কাশ্মীরের শ্রীনগরে চলাচলের ওপর ফের বিধি-নিষেধ আরোপ করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। শ্রীনগরে ‘বিক্ষিপ্ত’ কিছু সংঘর্ষ হয়েছে স্বীকার করার একদিন আজ রোববার শহরটিতে মাইকিং করে জনগণের চলাফেরার ওপর বিধি-নিষেধ ঘোষণা করে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়,পুলিশ ভ্যানে করে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা রাস্তার সব পথচারী ও দোকানিদের বাড়িতে চলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

গতকাল শনিবার দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, শ্রীনগর ও বাড়ামুল্লায় কিছু ‘বিপথগামীদের বিক্ষোভ’ সংঘটিত হয়েছে। তোনোটিতেই বিশজনের বেশি মানুষ হয়নি। এসব এলাকায় ব্যাপক বিক্ষোভ হচ্ছে-কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর এমন দাবি প্রসঙ্গে কাশ্মীরের পুলিশ প্রধান দিলবার সিং বলেন, পাথর ছোঁড়াছুড়ির মতো ছোটো-খাটো কিছু ঘটনা ঘটেছে, যা ঘটনাস্থলে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করে।

এদিকে, কাশ্মীরের প্রায় ১০ হাজার মানুষের বিক্ষোভ হয়েছে-বিভিন্ন দেশি বিদেশি গণমাধ্যমে প্রচারিত খবরগুলোকে ‘সাজানো ও ভুল’ বলে আখ্যায়িত করেছে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এক বিবৃতিতে মন্ত্রণালয়ের মুখ্যসচিব জনগণকে কোনো বিভ্রান্তিকর তথ্য কিংবা গুজবে কান না দেওয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। গতকাল শনিবার ১৪৪ ধারা রদ করার পর শ্রীনগরের যান চলাচল শুরু হয়। এ সময় শহরের বাসিন্দাদের ঈদের কেনাকাটা করতে দেখা যায়।