মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে দেশের সব থানা থেকে রাজাকারের তালিকা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সম্পূর্ণ অবিকৃত অবস্থায় শিগগিরই সে তালিকা সরকার প্রকাশ করবে।

শুক্রবার (২৮ জুন) পাবনার আটঘরিয়ায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি একথা বলেন।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, বিচারিক প্রক্রিয়ায় আদালতের মাধ্যমে যেসব যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুদন্ড কার্যকর হয়েছে, তারা দেশের প্রচলিত আইনেই অপরাধী প্রমাণিত হয়েছে। আদালতের রায়ের বিরোধিতা করে যারা যুদ্ধাপরাধীদের নির্দোষ দাবি করে, তারা দেশের সংবিধানকে অস্বীকার করে। তাদের বিষয়ে সরকার সজাগ রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিয়েছে। সারাদেশে সব মুক্তিযোদ্ধার কবর একই ডিজাইনে বাঁধাই করে দেওয়া হবে। বাজেট প্রস্তাবনায় মাসিক ১২ হাজার টাকা ভাতা দেওয়ার ঘোষণা হলেও তা আরও বাড়বে। দুই ঈদ ও পহেলা বৈশাখ ছাড়াও স্বাধীনতা ও বিজয় দিবসে বিশেষ বোনাস দেওয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন, মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের দাফনে তাদের প্রত্যেকের পরিবারকে ১৪ হাজার টাকা করে দেবে সরকার, যা তাদের গার্ড অব অনারের আগেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে দেওয়া হবে।

পাবনার জেলা প্রশাসক কবির মাহমুদের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন– টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের (অ্যাটকো) সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান হাবিব, পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এর আগে মন্ত্রী পাবনার আটঘড়িয়ায় এককোটি ৭০ লাখ ৮৩ হাজার ৪৮৫ টাকা ব্যয়ে নির্মিত তিনতলার মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করেন।