গাজীপুরে তিতাস গ্যাসের ভ্রাম্যমাণ আদালত বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার এলাকার গ্যাস লাইন ও প্রায় ১২শ’ অবৈধ আবাসিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে। এসময় ওই এলাকা থেকে বিভিন্ন ব্যাসার্ধের পাইপ, চুলা, রাইজার ও অবৈধ সংযোগে ব্যবহৃত বিভিন্ন সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়।

গাজীপুর তিতাস গ্যাসের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী অজিত চন্দ্র দেব জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বারবৈকা এলাকার অসাধু লোকজন বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠাণ ও বাসা বাড়ীতে অবৈধ লাইন সংযোগ দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিপদজনকভাবে গ্যাস ব্যবহার করছে। এসব অবৈধ সংযোগের গোপন সংবাদ পেয়ে গাজীপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হারুন অর রশিদের নেতৃত্বে ও গাজীপুর (জোবিঅ-গাজীপুর) এর উদ্যোগে বৃহষ্পতিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ওই এলাকার চারটি পয়েন্টে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানকালে বিভিন্ন বাসা বাড়ির জন্য অবৈধভাবে স্থাপিত প্রায় ৫ কিলোমিটার পাইপ লাইনসহ স্থানীয় ৬ শতাধিক বাসার প্রায় ১২ শ চুলার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও ৭শ’ মিটার পাইপ লাইন অপসারণ করা হয়। এসময় অবৈধ সংযোগে ব্যবহৃত বিভিন্ন ব্যাসের পাইপসহ নানা সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়। অভিযান পরিচালনার খবর পেয়ে অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারীরা পালিয়ে যায়। যারা অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ গ্রহণ করেছেন এবং সহযোগিতা করেছেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্থানীয়রা জানায়, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বারবৈকা এলাকার জনৈক লেহাজ উদ্দিনের ছেলে সোহেল রানা স্বপন এলাকার বিভিন্ন বাসা বাড়ীর মালিকদের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা নিয়ে রাতের আঁধারে এসব অবৈধ সংযোগ প্রদান করে। এসব অবৈধ লাইনকে শীঘ্রই বৈধ করে দেবার প্রতিশ্রুতি দেয় সে। লাইন বৈধ হবার আশায় স্থানীয় কয়েকশ লোক মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে এসব অবৈধ সংযোগ নিয়ে গ্যাস ব্যবহার করতে থাকে। কিন্ত দীর্ঘদিনেও এসব অবৈধ লাইনগুলোকে বৈধ করতে পারেনি উক্ত সোহেল রানা স্বপন।

অভিযানকালে গাজীপুর তিতাস গ্যাসের (জোবিঅ-গাজীপুর) ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী অজিত চন্দ্র দেব, উপব্যবস্থাপক প্রকৌ. শবিউল আওয়াল, প্রকৌ. আব্দুল আলিম রাসেল ও প্রকৌ. সৈয়দ আবু সুফিয়ান, সহকারী ব্যবস্থাপক (কারিগরী) মোঃ রেজাউল হক, সহকারী প্রকৌশলী মির্জা শাহনেওয়াজ লতিফ, উপ-সহকারী প্রকৌ. মোঃ সাবিনুর রহমান, বিক্রয় সহকারী এসএম আনোয়ার হোসেন ও আসাদুল্লাহ কায়সারসহ তিতাস গ্যাস ও প্রশাসনের প্রমূখ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।