জামালপুর সদরের মেষ্টা ইউনিয়নে ঝিনাই নদী থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের সময় বৃহস্পতিবার মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ৮টি ড্রেজার মেশিন ধংশ করে দিয়েছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম মাজহারুল ইসলাম। একই সাথে হাজিপুরে দুটি করাত কলেও অভিযান চালিয়ে ৮ হাজার টাকা জরিমানা করেন তিনি।

এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন ধরে প্রশাসনকে কোন তুয়াক্কা না করে বালু খেকো কিছু অসাধু ব্যবসায়ী মেষ্টার হাজিপুর ভাদুরীপাড়া এলাকার ঝিনাই নদী হতে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করে আসছে। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক ভাদরীপাড়া এলাকার এক ব্যক্তি বলেন, এসব ড্রেজার মালিকরা সিন্ডিকেট করে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ছত্রছায়ায় এসব কাজ করে আসছে। ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলনের কারণে নদীর পাড়ের দু’পাশের আবাদী জমি ভেঙে যাচ্ছে। কিছু বলতে গেলে বড় বড় নেতার কথা বলে মারতে আসে।

এলাকাবাসী ড্রেজার মালিকদের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে চুপ করে থাকে। এসব র্কমকান্ডের সংবাদ পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে জামালপুর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভুমি) এসএম মাজহারুল ইসলাম সেখানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন। তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে ড্রেজার মালিক ও শ্রমিকরা দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে তিনি বালু উত্তোলনকারী ৮ টি ড্রেজার মেশিন আগুনে পুড়িয়ে দেন ও বালু উত্তোলন কাজে ব্যবহৃত পাইপ, সরঞ্জামাধি নষ্ট করে দেন।

সহকারী কমিশনার (ভুমি) এসএম মাজহারুল ইসলাম বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলন কোন ভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। সরকারী নির্দেশ অমান্য করে কেউ এসব কাজ করলে আইন অনুযায়ী তার ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এমন অভিযান অব্যহত থাকবে বলেও জানান তিনি। অপরদিকে একই দিনে মেষ্টা ইউনিয়নের হাজিপুর এলাকায় করাত কল(স’মিল) গুলোতেও অভিযান চালান তিনি। এসময় দুটি করাত মিল মালিকের কোন কাগজপত্র(লাইসেন্স) না থাকায় করাতকল (লাইসেন্স) বিধিমালা-২০১২ এর অধীনে ৮ হাজার টাকা জরিমানা করেন তিনি।