেতা আশিকুর রহমান বলেন, আমাদের দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।
বিলুপ্ত কমিটির নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, আমাদের কর্মসূচি চলছে, চলবে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় আবার আমরা অবস্থান কর্মসূচি পালন করবো।

এর আগে বয়সের সীমা না রাখা, স্বল্পমেয়াদি কমিটি গঠনসহ তিন দফা প্রস্তাবনার ভিত্তিতে ছাত্রদলের নতুন কমিটি গঠনের দাবিতে গত মঙ্গলবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দিনব্যাপী বিক্ষোভ করেন সংগঠনের বিলুপ্ত কমিটির একাংশের নেতারা। পরে ওইদিন রাতে দাবি পূরণে সাবেক ছাত্রনেতাদের (ছাত্রদলের কমিটি গঠনে বিএনপি গঠিত সার্চ কমিটির সদস্যরা) আশ্বাসের প্রেক্ষিতে সাময়িকভাবে আন্দোলন স্থগিত করেন আন্দোলনতরা। পরবর্তীতে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরতে সার্চ কমিটির সদস্যরা ছাড়াও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্যের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন আন্দোলনকারীরা। দাবি পূরণে তারাও পুনরায় আশ্বাস দেন আন্দোলনকারীদের। কিন্তু দাবি পূরণে কার্যত এখনও কোনো অগ্রগতিই হয়নি।

আন্দোলনকারীদের অন্যতম নেতা ছাত্রদলের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সিনিয়র সহ- সভাপতি এজমল হোসেন পাইলট বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছি।গত ৩ জুন ছাত্রদলের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে দেওয়ার পাশাপাশি কাউন্সিলের মাধ্যমে সংগঠনটির নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের ঘোষণা দেয় বিএনপি। আর কাউন্সিলে প্রার্থী হতে ২০০০ সাল থেকে পরবর্তী যেকোনো বছরে এসএসসি/সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ এবং অবশ্যই বাংলাদেশের কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী হওয়াসহ তিনটি শর্ত নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।