পূর্ব আফ্রিকার দেশ ইথিওপিয়ার সেনাপ্রধান নিজ দেহরক্ষীর গুলিতে গুপ্তহত্যার শিকার হয়েছেন। গতকাল রাজধানী আদ্দিস আবাবায় জেনারেল সিয়ার মেকোনেনকে হত্যা করা হয়। দেশটির প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ জানিয়েছেন, উত্তরাঞ্চলীয় আমহারা প্রশাসনের বিরুদ্ধে একটি অভ্যুত্থানচেষ্টা ঠেকাতে গেলে নিজ বাসভবনেই মেকোনেন নিহত হন। আমহারার গভর্নর আমবাচিউ মেকোনেনও নিহত হয়েছেন।

সরকার বলছে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে তারা সক্ষম হয়েছে। অভ্যুত্থান ও হত্যায় জড়িত সন্দেহে বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সবাইকে ‘দেশবিভক্তকারী শত্রুশক্তি’র বিরুদ্ধে একতাবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। সম্প্রতি বছরগুলোয় ইথিওপিয়ায় জাতিগত সহিংসতা বেড়ে গেছে। গত বছর প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন আবি। ক্ষমতায় এসেই তিনি রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দেন, রাজনৈতিক দলগুলোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেন। মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী কর্মকর্তাদের বিচারও শুরু করেছেন তিনি।

আফ্রিকায় স্বাধীনতার দিক থেকে বেশ পুরনো দেশ ইথিওপিয়া। জনসংখ্যায় নাইজেরিয়ার পরই দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। ৮০টি ভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর ১০ কোটি ২৫ লাখ মানুষের বাস এই দেশে। ক্ষমতায় আসার পর ইরিত্রিয়ার সঙ্গে শান্তিচুক্তিও করেন প্রধানমন্ত্রী আবি। দীর্ঘ সংগ্রামের পর ১৯৯৩ সালে ইথিওপিয়া থেকে স্বাধীনতা লাভ করে ইরিত্রিয়া। কিন্তু পাঁচ বছর পরই সীমান্তের মালিকানা নিয়ে শুরু হয় সহিংস দ্বন্দ্ব। দুই বছরের সহিংসতায় নিহত হন হাজার হাজার মানুষ।