অপহরণের ১১ দিন পর ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা থেকে উদ্ধার হওয়া সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমদ সোহেল তাজের ভাগ্নে সৈয়দ মোহাম্মদ ইফতেখার আলম সৌরভ বাবা-মায়ের কাছে ফিরে এসেছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার ভোর ৫টা ২৭ মিনিটে উপজেলার মধুপুর বটতলা এলাকার জামিল রাইস মিলের কাছে থেকে সৌরভকে উদ্ধার করে পুলিশ। সৌরভের উদ্ধারের ব্যাপারে জামিল অটো রাইস মিলের ফোরম্যান সমির উদ্দিন সাংবাদিকদের টেলিফোনে বলেন, আজ ভোরে হঠাৎ আমাদের পাঁচিলের বাইরে থেকে বলছিল, আমারে বাঁচান ভাই, আমারে বাঁচান। এ রকম সাউন্ড আসে। অন্ধকার তো, রাত ৪টার দিকে। এ সময় আমি একটা ছেলেরে পাঠাই, দেখ তো সাউন্ড আসে কোন দিক থেকে? ছেলে আইসা বলছে, ভাই ওই পাশ দিয়া একটা লোক ডাকে। তারপর দেখতে পাই একটা লোক, অন্ধকার তো। তখন আমি নিজে আসলাম, তখন আমি তাঁকে মিলের ভিতরে নিয়া আসি।

মিলের ভিতর আইসে (সৌরভ) বলল ভাই, আমার বাবারে একটু সংবাদ দেওয়ার ব্যবস্থা করেন, একটা ফোন দেন। আমি সোহেল তাজের ভাগ্নে। এরপর আমার (সমির) নাম্বার দিয়ে তাঁর বাবার নাম্বারে ফোন দিই। ফোন দিলে ওর আম্মায় ধরে। আম্মায় ধরে বলল, তুমি আমার ছেলেরে যদি উদ্ধার করে থাক, তাহলে তুমি খুব উপকার করেছ আমার। তখন সৌরভের কাহিনী বলল আমারে, আমার ছেলে ১১ দিন ধরে হারায়ে গেছে। আপনি তাঁকে রাখেন, আমি থানায় ফোন দিচ্ছি।

এরপরই সৌরভের মামা সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ ফোন করেন বলে জানান সমির উদ্দিন। তিনি বলেন, তারপর তাঁর মামা ফোন দিল। ফোন দিয়ে বলল যে, আমি এসপিকে ফোন দিচ্ছি। পরে এসপি সাহেব আমাকে (সমির) ফোন দিল। বলল, আমরা আসছি, অপেক্ষা করেন। পরে এসপি সাহেব আসলেন, এসপির হাতে দিয়ে দিলাম। তাঁর ( সৌরভের) পরনে সাদা একটা প্যান্ট ছিল। পায়ে ওনার নিজের জুতাই ছিল। মাইট্রা রঙের একট ছেঁড়া গেঞ্জি ছিল। সেই গেঞ্জি দিয়ে কেউ জুতাও সাফ করবে না।
এরপরই জেলা পুলিশ সুপার শাহ মো. আবিদ হোসেন, জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওসি, তারাকান্দা থানার ওসিসহ পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছান। সৌরভকে উদ্ধারের পর সকাল পৌনে ৯টার দিকে জেলা পুলিশ সুপার শাহ মো. আবিদ হোসেন সাংবাদিকদের জানান, মধুপুর বটতলা এলাকার জামিল অটো রাইস মিলের সামনে সৌরভকে পাওয়া যায়। রাইস মিল থেকে সমির নামে একজন সৌরভের পরিবারকে বিষয়টি জানান। পরে সৌরভের পরিবার চট্টগ্রাম অ্যান্টিটেররিজম ইউনিটকে এ ব্যাপারে জানান। পরে খবর পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে যাই।

এর আগে সৌরভ সুস্থ রয়েছেন উল্লেখ করে পুলিশ সুপার আবিদ হোসেন বলেন, এর বেশি কিছু তিনি বলতে পারছেন না। তিনি শুধু বলছেন, তাঁকে আটকে রাখা হয়েছিল। কথা বলার মতো পরিস্থিতি না থাকায় পরে কথা বলবেন বলে জানান সৌরভ।

বাহ্যিকভাবে সৌরভের কোনো ক্ষতি লক্ষ করা যায়নি বলেও জানান এসপি আবিদ। তিনি বলেন, সৌরভকে খাবার খাইয়ে আমরা তাঁকে পরিবারের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি।

এদিকে ভাগ্নেকে উদ্ধারের খবর পেয়ে অনেক সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমদ সোহেল তাজ। সৌরভের ফেরার অপেক্ষায় ছিলেন সোহেল তাজ ও তাঁর পরিবার।অপেক্ষারত অবস্থায় ফেসবুক লাইভে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, বাড়ির পথে রয়েছে সৌরভ। সে বাসার কাছাকাছি আছে। আমরা তাঁর জন্য অপেক্ষা করছি। আমার সঙ্গে সৌরভের বাবা-মা আছেন। তাঁর মামাও আছেন। আমরা সবাই অপেক্ষা করছি। খুব শিগগির সৌরভ চলে আসবে।

সৌরভের উদ্ধারের ব্যাপারে সোহেল তাজ বলেন, ময়মনসিংহে সৌরভের খবর পেয়েই আমরা চট্টগ্রাম কাউন্টার টেররিজমের উপপুলিশ কমিশনার (ডিসি) শহিদুল্লাহ সাহেবের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তিনি সঙ্গে সঙ্গে ময়মনসিংহের এসপি আবিদ হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পরে এসপি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করার পর সৌরভকে উদ্ধার করে আমাদের জানান।

সোহেল তাজ আরো বলেন, সৌরভকে বাঁধা অবস্থায় পাওয়া গেছে। তাঁর চোখ বাঁধা অবস্থায় ছিল। এসপি সাহেব সৌরভের গোসল ও খাবারের ব্যবস্থা করেছেন।

পরবর্তী পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে চাইলে সোহেল তাজ সাংবাদিকদের বলেন, এখন মূল বিষয় বাবা-মায়ের কাছে সে ফিরে আসছে। আমরা আর কোনো বক্তব্য দিতে চাচ্ছি না। আমরা তাঁর জন্য অপেক্ষা করছি।